• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

জলঢাকায় তৃণমূল পর্যায়ে সংগঠিত হচ্ছে জামায়াত

Jamatহাসানুজ্জামান সিদ্দিকী হাসান, জলঢাকা: জামায়াতের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত নীলফামারীর জলঢাকায় সরকারীদলের উদাসীনতা ও প্রশাসনের নিস্ক্রিয়তায় আবারো মাথা চাড়া দিয়ে তৃণমূল পর্যায়ে সংগঠিত হচ্ছে জামায়াত। আর আওয়ামীলীগের দলীয় অন্তর্কোন্দল, সহযোগী সংগঠন সমুহের সাথে সমন্বয়হীনতা ও দীর্ঘদিন ধরে সন্মেলন না হওয়ার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জামায়াত এ ফায়দা হাসিল করছে বলেই সকলের ধারণা। পাশাপাশি সরকারী দলের পরো ও প্রত্য সহযোগিতা ও প্রসাশনের নীরবতাই এর মূল কারণ বলে মনে করছেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সূধীমহল।জানাযায়, ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্র“য়ারী মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের শীর্ষ নেতা মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষনার পর সারাদেশের ন্যায় নীলফামারীর জলঢাকাতেও ব্যাপক নাশকতা চালায় স্থানীয় জামায়াত –শিবির কর্মীরা। আওয়ামীলীগ নেতা কর্মী  ও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও ভাংচুর চালায় তারা। এমনকি, হামলা চালানো হয় পুলিশ ও বিজিবির উপরও। আর জামায়াত নেতা-কর্মীদের এসব হামলায় দ’পরে সংঘর্ষে একজন জামায়াত সমর্থক একজন স্কুল ছাত্রসহ আজিজার রহমান নামে এক পুলিশ কনস্টেবল মৃত্যু বরণ করেন।এদিকে, মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের আর এক নেতা কাদের মোল্লার ফাঁসির রায়কে কেন্দ্র করে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-ঘরে অগ্নি সংযোগ, রাস্তা-ঘাট কাটাঁ, ব্রীজ-কালভার্ট উপরে ফেলাসহ রাস্তার দু’ধারের বড় বড় গাছ কেটে ফেলে জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীরা।পাশাপাশি, গত ৫ জানুয়ারীর ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে ভোটকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ এবং ব্যালট পেপার ও ব্যালট বাক্স লুটপাট ও ছিনতাই করে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। ফলশ্রুতিতে, এসব সহিংস ঘটনায় পুলিশ, নির্বাচন কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দু’দফায় ২২ টি মামলা সহ ৫১৫ জনের নাম উল্লেখকরে জামায়াতের সাড়ে তিন হাজার নেতা-কর্মীকে আসামী করা হয়। তাদের মধ্যে নীলফামারী জেলা জামায়াতের আমীর ও জলঢাকা আইডিয়াল কলেজের সাবেক অধ্য আজিজুল ইসলাম, জলঢাকা উপজেলা জামায়াতের আমীর আব্দুল গণি, উপজেলা জামায়াতের সেক্রেটারী সাদের হোসেনসহ উপজেলার শীর্ষ পর্যায়ের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ সহ বিভিন্ন শিক্ষা ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীগণের নাম থাকলেও আজ পর্যন্ত তারা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকায় বিষয়টি ভাবিয়ে তুলছে স্থানীয় রাজনৈতিক অংঙ্গন সহ সুধীমহলে।কেননা,গত ফেব্র“য়ারীর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় থেকে বর্তমান সময়ে সমাজের সর্বস্তরে জামায়াত নেতা কর্মীদের সরব উপস্থিতি যেন তাক লাগিয়ে দেয়ার মতোই। পাশাপাশি, এমপিও ভুক্ত বিভিন্ন স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসায় কর্মরত শিকরা এসব মামলায় আসামী হয়ে গ্রেফতার এড়াতে ফেরারি হলেও মাস শেষে কর্মস্থল থেকে নিয়মিত বেতন উত্তোলন করায় এটি জামায়াতের সহিত আওয়ামীলীগের সমঝোতা ও আপোষকামীতা বলে মনে করছেন অনেকেই।তাই জনমনে এখন একটাই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দ্বিতীয় বারের মতো স্থানীয় আওয়ামীলীগ থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে জলঢাকার মা,মাটি ও গণ-মানুষের অবিসংবাদিত নেতা অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা নির্বাচিত হওয়ার পর পালের হাওয়া কোন দিকে যায়? এটাই একন দেখার বিষয় ।পাশাপাশি, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান গুলোতে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের সহিত জামায়াত নেতৃবৃন্দের সামীল হওয়া, শহরের বিভিন্ন হোটেল – রেস্তোরাগুলোর চায়ের টেবিলে একসঙ্গে বসে আড্ডা দেওয়া ও চা পান করা। অন্যদিকে জামায়াত-শিবির কর্মীরা শিা প্রতিষ্ঠানগুলো সহ কর্মস্থলে অনুপুস্থিত থেকে বহাল তবিয়তে মাস শেষে বেতন উত্তোলন করছে এবং আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সহযোগীতায় ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন পূর্ববর্তী সহিংসতা ও নাশকতামূলক কর্মকান্ডের জন্য দায়ের করা মামলা থেকে জামায়াত নেতৃবৃন্দের নাম কর্তন করাসহ আওয়ামী লীগের এহেন বিতর্কিত কর্মকান্ড ও আপোষকামীতার কারণে জামায়াত শিবির তৃণমূল পর্যায় থেকে পূণরায় সু-সংগঠিত হয়ে আবারও না-জানি কবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপরে শক্তির উপর মরণ ছোঁবল হানে এই আতংক বিরাজ করছে সচেতন মহল সহ সর্বস্তরে।অন্যদিকে আওয়ামীলীগ দলীয় কোন্দলের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জামায়াত-শিবিরের প্রথম সারির নেতারা আত্মগোপনে থেকে মধ্যম শ্রেণীর নেতা-কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রেখে নিয়মিত দিক- নির্দেশনা দিয়ে দলের পে জনমত সৃষ্টি করছে। বিশেষ করে উপজেলার বিভিন্ন চরাঞ্চলে আশ্রয় নিয়ে ওইসব নেতারা দলের সকল প্রকার কার্যক্রম পরিচালনা করছে বলে বিভিন্নÍ সূত্রে জানা গেছে।এ বিষয়ে জলঢাকা থানার ওসি মনিরুজ্জামান (মনির) জানান, প্রশাসনের দিক থেকে জামায়াত-শিবিরের এজাহারভূক্ত আসামীদের ছাড় দেয়ার প্রশ্নই উঠেনা।আমাদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত আছে, তারা পলাতক ও ফেরারী থাকায় তাদের ধরা সম্ভব হচ্ছে না । এদিকে, নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামীলীগের উচ্চ ও মধ্য সারির কয়েকজন নেতৃবৃন্দ জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ আওয়ামীলীগের দলীয় সংসদ সদস্য না থাকায় এবং তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামীলীগ সহ সকল সহযোগী সংগঠ সমুহের যথাসময়ে সন্মেলন না হওয়ায়, দলীয় কার্যক্রমে পড়েছে ভাটা সহ দলের মধ্যে পাওয়া, না-পাওয়া, নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন-অবমূল্যায়ন ক্ষোভ-হতাশার মধ্য থেকে অন্তর্দ্বন্দের সৃষ্টি হলেও তা দলীয় এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে সমাধান করে সন্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনকে শক্তিশালী করে ত্যাগী নেতা কর্মীদের মূল্যায়নের মাধ্যমে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ