• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:১১ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেলো ফাতেমা

Ballo Biaনীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও  উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেলো  ফাতেমা বেগম (১২) নামের সপ্তম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত ছাত্রী। সে জেলার ডোমার উপজেলার কেতকীবাড়ী উচ্চ  বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী  ও একই উপজেলার গোমনাতী ইউনিয়নের উত্তর গোমনাতী গ্রামের গুয়াবাড়ির মহল্লার  রফিকুল ইসলামের মেয়ে। সোমবার রাত সাড়ে আটার দিকে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও  উপজেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় থানা পুলিশ  বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হয়ে এই বিয়ে বন্ধ করেন বলে জানান গোমনাতী ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়াডের ইউপি সদস্য রবিউল আলম রাব্বী।
ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য রবিউল আলম রাব্বী জানান,  উক্ত গ্রামের  রফিকুল ইসলামের মেয়ে ও কেতকীবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেনীর ছাত্রী ফাতেমা বেগমের (১২) সাথে পাশ্ববর্তী দক্ষিন গোমনাতী গ্রামের মুছাব আলীর ছেলে বিপুল আলী (১৮) সাথে সোমবার রাতে বিয়ের আয়োজন করে উভয়পক্ষের পরিবার। রাত ৮টার দিকে বরযাত্রীও চলে আসে কনের বাড়িতে। বিষয়টি তাৎক্ষনিক ভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ শফিউর রহমানকে জানানো হলে তাঁর  নির্দেশে থানা থেকে এসআই শাহিনুর ইসলাম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হয়। এসময় পুলিশ দেখে  বিয়ের  সকল প্রস্তুতি ফেলে বরযাত্রী সহ কনের পিতা ও অন্যান্য অভিভাবকরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ  দুই পক্ষের কাছে  মুচলেকা নিয়ে বিয়েটি বন্ধ করে দেয়।
ডোমার থানার উপ-পরির্দশক শাহিনুর ইসলাম সিদ্দিকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলা  নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মেয়ের  ও ছেলের  পরিবারের কাছে একটি মুচলেকা নিয়ে এই বাল্য  বিয়ে বন্ধ করা হয়।
এদিকে বাল্য  বিয়ে থেকে মুক্ত পেয়ে ফাতেমা বেগম অভিযোগ করে জানান, ‘আমার বাবা-মা আমার ইচ্ছের বিরুদ্ধে জোড় পূর্বক বাল্য বিয়ে দিচ্ছিল। এসময় মেম্বর চাচা (ইউপি সদস্য) বাবা-মাসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের বিয়েটি বন্ধ করতে বল্লেও তারা শুনেনি। পরে পুলিশ এসে বিয়ে বন্ধ করে। আমি এখন আবার স্কুলে যেতে পারবো।  পড়া লেখা করে নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবো।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ