• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন |

বদরগঞ্জে সৌর বিদ্যুতে ধানচাষ

Badarganj photo01-  05-05-2014
সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): রংপুরের বদরগঞ্জে কুতুবপুর ইউনিয়নের নাটারাম ডাঙ্গাপাড়ার কৃষকরা এখন সৌরবিদ্যুৎ দিয়ে বোরো ধান চাষাবাদ করছেন, গ্রামকে করেছেন আলোকিত। সৌর বিদ্যুতের প্যানেল বসিয়ে তারা চলতি ইরি বোরো মৌসুমে ৫০ একর জমিতে বোরো চাষ করেছেন। এখন আর তাদের ডিজেল কেনার ঝামেলা পোহাতে হয় না। গ্রামে এখন সৌরবিদ্যুতের আলোর ঝলক। ছেলে মেয়েদের লেখা পড়ায় আগ্রহ বেড়েছে অনেকগুণ। এত দিন তাদের গ্রামে কোন বিদ্যুত ছিলনা। দীর্ঘদিন পর সৌরবিদ্যুত আসাতে নতুন করে গ্রামের কৃষি অর্থনীতিতে অবদান রাখতে সাদ জেগেছে তাদের।
জানাগেছে, আশির দশকে এ উপজেলায় বিদ্যুত সরবরাহ শুরু হলেও নাটারাম ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে এখন পর্যন্ত বিদ্যুত পৌঁছেনি। এজন্য দুঃখের সীমা ছিলনা ওই গ্রামের কৃষকদের। সৌর বিদ্যূত পেয়ে তারা এবার নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে।
গতকাল সোমবার সরেজমিনে জানা যায়, নাটারাম ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন এনজিও শোলারগাঁও লিমিটেড এর আওতায় বদরগঞ্জ শাখা অফিসের মাধ্যমে সৌরবিদ্যুৎ প্যানেলের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণ শেষে ওই কৃষক গ্রামের  ৩০জন  কৃষক নিয়ে নাটারাম ডাঙ্গাপাড়া সৌর প্যানেল সমিতি গঠন করে। এর পর আফজাল হোসেন এনজিও সোলারগাও লিমিটেড থেকে তাদের সমিতির নামে সৌরবিদ্যুৎ প্যানেল (উপকরণ) ঋণ গ্রহন করেন। যার মূল্য ধরা হয় ১৫ লাখ টাকা। আফজাল হোসেন জানিয়েছেন ওই সৌর বিদ্যুত দিয়ে ১০০ ওয়ার্ডের ২৪০টি বাল্ব, ১২০টি ফ্যান, ১০০টি টিভি ও  ৫ হর্স পাওয়ারের সেচ মটর চালানো যাবে।
ওই সৌরবিদ্যুত ব্যবহার করে আফজাল হোসেন ৫ হর্স পাওয়ারের একটি বৈদ্যুতিক মটর বসিয়ে সমিতির মাধ্যমে চলতি ইরি বোরো মৌসুমে ৫০একর জমিতে পর্যায় ক্রমে পানিসেচ দিচ্ছেন। পাশাপাশি গ্রামটিকে আলোকিত করেছেন। ঘরে ঘরে ফ্যান ঘুরছে।
এ সময় ওই গ্রামের কৃষক মোহাদ্দেছ আলী বলেন, “সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে গ্রামের ঘরে ঘরে বাতি জ্বলছে, ছইলপইল গুলা এখন রোজ লেখাপড়া করে, স্কুলেও যায়। গ্রামের মানুষের মুখত হাসি নাগি আছে।’
গ্রামের কৃষকেরা এখন সৌরবিদ্যুৎ প্যালেন বসিয়ে, স্বল্প খরচে ইরিবোরো ধান চাষ করে কৃষি অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার স্বপ্ন দেখছে। এখন আর ওই গ্রামের কৃষকদের কোন দুঃখ নেই।
এ বিষয়ে ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের সৌর বিদ্যুত প্লান্টের কৃষক সমিতির সভাপতি আফজাল হোসেন বলেন, এনজিও শোলারগাঁও লিমিটেডের আওতায় সৌর বিদ্যুত প্লান্ট বসিয়ে আমরা গ্রামটিকে আলোকিত করতে সক্ষম হয়েছি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জিয়াউল হক বলেন, কৃষি ক্ষেত্রে সৌর বিদ্যুত ব্যবহার করে ভালো ফল পাওয়া সম্ভব। এতে বৈদ্যুত সাশ্রয় হবে এবং সময়মত জমিতে সেচ দেওয়া যাবে।
ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান চাপুল বলেন, এই প্রথম।সৌর বিদ্যুৎ প্লান্ট বসিয়ে আমার ইউনিয়নের কৃষকরা ভালফল পেতে বসেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ