• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

বরাদ্দের অধিকাংশ ব্যয় তদবির ও বিদেশ ভ্রমণে

upঢাকা: আমাদের দেশে স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠানগুলোতে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ থাকে তদবির বরাদ্দ। আর মূল কাজে ব্যয় হয় মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। বাকি বরাদ্দ মন্ত্রণালয় বিদেশ ভ্রমণসহ অজানা কাজে ব্যয় করেন। স্থানীয় সরকারের প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে এমন তথ্য জানিয়েছেন এ খাতের বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. তোফায়েল আহমেদ।
মঙ্গলবার ডেইলি স্টার ভবনে আয়োজিত ‘বাজেট বিকেন্দ্রীকরণ ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের জন্য যুক্তিসঙ্গত বরাদ্দ’ বিষয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন। গভর্নেন্স অ্যাডভোকেসি ফোরাম এ সভার আয়োজন করে।
ড. তোফায়েল বলেন, ‘এমনিতেই স্থানীয় সরকারের প্রকল্পে বরাদ্দ তুলনামূলকভাবে কম। সেখান থেকেও বেশিরভাগ টাকা এভাবে বিভিন্ন ধাপে চলে যায়। তাহলে মূল উন্নয়নটা কীভাবে হবে?’ এ খাতে বর্তমান বরাদ্দ কতটা যুক্তিসঙ্গত এবং বরাদ্দের কতটা স্থানীয় সরকারের উন্নয়নে ব্যয় হয় তা নজরদারির জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানান তিনি।
ফোরামের চেয়ারপারসন ড. কাজী খলীকুজ্জমানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। উপস্থিত ছিলেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহাবুব আরা বেগম গিনি, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম ও ফোরামের সমন্বয়কারী মহসিন আলী। সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এম এম আকাশ।
এসময় কাজী খলীকুজ্জামান বলেন, ‘বাংলাদেশে বর্তমানে বড় ধরনের ধান্দাবাজের অর্থনীতি বিরাজমান। শক্তিশালী একটি গোষ্ঠী দেশের সার্বিক অর্থনীতি ও বাজেটকে নিয়ন্ত্রণ করছে। তাদের এ ক্ষমতাকে নষ্ট করতে হবে।’
মূল প্রবন্ধে এম এম আকাশ বলেন, ‘স্থানীয় পর্যায়ে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে কেন্দ্র থেকে পাঠানো অর্থের এক-তৃতীয়াংশ ‘ছিদ্র পথে’ বেরিয়ে যায়। ফলে তা সঠিক ব্যক্তির কাছে পৌঁছে না। তাই পাইপে পানি বাড়ানোই যথেষ্ট না, পাইপের ফুটোগুলিও বন্ধ করতে হবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘কাজ বাস্তবায়নে অনেক ক্ষেত্রেই সরকারের সদিচ্ছার প্রকাশ দেখা যায়। কিন্তু চাপের কাছে নতি স্বীকার করে পিছিয়ে আসারও অসংখ্য নজির রয়েছে।’
মূল প্রবন্ধে স্থানীয় সরকারের পরিকল্পনা ও বাজেটে পঞ্চবার্ষিক ও এক বছর মেয়াদী পরিকল্পনা, জাতীয় পরিকল্পনার সঙ্গে সমন্বয়, তৃণমূল থেকে কেন্দ্রে সুনির্দিষ্ট নীতি অনুসরণ, জেলা বাজেট প্রণয়ন, ভূমি হস্তান্তর করের ৫ শতাংশসহ স্থানীয় উৎসের কর ব্যবহার, সংশ্লিষ্ট ১২টি মন্ত্রণালয়ের ১৭টি দপ্তরকে কার্যকরের দাবি তুলে ধরা হয়।
স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় বিভিন্ন জটিলতার কথা স্বীকার করে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদের সঙ্গে স্থানীয় গণমানুষের যোগাযোগ সবচেয়ে বেশি। তাই স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার কেন্দ্র হিসেবে ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী এবং কার্যকরভাবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয়া হবে।’ এজন্য বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানোর কথা বলেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ