• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে রেলের সম্পত্তি দখলকারীদের উচ্ছেদ নোটিশ

Saidpur
সিসি নিউজ: সৈয়দপুর শহরে রেলের সম্পত্তি দখলকারী ও রেললাইনের দু’পাশে অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদে নোটিশ প্রদান করেছে রেল কর্তৃপ। গত এক সপ্তাহ আগে ১৫২ জন দখলদারকে এমন নোটিশ দেয়া হয়েছে।
সৈয়দপুর রেলওয়ের বর্তমান কানুনগো অফিস সূত্রে জানা যায়, রেলওয়ে এ জেলা অফিসের অধীনে প্রায় ৭৯৯.৯৮ একর সম্পত্তি রয়েছে। এর মধ্যে কারখানা, স্টেশন, কোয়ার্টার, বিভিন্ন অফিস ও স্থাপনা আছে ৪শত একর। আর বাকি সম্পত্তি রয়েছে চাষাবাদি জমি, আবাসন, বাণিজ্যিক এলাকা, জলাশয় ও ইটভাটা। রেলওয়ে চাষাবাদি জমি ও জলাশয় নিজ প্রক্রিয়ায় বহিরাগতরা ব্যবহার করলেও মেয়াদ শেষে করেননি নবায়ন। আর লিজ প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেদখলকারীরা যুগের পর যুগ ভোগ করায় প্রায় ৩শ কোটি টাকার রাজস্ব বঞ্চিত হয়েছে এ দপ্তর। এ নিয়ে সৈয়দপুর রেলওয়ের ভূমি অফিস একাধিকবার নোটিশ প্রদান করলেও টনক নড়েনি দখলকারীদের।
উল্টো তারা দখল করা রেলের জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণ করে ভাড়া প্রদান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কিংবা বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা আয় করেছে। এতে রেল কর্তৃপহ স্থানীয় প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় দিনের পর দিন দখলকৃত সম্পত্তি ভোগ করায় শত কোটি টাকার রাজস্ব বঞ্চিত পাশাপাশি মালিকানাও পড়েছে হুমকিতে। তাই এবার উদ্ধারে নোটিশের পরপরই সরাসরি উচ্ছেদ অভিযান চালাবেন বলে জানান রেল কর্তৃপ।
অপরদিকে দেখা গেছে দখলকারীরা রেলের সাথে পৌরসভার বিরুদ্ধে চলমান মামলাকৃত এলাকার বহুতল ভবন করছে। অথচ এ মামলাটিতে মহামান্য আদালত বহুতল ভবনের নকশা অনুমোদনসহ টোল উত্তোলন বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন। পাশাপাশি সৈয়দপুর রেলস্টেশন থেকে পার্বতীপুরগামী রেললাইনে ১নং ঘুমটি পর্যন্ত প্রতিদিনই দোকানপাট বাড়ছে। এতে ট্রেন চলাচলের প্রায়শই দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটছে। তাই সম্পত্তি উদ্ধার ও নির্বিঘেœ নিরাপত্তার স্বার্থে ট্রেন চলাচলের জন্য গত সপ্তাহে ১৫২ জনকে উচ্ছেদ নোটিশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া শহরের জিকরুল হক রোডের ঢাকা ব্যাংক, ওয়ালটন ভবন, আল আরাফাহ ব্যাংক মালিকসহ মনোজ কুমারকে ২ বছর আগে উচ্ছেদ নোটিশ দেয় কর্তৃপ। এসব তোয়াক্কা না করে ওইসব দখল করা সম্পত্তিতে বহুতল ভবন নির্মাণ কার্যক্রম অব্যহত রেখে ব্যবসা ও বিক্রি করা হচ্ছে। এভাবে রেলওয়ে নিজস্ব সম্পত্তির মালিকানাও পড়েছে হুমকিতে।
জানা যায়, ২০১৩ সালে শহরের জিকরুল হক সড়কের ঢাকা ব্যাংক ভবনটি নীলা দেবী সিংহানিয়া ৪ কোটি টাকায় এবং আল-আরাফা ব্যাংক ভবনটি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আফজাল হোসেন ৬ কোটি টাকায় বিক্রি করেছেন। নীলা দেবী ভারতে গেলেও ওই ব্যবসায়ী রয়েছে এ শহরে। আর বহুতল ভবন নির্মাণ করে সেখানে মার্কেট কিংবা ব্যাংক বীমার অফিস ভাড়া দিয়ে কোটি কোটি টাকা আয় করছেন। এতে কতিপয় রেল কর্মকর্তা স্থানীয় প্রভাবশালী মহল ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে জানা যায়।
আর এভাবেই রেলের সম্পত্তিতে বহুতল ভবনের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সচেতন মহল মনে করছেন এ নোটিশ প্রদান রেলওয়ের আর্থিক বাণিজ্যের নতুন ফাঁদ। এর আগেও নোটিশ প্রদান করা হলেও অজ্ঞাত কারণে তা স্থগিত হয়ে যায়। তাই স্থানীয় সচেতন মহল মনে করছে কতিপয় রেল কর্মকর্তাদের এটি অর্থ বাণিজ্যের নতুন কৌশল। তা নাহলে রেলের এ নগরী ২ যুগ আগে দখল মুক্ত হতো।
তবে এমন অভিযোগ মানতে নারাজ রেল কর্তৃপ। রেলওয়ে পাকশী, লালমনিরহাট ও সৈয়দপুরের আইন পরিদর্শক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, বর্তমান রেলের বেহাত সম্পত্তি উদ্ধারের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় নোটিশ দেয়া হয়েছে। এরপরেও যদি দখলকারীরা সম্পত্তি বুঝে না দেয় তাহলে সরাসরি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দখলমুক্ত করা হবে।
এ নিয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগীয় ভূসম্পত্তি (পাকশি) কর্মকর্তা মোস্তাক আহমেদ জানান, রেলওয়ের সম্পত্তি বিক্রি ও ব্যবসা করে বেদখলকারীরা কোটিপতি হবে আর সরকার থাকবে বঞ্চিত তা মেনে নেয়া হবে না। অবশ্যই উচ্ছেদ প্রক্রিয়া কার্যকরের মাধ্যমে সৈয়দপুর রেলওয়ের অস্তিত্ব রা করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ