• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:১২ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় সরকারি তদন্ত কমিটি

RABঢাকা: বাংলাদেশ সরকার নারায়ণগঞ্জে চাঞ্চল্যকর সাত খুনের ঘটনা তদন্তে সাত সদস্যের এক তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। হাইকোর্টের এক আদেশের প্রেক্ষিতে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাজাহান আলী মোল্লার এ কমিটির নেতৃত্বে রয়েছেন।

নারায়নগঞ্জে অপহরনের ঘটনার পর অপহৃতদের উদ্ধার তৎপরতায় কোন অবহেলা ছিল কি-না এবং ঘটনার সাথে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কেউ জড়িত ছিল কি-না এ কমিটি তা খতিয়ে দেখবে। কমিটিতে জনপ্রশাসন, স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা থাকবেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টা জানিয়েছেন, নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুনের ঘটনার প্রাথমিক তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতেই র‍্যাবের তিন কর্মকর্তাকে অবসরে পাঠানো হয়েছে।

গত ২৭শে এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে সাত জন অপহরণের সময় ওই এলাকায় র‍্যাবের দায়িত্বে থাকা তিন সামরিক কর্মকর্তাকে অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয় গত মঙ্গলবার। এদের তিন জনের মধ্যে দুজন সেনাবাহিনীর এবং একজন নৌ বাহিনীর কর্মকর্তা।

তারা হলেন র‌্যাব-১১ এর সদ্য সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ, মেজর আরিফ হোসেন ও লে. কমান্ডার এম এম রানা।

প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলছেন প্রাথমিক তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আরেকজন উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরি বলেছেন জনমনে আস্থা ফিরিয়ে আনতেই প্রধানমন্ত্রী কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেন।

ওদিকে নারায়ণগঞ্জে নিহত সাত জনের লাশের ময়না তদন্ত রিপোর্ট আজ পেশ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সেনা সদর দপ্তর ও নৌবাহিনী সদর দপ্তর থেকে এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে অবসরের পর এসব কর্মকর্তারা সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের কেউ এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি না হলেও বিষয়টি স্বীকার করে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেছেন প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে এবং আরও তদন্ত চলছে। সেখানে আরও কেউ জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, “দুজনকে অকালীন অবসর এবং আরেকজনকে বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া হয়েছে। সব ডিপার্টমেন্টের কিছু পদ্ধতি থাকে। র‍্যাবেরও মেকানিজম আছে। তারা তদন্ত করেছে। প্রাথমিক তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে”।

মিস্টার ইমাম আরও বলেন নারায়ণগঞ্জের ঘটনার কোন দায় সরকার নেবেনা। তদন্ত অব্যাহত থাকবে এবং যেই জড়িত বলে প্রমাণ পাওয়া যাবে তার বিরুদ্ধেই সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এদিকে কর্মকর্তারা বলছেন অবসরে পাঠানো ওই তিন কর্মকর্তাকে নিজ বাড়ীতে অবস্থান করতে বলা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জে সাতজনকে অপহরণের ঘটনার পর ৩০ শে এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীতে মৃতদেহ পাওয়ার পর নিহতদের একজন নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম অভিযোগ করেছিলেন, টাকার বিনিময়ে র‍্যাবকে ব্যবহার করে নজরুল ইসলামকে অপহরণ ও খুন করা হয়।

ঘটনাটি তদন্তের জন্য র‍্যাবের একটি কমিটি কাজ করছে। র‍্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয় তারা কারও পক্ষ নেবেনা এবং নিরপেক্ষভাবেই তদন্ত করা হবে। এছাড়া একইভাবে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের পাশাপাশি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে বা সিআইডিকে দিয়ে মামলা তদন্ত করতেও নির্দেশ এসেছে আদালত থেকে।

বাংলাদেশে পুলিশের বিশেষ ইউনিট র‍্যাব মূলত সামরিক বাহিনীর অফিসারদের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। র‍্যাবের সদস্যদের বিরুদ্ধে এর আগেও নানা ধরণের অপরাধ মূলক কাজে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উঠে। তবে অর্থের বিনিময়ে একসঙ্গে সাত ব্যক্তিকে অপহরণ ও খুনের মতো গুরুতর অভিযোগ নজিরবিহীন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আরেকজন উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের ঘটনা অত্যন্ত আলোচিত একটি ঘটনা এবং সে কারণেই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, “জনমনে যেন স্বস্তি ও আস্থা ফিরে আসে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় যারা জড়িত তাদের যেন ত্রুটি না থাকে, লেনদেনের কোন সুযোগ যেন ভবিষ্যতে না থাকে সেজন্যই এ দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হলো”।

মিস্টার চৌধুরী বলেন ঘটনাটি নিয়ে ব্যাপক তদন্ত চলছে এবং তার আশা দ্রুতই মূল অভিযুক্তরা ধরা পড়বে। তিনি মনে করেন মূল অভিযুক্ত ব্যক্তি ধরা পড়লে কারা কারা কিভাবে ঘটনার সাথে জড়িত ছিলেন তার সবকিছুই পরিষ্কার হবে।

তবে উচ্চপদস্থ সেনা কর্মকর্তারা বলছেন নারায়ণগঞ্জের ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্টতা থাকুক আর না থাকুক বা কারণ যাই হোক না কেন বাংলাদেশের সেনা আইন অনুযায়ী সরকার যে কোন কর্মকর্তাদের অবসরে পাঠানো বা চাকরী থেকে অব্যাহতিও দিতে পারেন।

ওদিকে সাত জনের ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন বলেছেন আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও কাউন্সিলর নজরুলসহ সাতজনকে অপহরণের পর পরই তাদের প্রায় একই কায়দায় হত্যা করা হয়। তার মতে এসব হত্যার ঘটনায় এটাই স্পষ্ট হয়েছে খুনিরা পেশাদার, দক্ষ ও প্রশিক্ষিত। বিবিসি বাংলা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ