• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০১:৩০ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে নাটাবের যক্ষা প্রতিরোধে আলোচনা সভা

OLYMPUS DIGITAL CAMERAনীলফামারী প্রতিনিধি: ‘অদক্ষ জনবল যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধের প্রধান বাধা। একই কারণে ওষুধ প্রতিরোধক (এমডিআর) যক্ষা রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। ফলে ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই দক্ষ জনবল তৈরি করা হলেই যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধ সম্ভব হবে।’ বুধবার সকালে নীলফামারী ডায়াবেটিক সমিতির সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি (নাটাব) নীলফামারী জেলা শাখার আয়োজেনে যক্ষ্মা প্রতিরোধে সাংবাদিকদের ভূমিকা শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এমন মত প্রকাশ করেন বক্তারা।
বক্তারা আরো বলেন, বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক ১৯৯৫ সাল থেকে  যক্ষ্মা রোগ সনাক্তকরণ ও চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছে। কিন্তু সংস্থাটির এ কর্মসুচিতে নেই কোন চিকিৎসক, এমনকি ডিপ্লোমা কর্মীও নেই। এ কারণে রোগের চিকিৎসা বাধা গ্রস্থ হয়ে ওষুধ প্রতিরোধক যক্ষ্মার (এমডিআর) ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ রোগীর কাছ থেকে বিস্তার হওয়া যক্ষ্মার জীবানু আরও ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেন তাঁরা।
নীলফামারী নাটাবের সভাপতি আনোয়ারুল ওয়ারেছের সভাপতিতে এসময় বক্তৃতা দেন সাধারণ সম্পাদক ডা. মজিবুল হাসান চৌধুরী শাহীন, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক খোরশেদ আলম, সাংবাদিক তাহমিন হক, মীর মাহমুদুল হাসান আস্তাক, নুরুল ইসলাম, হাসান রাব্বী প্রধান, আবু সাঈদ অপু প্রমুখ।
নাটাব জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মজিবুল হাসান চৌধুরী শাহীন বলেন, ‘সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আমরা এ কাজ করছি। যক্ষ্মার ভয়াবহতা থেকে রক্ষায় আমাদেরকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।’
বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক খোরশেদ আলম বলেন, ওষুধ প্রতিরোধক (এমডিআর) যক্ষ্মা রোগীর নিরাময় সময়সাপেক্ষ এবং ব্যয়বহুল। এসময়ে ওই রোগীর মাধ্যমে বিস্তার পাওয়া জীবানুর রূপও ভয়াবহ। তাই আক্রান্তের প্রথম পর্যায়ে নিয়মিত ওষুধ সেবনের মাধ্যমে রোগ নিরাময়ে সকলকে সচেতন হতে হবে। যক্ষ্মার ভয়াবহতার বিশ্বের ২২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ উল্লেখ করে তিনি বলেন, নীলফামারী জেলায় ওষুধ প্রতিরোধক (এমডিআর) চার জন যক্ষ্মা রোগী সনাক্ত হয়েছে। যাদের চিকিৎসা রাজশাহী ও ঢাকায়  চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ