• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ডিমলায় এতিমদের দুম্বার মাংস ভাগ-বাটোয়ারা!

Domar-Dimlaডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডিমলায় সৌদি সরকারের দেয়া দুম্বার মাংস অসহায়, এতিম ও গরিবদের জন্য বরাদ্দকৃত দুম্বার মাংস ভাগ-বাটোয়ারা করে নিল সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রভাবশালী ব্যক্তিরা! হুরাহুরিতে আহত হয়েছে কমপে ৩০জন।
সরজমিনে দেখা গেছে, এক টুকরা দুম্বার মাংসের জন্য গত বুধবার সন্ধার পর থেকে ডিমলা থানা চত্বরে ভিড় করতে থাকে এলাকার অসহায় এতিম ও গরিম মানুষ। কিন্তু রাত ৩টা পর্যন্ত অপো করার পরেও সে মাংস জুঁটেনি তাদের ভাগ্যে। সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রভাবশালী ব্যক্তিরা সে মাংস ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়েছে। তবে মনের ােভ আর না পাওয়ার বেদনায় ুব্ধ হয়ে কিছু অসহায় দুঃস্থ্যকে ২/৩ জন প্রভাবশালীর মাংসা কেড়ে নিতে দেখা গেছে। এ সময় হুরাহুরিতে আহত হয়েছে কমপে ৩০জন।
প্রাপ্ত তথ্য মতে জানা গেছে, ডিমলা উপজেলার অসহায়, এতিম ও গরিবদের নামে বরাদ্ধ পাওয়া প্রায় দেড়শত দুম্বার মাংসের প্যাকেটের মধ্যে অধিকাংশ প্যাকেট বিতরন করা হয় সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রভাবশালী ব্যক্তিদের মাঝে। উপজেলার দনি তিতপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র রিক্সাচালক নুর হক(৪০) জানান, গরিবের দুম্বার গোছতো সরকারী অফিসার আর বড় বড় নেতারা ভাগ-বাটোয়ার করে নিলো তাই খালি হাতে বাড়ী ফিরে যাচ্ছি। ডিমলা উপজেলা আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া বাইতুল উলুম এতিম খানাসহ সরকারী তালিকাভুক্ত ৮টি এতিম খানা রয়েছে। অভিযোগ পাওয়াগেছে, সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের পাশাপাশি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন দপ্তরে অফিস সহকারী ফরিদ উদ্দিন এতিম খানার নামে বরাদ্ধকৃত মাংসের প্যাকেট তার মুখচেনা বন্ধু এবং কথিত টন ব্যবসায়ীদের হাতে তুলে দিয়েছে। অথচ ওই দপ্তরের কর্মকর্তা(পিআইও) নায়েমা তাবাচ্ছুম বলেন, প্রতিটি এতিম খানা ও হাসপাতালের রোগীরদেও জন্য দুম্বার মাংস বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। তবে তারা পেল কি-না এটা আমার জানার দরকার নেই!  এদিকে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার ৮টি এতিম খানার এতিম বা হাসপাতালের রোগীদের ভাগ্যে একটুকরা মাংসও জুঁটেনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, দুম্বার মাংস নিয়ে এতো কিছু হয়ে যাবে আমি ভাবতেই পারিনি। আগামীতে জেলা সদর থেকে সকল এতিম খানায় দুম্বার মাংস সরবরাহ করার জন্য আমি ডিসি স্যারকে প্রস্তাব দিব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ