• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:৩৭ অপরাহ্ন |

র‌্যাবের বিরুদ্ধে আরো এক ব্যবসায়ী অপহরণের অভিযোগ

36920_sentu-nganj-abduction-wbঢাকা: র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাবের বিরুদ্ধে পুরান ঢাকার আরক ব্যবসায়ীকে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নাম রহমত উল্লাহ সেন্টু। তার স্ত্রী অভিযোগ করেন, র‌্যাব ১০-এর সদস্য পরিচয়ে একমাস আগে তার স্বামীকে তুলে নেয়া হলেও আজ পর্যন্ত তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।
রহমত উল্লাহ সেন্টু পরিবহণ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তার স্ত্রী লাভলী আক্তার বৃহস্পতিবার ঢাকার জাতীয় প্রেস কাবে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত ৯ই এপ্রিল তার স্বামীকে পুরনো ঢাকার ইংলিশ রোড এলাকা থেকে র‌্যাবের পোশাক পরা কয়েকজন অপহরণ করে। তিনি জানান, ওই দিন তিনি তার স্বামীর সঙ্গে একটি মামলার বিষয়ে আলোচনার জন্য পুরনো ঢাকার আদালত পাড়ার আইনজীবীর সহকারী শাহ আলমের চেম্বারে যান। আলমের সঙ্গে কথা বলে বেলা ১১টার দিকে তারা দুজন চেম্বার থেকে বের হন৷ তখন ৮/১০ জন লোক তার স্বামীকে জোর করে ইংলিশ রোডের দিকে নিয়ে যায়। তাদের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন এবং অপহরণকারীদের সঙ্গে তখন স্থানীয় লোকজনের হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। কিন্তু একপর্যায়ে সেন্টুকে টেনেহিঁচড়ে রাস্তার মুখে সাদা রঙের মাইক্রোবাসে তোলা হয়। মাইক্রোবাসটিতে কালো কাচ লাগানো ছিল। উপস্থিত লোকজন মাইক্রোবাসটি আটকানোর চেষ্টা করে বিফল হন। রহমত উল্লাহ সেন্টুর স্ত্রী অভিযোগ করেন, এর কয়েক মিনিট পর র‌্যাবের পোশাক পরা অস্ত্রধারী তিন থেকে চারজন লোক এসে জড়ো হওয়া লোকদের লাঠিপেটা করে মাইক্রোবাসের সামনে থেকে সরিয়ে দেয়। এরপর র‌্যাবের আরেকটি গাড়ি আসে সেখানে। র‌্যাবের পোশাক পরা লোকগুলো তার স্বামীকে ওই গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। লাভলী আক্তার জানান, পাশেই কয়েকজন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছিলেন। তখন পুলিশের সহায়তা চাইলে তারা জানান যে, তারা র‌্যাব ১০-এর সদস্য। পরিচয়পত্রও দেখান তারা। অথচ লাভলী আক্তার বলেন, ঘটনার পর তিনি র‌্যাব ১০-এর কার্যালয়ে গেলে তারা তার স্বামীকে আটকের কথা অস্বীকার করে।
এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় ১৬ এপ্রিল একটি অপহরণ মামলা করেন লাভলী আক্তার। তার অভিযোগ, ব্যবসায়িক বিরোধের জের ধরে সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালের সাইফুল ইসলাম মাহমুদ ও টার্মিনালের কর্মচারী বাবুর সহায়তায় র‌্যাব ১০-এর সদস্যরা তার স্বামীকে ধরে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় আইনজীবীর সহকারী শাহ আলমের যোগসূত্র আছে বলেও অভিযোগ তার। অপহরণের পর একমাস পার হলেও পুলিশ বা র‌্যাব তার স্বামীকে উদ্ধারে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ করেন লাভলি আক্তার। তাই স্বামীকে উদ্ধারে প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।
লাভলী আক্তার জানান, তার স্বামী রহমত উল্লাহ সেন্টু সায়েদাবাদ-টঙ্গী রুটের তুরাগ পরিবহনের ভাইস চেয়ারম্যান। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড়ে রড-সিমেন্টের ব্যবসা রয়েছে তার। পরিবারসহ সানারপাড়ে নিজস্ব বাড়িতে বাস করতেন তিনি।
এ ব্যাপারে র‌্যাব ১০-এর কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল খন্দকার গোলাম সারওয়ার জানান, আমরা এ ধরণের কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে কথিত ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হবে। কোতোয়ালি থানা পুলিশ এ ব্যাপারে একটি জিডির কথা স্বীকার করে। তবে তারা বলে অপহরণ নয়, নিখোঁজ হওয়ার জিডি করা হয়েছিল।
সূত্র : ডয়চে ভেল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ