• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৩৪ পূর্বাহ্ন |

তারাগঞ্জে মাদ্রাসা সুপার ও সহকারী শিক্ষিকা বরখাস্ত

Borkastoসারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার হাড়িয়ারকুঠি মানিয়ারঘাট দাখিল মাদ্রাসায় ভূয়া শিক্ষক নিবন্ধন দিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে চাকরী করছেন বিপালী বেগম নামে এক শিক্ষিকা। মাদ্রাসার  সুপার আতাউর রহমান বিষয়টি জানলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি। উপরন্ত নিয়োগ বিধি উপেক্ষা করে ওই শিক্ষিকাকে এমপিও ভূক্তি করিয়ে সরকারের কয়েক লাখ টাকা অপচয় করেছেন। সুপার আতাউর অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে অবশেষে পালিয়ে গেছেন ওই শিক্ষিকাকে নিয়ে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে মাদ্রাসার সুপার ও শিক্ষিকা বিপালী বেগমকে।
বিপালীর দাখিলকৃত বেসরকারী নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন পত্রে রোল ২১০১০৪৭৮ ও নিবন্ধন নম্বর ৬৪০০৪৫৪/২০০৬ উল্লেখ করা হয়েছে।  অথচ ওই সালের বেসরকারী শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার ফলাফল সিটে বিপালী বেগমের  দাখিল করা নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন পত্রের রোল নম্বর এর সাথে কোন মিল নেই।
সরেজমিনে গেলে সাবেক ইউপি সদস্য হাসেম আলী জানান, ২০০৬ সালে মাদ্রসার সুপার আতাউর রহমান ২ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে শিক্ষক নিবন্ধনের ভুয়া সাময়িক প্রত্যয়ন পত্র দিয়ে সহকারী শিক্ষিক পদে বিপালী বেগমকে নিয়োগ দেন। এবং বিপালী বেগমের  স্বামী  সাহেদুল ইসলামের কাছে আরও ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দাবী করেন ওই সুপার। ওই টাকা দিতে বিপালী বেগম রাজি না হলে মাদ্রার সুপার আতাউর রহমান ওই শিক্ষিকাকে ভয় দেখিয়ে তার সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। অবশেষে গত ১৯ মার্চ মাদ্রাসা ছুটি দিয়ে তাকে নিয়ে পালিয়ে যান সুপার আতাউর রহমান। মাদ্রসার পরিচালনা কমিটি অপকর্মের জন্য মাদ্রাসার সুপার ও শিক্ষিকা বিপালী বেগমকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন।
এ ব্যাপারে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসারে নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাহবুব আলম লেবু চৌধুরী বলেন, ইতিমধ্যে সুপার আতাউরসহ শিক্ষিকা বিপালী বেগমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
রংপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে এখনও আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ হলে তা যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ