• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৩:১৫ অপরাহ্ন |

আজ বিশ্ব মা দিবস

Ma-1সিসি নিউজ: ‘মায়ের একধার দুধের দাম, কাটিয়া গায়ের চাম’ অথবা ‘মায়ের মতো আপন কেহ নাই’ অথবা ‘মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের মুখে ঝরে’- এ ধরনের হাজারো গান রচিত হয়েছে মাকে নিয়ে। মা মানেই মমতা, মা মানেই নিশ্চয়তা, মা মানেই নিরাপত্তা, মা মানেই অস্তিত্ব, আশ্রয়, এক রাশ অন্ধকারে এক বুক ভালবাসা। মা পৃথিবীর সবচেয়ে প্রিয়, সবচেয়ে আপন। সেই মাকে ভালবেসে মানুষ স্মরণ করে একটি বিশেষ দিন। এ বছরের সেই দিনটি আজ। এই শুভ দিনে সব মায়ের প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা। এ দিবসটি পালন করা হয় মে মাসের দ্বিতীয় রোববার। এ দিনটিকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেয়া হলেও একেক দেশে একেক তারিখে দিনটি পালন করা হয়। মা তো মা-ই। তার তুলনা; তার সমকক্ষ বিধাতার সৃষ্টিতে আর কেউ নেই; কোথাও নেই; কিছুই নেই। মায়ের তুলনা মা নিজেই। তাই হয়তো গানের কলিতে বলা হয়, ‘মায়ের মতো আপন কেহ নাই’। তিনিই সন্তানের সবচেয়ে বড় আশ্রয়। আমাদের জীবনের গভীর সঙ্কটকালে যাকে প্রথম স্মরণ করি তিনি পরম মমতাময়ী মা। যখন সব হারিয়ে যায়, বিপদে-আপদে; দুঃসময়ে সবাই যখন দূরে সরে যায়, সবার মায়া-মমতা আর সেবা যখন থেমে যায়, তখন একজনই থাকেন অবশিষ্ট- তিনি মা। তাই মায়ের চেয়ে বড় কিছু পৃথিবীতে নেই। মায়ের মর্যাদা এমনই। সন্তান যত দূরেই থাক, মায়ের দু’চোখ জুড়ে বুকের মানিকই বসত করে। আর সন্তানেরও তাই। একবেলা মা’র মুখ না দেখলে, মা’র কণ্ঠ না শুনলে মন উচাটন করে। আর যাদের মা বেঁচে নেই তারা নিজেদের জগতের দুর্ভাগ্যজনই মনে করেন। মা আর সন্তানের এই সম্পর্ক পৃথিবীর সবচেয়ে গভীরতম সম্পর্ক। মায়ের মতো এমন প্রগাঢ়, নিষ্কলুষ, নিঃস্বার্থ ভালবাসা আর কারও কাছে আশা করা যায় না। পাওয়াও যাবে না। সন্তানের আমৃত্যু ভাল-মন্দ, সুখ-দুঃখ কেন্দ্র করেই তার যাবতীয় ভাবনা। এজন্যই বোধ হয় কবি বলেছেন, ‘মা নাই গৃহে যার, সংসার অরণ্য তার।’ ‘দেখিলে মায়ের মুখ, মুছে যায় সব দুঃখ।’ ‘মা ডাকটি অতি মধুর, জেনে রেখো ভাই।’ মা হচ্ছেন মমতা-নিরাপত্তা-অস্তিত্ব ও নিশ্চয়তা। বলা হয়, পৃথিবীতে যদি কেউ একেবারেই নিঃস্বার্থ থেকে থাকেন, তিনি মা। সন্তানের কোন সমস্যা হলে মায়ের মন সাড়া দেয়। সন্তানের জন্য মন সব সময় ব্যাকুল থাকে। নিজের আরাম-আয়েশের কথা ভুলে যান তিনি। মা সন্তানের অভিভাবক, পরিচালক, আদর্শ, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক এবং সবচেয়ে বড় বন্ধু। সন্তানের প্রতি মায়ের ভালবাসা সহজাত গুণ। পৃথিবীর সব ভাষায়ই মা ডাকের উচ্চারণ কাছাকাছি। আরবি, ইংরেজি, বাংলা, হিন্দি, ফার্সি, উর্দু- সব ভাষাই ‘মা’ আছে। ‘মা’ শিশুর সর্বজনীন ভাষা। মা’র চেয়ে সুমধুর ডাক পৃথিবীতে আর দ্বিতীয়টি নেই বলেই হয়তো এরকম হয়েছে। জন্মের পর শিশুর প্রথম ভাষা মা। মা উচ্চারণের সঙ্গে সঙ্গে হৃদয়ে যে আবেগ-অনুভূতি সৃষ্টি হয়, তাতে যে অনাবিল প্রশান্তি থাকে তা দ্বিতীয় কোথাও মেলে না। সন্তান পৃথিবীতে ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগে মায়ের গর্ভে তিলে তিলে বড় হয়। খাদ্যগ্রহণ করে এই মায়ের দেহ থেকেই। পেটে সন্তান বড় হতে থাকে আর মায়ের বাড়তে থাকে সন্তানের মুখ দেখার বিপুল আগ্রহ। মা বোনেন হাজারো স্বপ্ন। পেটে লাথি মেরে সন্তান ব্যথা বাড়ালেও মা সব ভুলে যান প্রত্যাশা ও মায়ায়। আর যখন জন্মকালে সবচেয়ে বিপজ্জনক, কষ্টকর মুহূর্ত অতিক্রম করেন, সন্তানের মুখ দেখার পর নিমেষেই সব দূর হয়ে যায়। সুখের হাসি হেসে বুকে টেনে নেন তার আদরের সোনা মানিককে। সেই মাকে শ্রদ্ধা ও ভালবাসা জানানোর নির্দিষ্ট কোন দিনক্ষণ নেই। একদিন মায়ের প্রতি ভালবাসা দেখিয়ে ঋণ শোধ সম্ভব না। মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা-ভালবাসা প্রতি মুহূর্তের। কাজের ফাঁকে যারা মাকে স্মরণ করতে পারেন না, দূরে থাকেন তারা আজ মাকে ভালবাসা জানাবেন। বলবেন, মা আমি তোমায় ভালবাসি। তুমিই আমার সব, আমার অস্তিত্ব। মা দিবসকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দিতে ১৮৭২ সালে জুলিয়া ওয়ার্ড ব্যাপক লেখালেখি করেন। ওই বছরই মে মাসের দ্বিতীয় রোববার নিজের মায়ের মৃত্যু বার্ষিকীতে জুলিয়া নিজে ‘মা দিবস’ পালন করেন। ১৯১৪ সালে আমেরিকায় দিবসটিকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়া হয়। এরপর থেকেই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে মা দিবসটি পালনের রেওয়াজ ছড়িয়ে পড়ে।
আন্তর্জাতিক মা দিবস উপলক্ষে বিএনপি চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া বাণী দিয়েছেন। তিনি বলেন, জন্মদাত্রী মা’কে ঘিরেই আবর্তিত হয় পরিবারের সকল কার্যক্রম। আবহমান কাল ধরেই এই অমোঘ ধারা চলে আসছে। সন্তানদের শিষ্ট ও সর্বক্ষেত্রে যোগ্য হয়ে গড়ে ওঠার পিছনে থাকে একমাত্র মায়েদের অক্লান্ত অবদান। সুমাতার সাহচর্যে গড়ে ওঠা সন্তানই সমাজ ও রাষ্ট্রের সুনাগরিক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন। রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক বিকাশ এবং অগ্রসর সমাজ বিনির্মাণের ক্ষেত্রে একমাত্র হাতিয়ারই হচ্ছে স্বশিক্ষিত মায়েদের ভূমিকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ