• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১১:২৬ অপরাহ্ন |

চিরিরবন্দরে ভাটার কালো ধোঁয়ায় ২’শ বিঘা জমির ধান চিটায় পরিণত

চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ খাদ্য শষ্যের ভান্ডার হিসাবে খ্যাত দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলায় ভাটার নির্গত বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় ২০০ বিঘা জমির ইরি বোরো ধান সম্পূর্ণ রুপে পুড়ে চিটায় পরিনত হয়েছে। এতে প্রায় ১০ হাজার মণ ধান উৎপাদন কম হবে।
উপজেলার ২২টি ভাটাই ফসলি ও জনবসতি এলাকায় নির্মিত। ফলে ভাটা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার সকল প্রকার বনজ ও ফলজ গাছের ফলন এবং উৎপাদন কমে গেছে। মানুষের নানা ধরণের রোগ-বালাই লেগে আছে। তাই এলাকাবাসি ও কৃষকদের দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ বছর তার ব্যতিক্রম হয়নি। উপজেলার সাইতাড়া মধুহাড়ি এলাকায় এ চিত্র ফুটে উঠেছে। এ এলাকায় আরএ ইটভাটার নির্গত বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় চলতি মৌসুমে প্রায় ২০০ বিঘা জমির বোরো ধান গাছ নষ্ট হয়ে সম্পূর্ণ রুপে পুড়ে চিটায় পরিনত হয়েছে গেছে।
সরজমিনে গিয়ে কৃষক আব্দুল মান্নান, নেজামদ্দিন, পকেট চন্দ্র, প্রমোদ রায়, ইসলাম চৌধুরী, জিতেন, উমর আলী, মন্টু, হামিদ ও শাহজাহান আলীর সাথে কথা বললে তারা জানান, প্রতি বছর ভাটার নির্গত বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় বোরো ধানসহ সকল প্রকার বনজ ও ফলজ গাছের ফলন এবং উৎপাদন কমে হয়। এ বছর ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি। এ সব জমি থেকে এক ছটাকা ধানও আমাদের গোলায় উঠবে না। এতে প্রায় ১০ হাজার মন ধান উৎপাদন কমে আসবে। আর্থিক ক্ষতি হবে প্রায় দেড় কোটি টাকা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার সাফিয়ার রহমান জানান, এ বছর চিরিরবন্দর উপজেলার ১৮ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে বোরে চাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ধানের পরাগায়ণ গ্রিডে ১৭ থেকে ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা প্রয়োজন পড়ে। এর বেশি কিংবা কম হলে ধানের ক্ষতি হবে। ধানের এ ক্ষতির বিষয়ে তিনি আরো জানান, ভাটার কালো ধোঁয়া প্রবাহিত হয়ে ওই এলাকার তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রির বেশি হওয়ার কারণে এ ক্ষতি হয়েছে।
অনতিবিলম্বে আরএ ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়া নির্গমন বন্ধ এবং কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দাবীসহ ভাটা বন্ধের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তার নেক দৃষ্টি কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ