• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৪৯ অপরাহ্ন |

জামায়াত সুসংগঠিত করতে জেলায় জেলায় রুকন সম্মেলন

Jamatসিসি নিউজ: দলকে নতুন করে সুসংগঠিত করতে জেলায় জেলায় রুকন সম্মেলন করছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। আগামী ৩০ মের মধ্যে সব জেলায় এ সম্মেলন সম্পন্ন করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন কেন্দ্রীয় জামায়াতের শীর্ষ নেতারা। শুক্রবার এ তথ্য জানান দলের শীর্ষ পর্যায়ের কয়েক নেতা। এদিকে রুকন সম্মেলনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ের ত্যাগী নেতাদের জেলা কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য একটি নির্দেশনা দিয়েছে সংগঠনটি।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক দলের আমির মতিউর রহমান নিজামী ও নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর চূড়ান্ত রায়কে টার্গেট করে এ সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। জনগণের দৃষ্টি ফেরাতে দলটির আটক নেতাদের মুক্তির দাবিতে দেশব্যাপী পোস্টারিং করছে তারা। গত কয়েক দিন থেকে রাতের আঁধারে রঙিন পোস্টার সাঁটিয়ে নজর কাড়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন জামায়াতের নেতাকর্মীরা। প্রায় এক কোটির বেশি পোস্টার ছাপিয়ে দেশব্যাপী পোস্টারিং করা হচ্ছে বলে দলের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। পোস্টারে দলের আমির মতিউর রহমান নিজামী, নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছবি দিয়ে তাদের মুক্তি চাওয়া হয়। পাশাপাশি মাওলানা আবদুস সোবহান, কামারুজ্জামান ও মীর কাসেম আলীর মুক্তির দাবি করা হয়।
এদিকে রুকন সম্মেলন করার জন্য গত এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে একটি প্রাক আলোচনা হয়। পরে চূড়ান্তভাবে এপ্রিল মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে সম্মেলন করার জন্য জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমাদ ও ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান এ নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশ মোতাবেক দেশের অনেক জেলায় রুকন সম্মেলন করছেন দলটির জেলা নেতারা। তবে ইতিমধ্যে প্রায় ৩০-৩৫টি জেলায় এ সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি জেলাগুলোতে আগামী ৩০ মের মধ্যে সম্মেলন শেষ করার জন্য কেন্দ্র থেকে তাগিদ দেয়া হয়। রুকন সম্মেলন ছাড়াও অনেক সাংগঠনিক জেলা ও বিভাগ রয়েছে। সেগুলোও এ নির্দেশনার মধ্যে শেষ করার জন্য বলা হয়।
সূত্র আরো জানায়, দলকে শক্তিশালী ও আটক নেতাদের মুক্তির দাবিতে রাজপথে এ কৌশল নিয়েছে জামায়াত। এমন কথাই মানবকণ্ঠকে জানিয়েছে দলটির কর্মপরিষদের এক সদস্য। তিনি বলেন, তৃণমূল থেকে দল শক্তিশালী না করলে রাজপথে আন্দোলন চাঙ্গা হয় না। জামায়াতের সাংগঠনিক গঠনতন্ত্রের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্য থেকে একজন বা একাধিক শীর্ষ নেতা এ রুকন সম্মেলনে অংশ নেয়ার রেওয়াজ থাকলেও দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে কোনো নেতাই প্রকাশ্যে অংশ নিচ্ছেন না। বেশ কয়েকটি জেলায় গোপনীয়ভাবে কেন্দ্রের কয়েক কর্মপরিষদ সদস্য অংশ নিলেও বাকি জেলাগুলোতে তারা অংশ নেবেন না। এসব রুকন সম্মেলন বেশ গোপনীয়ভাবে করা হচ্ছে বলে জানান জামায়াতের এক রুকন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, দেশব্যাপী জামায়াত নেতাদের সরকারের নির্দেশে অন্যায়ভাবে আটক করা হচ্ছে।
আমরা কোথাও বসে সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনা করলে সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হানা দিয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে। শুধু তাই নয়, মিথ্যা ও বানোয়াট অপপ্রচার চালিয়ে নাশকতার অভিযোগে মামলা দেয়া হয়। এজন্য যেখানে পরিস্থিতি অনুকূল থাকবে সেখানে প্রকাশ্যে আর যে জেলায় প্রতিকূল সেখানে গোপনীয়ভাবে সম্মেলন করার জন্য কেন্দ্রে থেকে বারবার পরামর্শ দেয়া হয়। রুকন সম্মেলনের মাধ্যমে দেশব্যাপী জামায়াত আরো সক্রিয় হয়ে সাংগঠনিক তৎপরতায় বাড়িয়ে দিচ্ছে। ফলে নেতকার্মীরা ফিরে পাচ্ছেন প্রাণচাঞ্চল্য। সংগঠিত হচ্ছে দল।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ