• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত

Eleমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এখন গ্রাহক হয়রানী, অনিয়ম আর দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। সমিতির কর্মকর্তা আর কর্মচারীদের হয়রানীর কারণে গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। এ নিয়ে সাধারণ গ্রাহকসহ বিভিন্ন কৃষক সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ ও পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হলেও কোন প্রতিকার পায়নি তারা।
দিনাজপুর সদর, বিরল, চিরিরবন্দর, বীরগঞ্জ উপজেলার পল্লী বিদ্যুতের কয়েকজন গ্রাহক ও কৃষকের সাথে আলাপ করে জানা গেছে,  এসব অফিসে গ্রাহক হয়রানী আর অনিয়ম নিত্যদিনের রুটিনে পরিণত হয়েছে। পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের কাছে নির্ধারিত সময়ে মিটারসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি সরবরাহ না করা, ব্যবহৃত ইউনিটের বেশী বিল করা, অতিরিক্ত মিটার রিডিং, কোন যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে গেলে অফিসের পরিবর্তে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তা মেরামত করা সাধারণ নিয়মে পরিণত হয়েছে।
চিরিরবন্দর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম জানান, তিনি চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে ৯৫ ইউনিট ব্যবহার করেছেন অথচ তার বিল করা হয়েছে ১৬০ ইউনিটের। এভাবে আরো অনেক গ্রাহকের ব্যবহৃত ইউনিটের চেয়ে বেশী বিল করা হয়েছে। ওই এলাকার গ্রাহক আফসার আলীসহ আরো কয়েকজন গ্রাহক জানান, চিরিরবন্দর উপজেলার গমিরাহাট হতে ফুলপুর পর্যন্ত প্রায় ২০টি বিদ্যুতের খুটি রয়েছে যেগুলি পুরাতন হয়ে গেছে। যে কোন সময় বাতাসে পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাাপারে এলাকাবাসি বার বার কর্তৃপক্ষ অবহিত করলেও কোন সাড়া দিচ্ছে না পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। গত কয়েক দিন আগে একই এলাকার একটি খুটি হতে এঙ্গেল বা খুচান পড়ে গেলে এলাকাবাসির নিকট থেকে টাকা নিয়ে এটি মেরামত করা হয়। অথচ এটি মেরামতের দায়িত্ব পল্লী বিদ্যুৎ অফিস কর্তৃপক্ষের।
বিরল উপজেলা শহরের আতিয়ার রহমান আতিক জানান, বিরল পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে টাকা দিলে কাজ হয় অন্যথায় কোন কাজ হয় না। বিদ্যুতের মিটার, ট্রান্সফরমার পরিবর্তন বা স্থাপনের জন্য টাকা জমা দেয়ার নির্ধারিত সময়ে মিটারসংযোগ দেয়া হয় না এবং ট্রান্সফরমার স্থাপন করা হয় না। তবে অতিরিক্ত টাকা গুনতে পারলে দ্রুত কাজ হয়ে যায়।
কৃষক সমিতি দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি বদিউজ্জামান বাদল জানান, বাংলাদেশের ৬৮ হাজার গ্রামের প্রাণ হচ্ছে কৃষক। অথচ এই কৃষকরা আজ সবচেয়ে বেশী অবহেলিত ও বঞ্চিত। একদিকে ফসলের লাভজনক দাম নেই, অপরদিকে পল্লী বিদ্যুতের অনিয়ম-দুর্নীতি-হয়রানীসহ প্রতিবছর বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষকরা ঋনে জর্জরিত ও সর্বশান্ত হচ্ছে। পাশাপাশি গ্রামের শ্রমজীবী ও নিম্নবিত্ত মানুষ, শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকরাও পল্লী বিদ্যুতের কালাকানুনে অতিষ্ঠ। এ অবস্থা থেকে উত্তরনে কৃষকসহ সর্বস্তরের গ্রাহকদের স্বার্থে আমরা ৯ দফা দাবীতে কর্তৃপক্ষ বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছি। কিন্তু আজ পর্যন্ত সে দাবী বাস্তবায়িত হয়নি।
৯ দফা দাবীর মধ্যে হচ্ছে কৃষি ও কৃষকের অস্তিত্ব রক্ষার্থে কৃষি উৎপাদনে স্বল্পমূল্যে বিদ্যুৎ দেয়া, রাত ১১টা হতে সকাল ৯টা পর্যন্ত সেচযন্ত্র চালুর সময়সীমা প্রত্যাহার করে বোরো মৌসুমে ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা, বিশেষ অনুমতি সাপেক্ষে আবাসিক মিটারে কৃষি কাজে পানি সরবরাহ করলে জরিমানা না করা, প্রতিমাসে মিটার ভাড়া ও সর্বনিম্ন বিল প্রথা বাতিল, চুরি বা সিস্টেম লসের কারণে ঘাটতি বিদ্যুৎ গ্রাহকের বিলের সাথে যোগ বন্ধ করা, ট্রান্সফরমার চুরি হলে তার দায়-দায়িত্ব ও ক্ষতিপূরণ গ্রাহকের পরিবর্তে কর্তৃপক্ষকে বহন করা, মিটার স্থানান্তরের জন্য নির্দিষ্ট ফি জমা দেয়ার সর্বোচ্চ এক মাসের মধ্যে মিটার ট্রান্সফারের ব্যবস্থা করা, রাষ্ট্রীয়ভাবে বিদ্যুৎ প্লান্ট তৈরী-মেরামত-নবায়ন ও সম্প্রসারণ করা এবং সকল প্রকার দূর্নীতি, অনিয়ম ও হয়রানী বন্ধ করে গতিশীল ও গ্রাহকমূখী ব্যবস্থাপনার পরিবেশ গড়ে তোলা।
এ ব্যাপারে কৃষক সমিতি, ক্ষেত মজুর সমিতি, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রসহ অন্যান্য কৃষক সংগঠন ও গ্রামবাসি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ