• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

নতুন বেতন কাঠামোয় নগদের বদলে সেবা

Gov.সিসি নিউজ: নিজের অসুস্থতার মধ্যেও সন্তানের রোগ সারাতে বেশি তৎপর থাকেন স্বল্প আয়ের মানুষ। কম বেতনের সরকারি চাকুরেদের টানাপড়েনের সংসারে এ দেশে এটাই রীতি। তাই মাসে মাত্র ৭০০ টাকার চিকিৎসা ভাতা অনেক সময়ই সবচেয়ে দামি হয়ে ওঠে স্বল্প আয়ের চাকরিজীবীদের জন্য। নতুন বেতন কাঠামোয় চিকিৎসা ভাতা নগদ না দিয়ে স্বাস্থ্য বীমা ও দুর্ঘটনা বীমার উদ্যোগ নেওয়া হলে কেবল নিজের রোগের চিকিৎসাই করাতে পারবেন সরকারি চাকরিজীবীরা। সন্তান বা পরিবারের অন্য সদস্যদের নয়। নিজের চিকিৎসার সময়ও যে বীমা দাবি সময়মতো পাওয়া যাবে, বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে তারও নিশ্চয়তা নেই।

একই অবস্থা শিক্ষা ভাতার ক্ষেত্রেও। সরকারি চাকরিজীবী দুই সন্তানের জন্য মাসে শিক্ষা ভাতা পান ৩০০ টাকা। জাতীয় চাকরি ও বেতন কমিশনের পরিকল্পনা হলো, এ ক্ষেত্রে নগদ টাকা না দিয়ে বিনা মূল্যে শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ করা। আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে এই ব্যবস্থাপনায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। একই সঙ্গে শিক্ষা উপকরণ কেনা, সরবরাহ ও বিতরণে প্রাথমিক স্কুল পর্যন্ত অনিয়ম ও দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা তো থাকছেই।

গত ৮ এপ্রিল সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে জাতীয় বেতন ও চাকরি কমিশনের চেয়ারম্যান ড. ফরাসউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘১১ থেকে ১২ লাখ সরকারি চাকুরের বেতন-ভাতা বাড়ানো হলে মূল্যস্ফীতি বাড়বে। তাই কমিশন নগদ না বাড়িয়ে অন্য কোনোভাবে সুবিধা বাড়ানোর পক্ষে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এই গভর্নর আরো বলেন, ‘চিকিৎসা ভাতার বদলে আমরা সরকারি চাকুরেদের জন্য বীমা চালুর কথা ভাবছি। তাঁদের জন্য দুর্ঘটনা বা স্বাস্থ্য বীমা চালু করা যেতে পারে। শিক্ষা ভাতার বদলে প্রয়োজনে তাঁদের সন্তানদের স্কুল-কলেজের বেতন-ভাতা পরিশোধ করে দেওয়া যেতে পারে, বই-পুস্তক কিনে দেওয়া যেতে পারে।’

ঢাকা সিটি করপোরেশনের এমন এক উদ্যোগের প্রসঙ্গ তুলে ধরে সরকারের এক আমলা বলেন, ঢাকার পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের ভাতা দেওয়ার বদলে সিদ্ধান্ত হয়েছিল তাঁদের প্রত্যেককে মাসে একটি করে কসকো সাবান সরবরাহ করা হবে। সে জন্য বাজেট বরাদ্দ করা, আলাদা সেল গঠন, স্টোর রুম স্থাপন, প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ- সবই হয়েছিল। প্রথম বছর ১২ মাসে ১২টি করে সাবান দেওয়ার কথা থাকলেও মাত্র এক মাসে একটি করে সাবান দিতে পেরেছিল সিটি করপোরেশন। পরের বছর থেকে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা আর সাবান পাননি, যদিও ওই কর্মসূচি এখনো চালু আছে। নতুন বেতন কাঠামোতেও ভাতা নগদ টাকায় না দিয়ে এর বিপরীতে বিভিন্ন উপকরণ ও সেবা দিতে চাইলে এর পরিণতিও একই রকম হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘ভাবনাটা ভালো হলেও ভাতার বদলে সেবা সরবরাহ নিশ্চিত করা খুবই কঠিন। কারণ আমাদের সে দক্ষতা নেই। তেমন প্রশাসনও নেই। রেশনিং সিস্টেম উঠে যাওয়ার পর সরকার চাল-ডাল দেওয়ার একটা উদ্যোগ নিলেও অদক্ষতা ও অব্যবস্থাপনার কারণে তা সম্ভব হয়নি। একইভাবে শিক্ষা ভাতার বদলে শিক্ষা উপকরণ দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হলে তাও কার্যকর হবে না। তেমনি চিকিৎসা ভাতার বদলে বীমা সুবিধা দেওয়া হলেও তা কাজে লাগবে না। এর চেয়ে নগদ টাকা দেওয়াই ভালো। তিনি বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য এ উদ্যোগের কথা বলা হলেও নগদ টাকার বদলে সেবা দিতে গেলে মূল্যস্ফীতি একইভাবে বাড়বে। কারণ সরকার শিক্ষা ভাতার বদলে যে খাতা-কলম সরবরাহ করবে, সেগুলোর মূল্যও সরকারকে নগদ টাকায় দিতে হবে। এতে বাজারে ঠিকই মুদ্রার সরবরাহ বাড়বে সমহারেই।

কমিশন নগদ টাকায় ভাতা দেওয়ার বদলে সেবা বাড়ানোর বিষয়টি জানানোর আগেই দুই সেট প্রশ্নপত্র তৈরি করে নতুন বেতন কাঠামো ও বিভিন্ন ভাতা কেমন হওয়া উচিত সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মতামত চেয়েছে। তাতে শিক্ষা ও চিকিৎসা ভাতার বদলে শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ বা স্বাস্থ্য বীমার উল্লেখ নেই। বর্তমান বেতন কাঠামোয় একজন সরকারি চাকরিজীবী মাসে চিকিৎসা ভাতা পান ৭০০ টাকা। নতুন কাঠামোয় এ ভাতা বাড়িয়ে দেড় হাজার বা দুই হাজার নির্ধারণের ব্যাপারে মতামত চাওয়া হয়েছে। একইভাবে বিদ্যমান কাঠামোয় দুই সন্তানের শিক্ষা ভাতা মাসে ৩০০ টাকা আছে। তা বাড়িয়ে ৮০০, ১২০০ অথবা দেড় হাজার টাকা করার বিষয়ে মতামত চাওয়া হয়েছে।

কমিশন দুটি পৃথক প্রশ্নপত্র তৈরি করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে। প্রথমে ওই প্রশ্নপত্রগুলো যথাযথভাবে পূরণ করে ১৫ মের মধ্যে কমিশনের ঠিকানায় পাঠাতে বলা হয়েছিল। পরে প্রশ্নমালা দুটি কমিশনের নিজস্ব ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয়েছে। ৪ মে এক তথ্য বিবরণীতে জাতীয় বেতন স্কেলের আওতাভুক্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনলাইনে প্রশ্নমালা পূরণ করে তা ৩০ মের মধ্যে বেতন ও চাকরি কমিশন, বিসিএস প্রশাসন একাডেমি, শাহবাগ, ঢাকার ঠিকানায় পাঠাতে বলা হয়েছে।

কমিশনের তৈরি করা প্রশ্নপত্রের একটিতে মতামত চাওয়া হয়েছে জাতীয় বেতন স্কেলের আওতাভুক্ত চাকরিজীবীদের কাছ থেকে। তাতে ২৬টি প্রশ্ন রয়েছে, যার বেশির ভাগই এমসিকিউ পদ্ধতির। এতে চাকরিজীবীদের গ্রেড ২০টি থেকে বাড়ানো উচিত কি না, বর্তমান বাজারদর অনুযায়ী ছয় সদস্যের পরিবারের সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ মূল বেতন কত হওয়া উচিত সে বিষয়ে মতামত চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ইনক্রিমেন্ট নির্ধারণ পদ্ধতি, সরকারি চাকরিতে মেধাবীদের নিয়োগে আকৃষ্ট করার উপায়, মূল বেতনের তুলনায় বাড়িভাড়া কত শতাংশ হওয়া উচিত, ভোক্তা মূল্যসূচক অনুযায়ী জীবনযাত্রার ব্যয় বিবেচনা করে পেনশনভোগীদের পেনশন বাড়ানো উচিত কি না, বিদ্যমান গৃহনির্মাণ ঋণ ও গাড়ি কেনার ঋণ সুবিধা পর্যাপ্ত কি না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

প্রশ্নপত্রে সরকারি চাকরিতে পদোন্নতির জন্য আইনানুগ নীতিমালা থাকা প্রয়োজন কি না, বিভিন্ন দপ্তর ও ক্যাডারভিত্তিক চাকরিতে বেতন ও অন্যান্য সুবিধার ক্ষেত্রে বিদ্যমান বৈষম্য দূর করা উচিত কি না সে সম্পর্কে মতামত চাওয়া হয়েছে। বিদ্যমান বিধান অনুযায়ী, স্বেচ্ছায় অবসরে যাওয়ার জন্য পূর্ণ পেনশন চাকরির বয়স ২৫ বছর। এটা কমিয়ে ১৮, ২০ বা ২২ বছর করা যায় কি না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

আরেকটি প্রশ্নমালা তৈরি করা হয়েছে সরকারি, আধাসরকারি, স্বশাসিত প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সংস্থার জনবলের মতামত নেওয়ার জন্য। তাতে ১৭টি প্রশ্ন রয়েছে। এতে কোনো কোনো ক্ষেত্রে অপর্যাপ্ত বেতন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অসৎ উপায় অবলম্বনে উৎসাহিত করে কি না, বেতন বাড়ানো ছাড়া আর কী কী উপায়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সততা বাড়ানো যায় সে বিষয়ে জানতে চেয়েছে কমিশন।

উৎসঃ   কালের কন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ