• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ফোকাসের আড়ালে ইয়াবা সম্রাট ইয়াহিয়া

111সিসি নিউজ: সরকারের ইয়াবা বিরোধী কঠোর অভিযান ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের নতুন তালিকার আড়ালেই রয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় মাফিয়া ও আন্তর্জাতিক মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহীমের অন্যতম সহযোগী টেকনাফের আনিসুর রহমান ইয়াহিয়া।

ইয়াবা সম্রাট হিসেবে খ্যাত টেকনাফ-উখিয়ার সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির প্রতিদ্বন্দ্বী ইয়াবা সিন্ডিকেট পরিচালনা করেন তিনি।

আন্তর্জাতিক চোরাচালানে বাংলাদেশের গডফাদার খ্যাত ইয়াহিয়া ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার অন্যতম সন্দেহভাজন আসামি ছিলেন। কিন্ত নিজের ক্ষমতার জন্য সব সময় সরকারি দলের কাছাকাছি থাকতে পটু চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের বহুল আলোচিত-সমালোচিত মাফিয়া ডন ইয়াহিয়া রাজনৈতিক প্রভাবের মাধ্যমে সিআইডির চূড়ান্ত প্রতিবেদন থেকে নিজের নাম বাদ দিতে সক্ষম হন। এ মামলায় সংশ্লিষ্টদের অনেকেরই অভিযোগ, অস্ত্র খালাসের সময় ঘটনাস্থলেই ছিলেন ইয়াহিয়া।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, মাফিয়া গডফাদার শিল্পপতি আনিসুর রহমান ইয়াহিয়া রোহিঙ্গা বংশোদ্ভূত। দেশের বিভিন্ন স্থানে রয়েছে তার শক্তিশালী নেটওর্য়াক। সরকারের উচ্চ পর্যায়েও রয়েছে ইয়াহিয়ার হট কানেকশন। গত দুই যুগের ইতিহাসে উখিয়া-টেকনাফ এলাকায় চোরাকারবারের ইতিহাসে তিনিই সবচেয়ে প্রভাবশালী।

তার অনেক নিকট-আত্মীয় কক্সব‍াজারের আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা।

AK47ইয়াহিয়ার নিকট-আত্মীয় ও কক্সবাজার আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক শাহ আলম প্রকাশ রাজা শাহ আলমও জন্মসূত্রে মূলত মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক। এক এগারোর পট পরিবর্তনের সময় পালিয়ে ছিলেন তিনি। রোহিঙ্গা হওয়ার কারণে ওই সময় তাকে ভোটার তারিকায় অর্ন্তভুক্ত করা হয়নি। সরকার পরিবর্তনের পর ২০০৯ সালে উচ্চ আদালতের নির্দেশে তাকে ভোটার তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করা হয়।

বাংলাদেশকে গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল হিসেবে পরিচিত করার যে পরিকল্পনা তার মূল উদ্যোক্তাও ইয়াহিয়া পরিবার। স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত ও উপকূল দিয়ে যত অস্ত্র, মাদকসহ বিভিন্ন পণ্যের বড় বড় চোরাচালান হয়েছে সবকিছুই ছিল তাদের নিয়ন্ত্রণে।

প্রধানত অস্ত্র, সার ও সিগারেট চোরাচালানই ইয়াহিয়ার নেতৃত্বাধীন চক্রের প্রধান কাজ। গত কয়েক বছর ধরেই ইয়াবা সিন্ডকেটে জড়িয়ে পড়ে ইয়াহিয়া।

টেকনাফের এমপি বদির সঙ্গে বৈরি সম্পর্ক থাকলেও ইয়াবা চোরাচালান ব্যবসার জন্য ঠিকই সখ্য গড়ে তোলেন ইয়াহিয়া।

এমনকি রাজনীতিতেও নাম লেখান এই ইয়াবা সম্রাট। ১০ম সংসদ নির্বাচনে তার ছেলে তাহা ইয়াহিয়াকে জাতীয় পার্টির টিকেটে নির্বাচন করান। হরেক অবৈধ ব্যবসা করে কাড়িকাড়ি টাকার মালিক বনে যাওয়া চোরাকারবারীর রাজনৈতিক আগমনে উদ্বিগ্ন এখন কক্সবাজারের সাধারণ মানুষও।

চতুর চোরাকারবারি আনিসুর রহমান ইয়াহিয়া সম্প্রতি কক্সবাজার থেকে প্রকাশিত দৈনিক আজকের দেশ–বিদেশ পত্রিকা কিনে নিয়ে সম্পাদক হিসেবে মিডিয়া জগতেও নাম লেখান। দান-খয়রাত করে ১৯৯৬ সাল থেকে উখিয়া-টেকনাফ এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন তিনি। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে তিনি বিএনপি’র মনোনয়ন পেলেও লাভ করেছিলেন ইয়াহিয়া। তবে চোরাচালানের অভিযাগ থাকায় বিএনপি পরে তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেয়।

নিজের কুর্কীতি আড়াল করতেই ইয়াহিয়া বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলে আশ্রয়ের আশায় তৎপরতা চালিয়েছেন। এ কারণে তিনি কখনো নিজেকে তারেক রহমানের বন্ধু, আবার কখনো বিএনপি নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপির টিকেটে নির্বাচন করতে ব্যর্থ হওয়ায় সর্বশেষ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুত্র তাহা ইয়াহিয়াকে জাতীয় পার্টির টিকেটে নির্বাচনে দাঁড় করিয়ে দেন ইয়াহিয়া।

চোরাচালান করে দেশ-বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন ইয়াহিয়া চক্রের সদস্যরা। চট্টগ্রামের দু’টি হোটেলকে ঘাটি করে মিয়ানমার-বাংলাদেশ উপকূলে দাউদ ইব্রাহীমের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করত চক্রটি। তবে ১/১১র পর জরুরি অবস্থায় যৌথ বাহিনীর অভিযান আতংকে দিকবিদিক লাপাত্তাও ছিল তারা। ওই সময় ইয়াহিয়ার বেশ কয়েকটি ব্যাংক একাউন্ট জব্দ করা হয়। আন্ডারওয়ার্ল্ডের মহারথি ইয়াহিয়াকে তৎকালীন সময়ে ৠযাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা ও টাক্সফোর্স সদস্যরা হন্য হয়ে খুঁজলেও তিনি ছিলেন অধরা। তার জন্য তখন পৃথক পৃথক ফাইল খুলেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০০৯ সালের মার্চে দেশের শীর্ষ চোরাকারবারী মাফিয়া ডন ইয়াহিয়াকে আটক করে পুলিশ। চট্টগ্রামের আদালতে গোপনে একটি মামলার হাজিরা দিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন ইযাহিয়া। পরে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক রাজা শাহ আলমের সহযোগিতায় সেই সময়ের সরকারের উচ্চ পর্যায়ের হস্তক্ষেপে ইয়াহিয়া ছাড়া পান। কথিত আছে, সরকারের অনেক শীর্ষ নেতার সঙ্গে ইয়াহিয়ার গোপন যোগাযোগ রযেছে। কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের বিশেষ দু’টি হোটেলে অবস্থান করে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের অনেক মন্ত্রী ও নেতার সঙ্গে গোপন বৈঠকও করেন ইয়াহিয়া।

Goldঅনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, জন্মসূত্রে রোহিঙ্গা ইয়াহিয়া তার পূর্বসুরীদের সঙ্গে ৫০ বছর আগে সপরিবারে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসেন। যুবক বয়সে ইয়াহিয়া জড়িয়ে পড়েন সীমান্ত চোরচালানে। কালো বাজারে সিগারেট আমদানি দিয়ে শুরু হয় ইয়াহিয়ার অন্ধকার জগতে পথ চলা। তবে তার বিশাল সম্পত্তি গড়ার পেছনে মূল ভিত্তি ছিল মায়ানমার। চোরাই পথে বিভিন্ন ধরনের বার্মিজ পণ্য এনে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছেন তিনি। দেশের সার পাচার চক্রে তিনি ছিলেন অদ্বিতীয়। পরে সময়ের ব্যবধানে ইয়াহিয়া জড়িয়ে পড়েন সোনা, অস্ত্র আর ইয়াবা চোরাচালানে।

মূলতঃ আন্তর্জাতিক মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের সঙ্গে সম্পর্ক গড়েই চোরাচালানীদের শীর্ষে উঠে আসেন ইয়াহিয়া। এরপর থেকে দেশের সব মাফিয়া কর্মকাণ্ডের মধ্যমণিতে পরিণত হন তিনি। দাউদের পরিকল্পনার অন্যতম বাস্তবায়নকারী হিসেবে কাজ করেন ইয়াহিয়া।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগরীর অভিজাত এলাকা খুলশির ১ নং রোডের একেবারে শেষে দৃষ্টিনন্দন বাড়িটি ইয়াহিয়ার। খুলশিতেই তার আরো একাধিক ভবন রয়েছে। এছাড়া ঢাকা, কক্সবাজার, টেকনাফ, উখিয়া টিভি রিলে স্টেশনের পূর্ব পাশে বিশাল শাহপরী গার্ডেন এবং শাহপরীর দ্বীপ, সেন্টমার্টিন, মিয়ানমার, সিঙ্গাপুর ও দুবাইতে তার আরো অনেক বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সূত্র জানায়, এক এগারোর আগ পর্যন্ত ইয়াহিয়া বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ১৮২ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। বিশাল এই ঋণ পরিশোধ না করে দীর্ঘদিন ধরে লাপাত্তা ছিলেন তিনি।

ক্ষমতার কাছাকাছি থাকা ও গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ
নিজেদের সব কুকীর্তি ও চোরাচালান নির্বিঘ্নে চালিয়ে যেতে যখন যে সরকার ক্ষমতায় থাকে, সে সরকারের ক্ষমতার স্বাদ ও গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের মতো দুর্দান্ত কৌশলী ইয়াহিয়া ও তার পরিবার। এ কারণে কক্সবাজারে তিনি রাতারাতি কিনে নেন দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ নামক একটি পত্রিকা। ফলে কক্সবাজারের গণমাধ্যম ইতিহাসে তার নাম নিবন্ধিত হওয়ায় স্থানীয় সহকর্মী সাংবাদিকদের সহমর্মিতাও কম পাননি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চোরাকারবারি ইয়াহিয়া সাংবাদিকদের সঙ্গে নিজের সম্পর্ক গাঢ় করতে স্থানীয় কিছু সাংবাদিককে চড়া বেতন ও পদবি দিয়ে নিজের পত্রিকায় কর্মসংস্থান করে দেন। ফলশ্রুতিতে সাংবাদিকদের মধ্যে তার নিজস্ব একটি বাহিনী গড়ে ওঠায় অন্য সাংবাদিকরা ইয়াহিয়াকে কখনো ঘাটায় না।

অভিযোগ উঠেছে, ইয়াহিয়ার বিরুদ্ধে কেউ টু-শব্দ করলে তার মালিকানাধীন দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ পত্রিকা দিয়ে তিনি তাকে (প্রতিবাদকারীকে) শায়েস্তা করে দেন। শুধু তাই নয়, ব্যক্তিগত জীবনে প্রচুর অর্থবিত্তের মালিক হওয়ায় ইয়াহিয়া নাকি প্রতিপক্ষ কাউকে সহ্য করতে পারেন না।

চোরাচালানের জন্য রাজনৈতিক ঢাল
১৯৯১ সালে বিএনপি সরকার গঠনের পর ইয়াহিয়ার ভাই শফিকুর রহমান সোনাদিয়া দ্বীপ দিয়ে ১০ মণ সোনার চালান আনছেন বলে খবর পায় পুলিশ। এ খবরে অভিযানে নামেন কক্সবাজার সদর থানার ওসি আজিজুর রহমান। এ সময় তিনি উদ্ধার করেন সাড়ে ৪ মণ সোনা। যেগুলো পরবর্তীতে সরকারের কাছে জমা দেয়া হয়।

সোনা ধরা পড়ার পর মাফিয়া ইয়াহিয়ার পরিবার রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় চোরাচালান করার পরিকল্পনা নেন। যেকোন মূল্যে ১৯৯৬ এর নির্বাচনে উখিয়া-টেকনাফ আসন থেকে ইয়াহিয়া নিজেই জোট প্রার্থী হওয়ার জন্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর শরনাপন্ন হন। কিন্তু এই আসনে শাহাজাহান চৌধুরীর আধিপত্যের কারণে ইয়াহিয়ার পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়।

এক/এগারোর পট পরিবর্তনের পর তার নিকট আত্মীয় কক্সবজারের আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক শাহ আলম প্রকাশ রাজা শাহ আলমকে ব্যবহার করেন ইয়াহিয়া। কক্সবাজারের হোটেল-মিডিয়ার মালিক রোহিঙ্গা বংশোদ্ভূত রাজা শাহা আলমের হোটেলে বসেই চলে ইয়াহিয়ার মাফিয়া কার্যক্রম। সরকার দলীয় মন্ত্রী ও নেতারা এ হোটেলে বসেই ইয়াহিয়ার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেন।

অস্ত্রপাচার চক্র ও রুট
yabaদেশের অস্ত্র পাচারে ইয়াহিয়ার সম্পৃক্ততায় রয়েছে ৪ সদস্যের একটি সংঘবদ্ধ চক্র। তারা সবাই বাংলাদেশে দাউদ ইব্রাহিমের সহযোগী হিসেবে কাজ করেন। এরা হলেন- চট্টগ্রামের বহুল আলোচিত অস্ত্রপাচারকারী শফিকুর রহমান, আনিসুর রহমান ইয়াহিয়া, টেকনাফের সাবরাং এলাকার হামিদুর রহমান এবং নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা চেয়ারম্যান ও রামুর বৌদ্ধ মন্দিরে হামলার প্রধান আসামি তাফায়েল আহম্মদ। এছাড়া অস্ত্র চোরাচালানে এলাকা ভিত্তিক আরো ক’জন সদস্য রয়েছে তাদের।

সূত্র জানায়, ওই চক্র বিদেশ থেকে অস্ত্র আনার রুট হিসেবে ব্যবহার করে সাগর পথ। পরে এসব অস্ত্র দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে পৌঁছানো হয়। অস্ত্রগুলো শুধু দেশে নয়, বিদেশে পাচারের ক্ষেত্রেও তারা এজেন্ট হিসেবে কাজ করেন।

সূত্র জানায়, এরশাদ সরকারের আমলে কক্সবাজারকে চোরাচালানের তীর্থস্থান হিসেবে গড়ে তোলার অন্যতম নায়কই হচ্ছেন এই ইয়াহিয়া। সেজন্য দোর্দণ্ড প্রতাপে অবাধে চোরাচালান চালিয়ে যান তিনি। যখন যে সরকার ক্ষমতায় থাকে তখন সে সরকারে ইয়াহিয়ার ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা বসে থাকায় তাকে কেউ ঘাটানোর চেষ্টা করেননি এখন পর্যন্ত।

সর্বশেষ জোট সরকার আমলে হাওয়া ভবনের কর্তাব্যক্তির আশ্রয়-প্রশ্রয়ে ছিলেন তিনি। ওই সময় তিনি নিজেকে তারেক রহমানের বন্ধু পরিচয় দিতেন।

স্বর্ণ ও সিগারেট চোরাচালান সিন্ডিকেট
চোরাচালানিদের নিয়ে স্বর্ণ ও সিগারেট চোলাচালানের একটি সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন ইয়াহিয়া। তারা হলেন- হামিদুর রহমান, শিতল বাবু প্রকাশ এন.কে দাশ, গিরি বাবু (এক সময় কুষ্টিয়া থেকে আটক হয়ে জেল খেটেছেন), আনোয়ার, মোহাম্মদ মোজাহের। এই সিন্ডিকেট সমুদ্র পথে স্বর্ণ ও বিদেশি সিগারেট এনে চট্টগ্রামের আনোয়ারার গহিরা এলাকা দিয়ে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতো।

ইয়াবা ও সার পাচার সিন্ডিকেট
ইয়াবা ও সার পাচারে ইয়াহিয়ার রয়েছে বড় সিন্ডিকেট। টেকনাফের আলোচিত রশিদ খুলু, হামিদুর রহমান, টেকনাফের জামাল প্রকাশ কালা জামাল, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আলী আহম্মদ, হাবিবুর রহমান, আবুল মঞ্জুর রয়েছেন এই সিন্ডিকেটে।

বিদেশে ইয়াহিয়ার যত সম্পদ ও ব্যবসা
শুধু বাংলাদেশে নয়-বিদেশেও প্রাচুর্যের পাহাড় গড়েছেন ইয়াহিয়া। বিশেষ করে দুবাই, সিঙ্গাপুর ও মায়ানমারে রয়েছে তার ব্যবসা-বাণিজ্য। দেশ থেকে অবৈধভাবে অর্থ পাচার করে বিদেশে বাড়ি-গাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন তিনি। তার সম্পত্তির মধ্যে দুবাইয়ে আলিশান একটি বাংলো, একটি বিশাল এপার্টমেন্ট ও হুন্ডি ব্যবসা রয়েছে।

বিএনপি’র আলোচিত ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনসহ আরো দু’জন বিএনপি নেতার এসব সম্পত্তিতে অংশিদারিত্ব আছে বলে কথিত আছে। মিয়ানমারে হুন্ডা ও পেডরোলো পাম্পের এজেন্টসহ ইয়াহিয়ার নানা ব্যবসা আছে। এছাড়া সিঙ্গাপুরেও তার এপার্টমেন্ট ও ব্যবসায়িক অফিস আছে।

দেশে ইয়াহিয়ার ব্যবসা
দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ইয়াহিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- চট্টগ্রাম নগরীর নাসিরাবাদ এন. রহমানিয়া বনস্পতি অ্যান্ড ভেজিটেবল ওয়েল প্রাইভেট লিমিটেড, শাহপরি ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রাইভেট লিমিটেড, সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, শাহপরী ফিশিং লিমিটেড, শাহপরী হোল্ডিং, শাহপরী ইয়ার সার্ভিস, নবি ফুড ময়দা, নাসিরাবাদে কোমল পানীয় কারখানা, হোটেল ইউনাইটেড, জাহাজকাটা ইয়ার্ড-২, একটি ঔষুধ কারখানা, সার্জিল স্টিল ইত্যাদি।

উৎসঃ   বাংলানিউজ২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ