• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:২৬ অপরাহ্ন |

যৌতুকের দাবী পূরণ করতে না পারায়—

Kishorgonj News Pix_10.05.14সিএসএম তপন, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) : নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের মিয়া পাড়া গ্রামের আতাউর রহমানের কন্যা লিয়া আাক্তার আদুরীর বিয়ে করা হল না। চেয়ারম্যান ও মাতব্বরের মানসিক চাপ ও বিভিন্ন ভয়-ভীতিতে পরাজিত এক সৈনিকের মত নিজের রাইফেলের বায়োনট দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করলেন তার বুকের মধ্যে লালন করা দীর্ঘদিনের ভালোবাসাকে।
আদরীর আক্তার জানায়, তার প্রেমিকের যৌতুকের ৩ লাখ টাকা দাবী পুরুন করতে না পারায় ১লাখ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিয়ের দাবী থেকে অব্যাহতি দিতে বাধ্য হলেন প্রেমিককে।
জানা গেছে, মাগুড়া দোলাপাড়া গ্রামের সেনা বাহিনীর সদস্য জয়নাল হোসেনের লোলুপ দৃষ্টি পরে পার্শ¦বর্তী মিয়াপাড়া গ্রামের আতাউর রহমানের সুন্দরী কন্যা লিয়া আক্তার আদুরীর উপর। প্রথমে প্রেমের প্রস্তাবে কাজ না হলে পরে বিয়ে করার প্রলোভন দিয়ে লুটিয়ে নেয় তার সবকিছু। কথা ছিল এবারের ছুটিতে বাড়িতে আসলে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ করবে আদুরীকে। কিন্তু প্রতারক প্রেমিক জয়নাল বাড়িতে এসে চুপেচুপে বিয়ে করার জন্য মেয়ে খুজতে থাকে। আদরী জয়নালের মনোভাব বুঝতে পেরে গত ৬ মে বিয়ের দাবীতে আশ্রয় নেয় প্রেমিক জয়নালের বাড়ীতে। শুরু করে অনশন। চলে ৯ মে পর্যন্ত। আদরী বলেন, গত ৯ মে রাতে এক শালিশি বৈঠকে চেয়ারম্যান মোজাহার হোসেন দুলাল ও মাতব্বর আইয়ুব আলী সরকার তার বাবার কাছ থেকে যৌতুকের ৩ লাখ নিয়ে আসতে বলে। যৌতুকের ৩ লাখ টাকা দিতে পারলে জয়নালকে স্বামী হিসেবে পাবে। আর দিতে না পারলে জয়নালের কাছ থেকে ১লাখ ৮০হাজার টাকা নিয়ে বিয়ে করার দাবী ছেড়ে দিতে হবে। আদুরীর বাবা আতাউর রহমান জানান,আমার স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে লম্পট জয়নাল ফুসলিয়ে বিয়ে করার কথা বলে সর্বনাশ করেছে। এই মেয়েকে আমি কোথায় বিয়ে দিব। চেয়ারম্যান ও মাতব্বর আমার কাছ থেকে জয়নালের হয়ে যৌতুকের ৩লাখ টাকা দাবী করে। কিন্তু আমি গরীব একজন নছিমন চালক এত টাকা আমি কোথায় পাব। আদরীর মামা মোজাম্মেল হক,ছাত্রলীগ নেতা মেজবাউজ্জামান ও কাওছার হামিদ বলেন,চেয়ারম্যান ও মাতব্বর সেনা বাহিনীর সদস্য জয়নালের  কাছ থেকে ২লাখ ২০হাজার টাকা নিয়ে মেয়ের বাবাকে ১লাখ ৮০হাজার টাকা দিয়ে ৪০ হাজার টাকা আতœসাৎ করে। তবে চেয়ারম্যান মোজাহার হোসেন দুলাল ও মাতব্বর আইয়ুব আলী সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,আমরা ছেলের কাছ থেকে যে পরিমান টাকা নিয়েছি তা মেয়ের বাবাকে সবটাকা বুঝে দিয়েছি।
এব্যাপারে থানা অফিসার ইনচার্জ শাহ আলমের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এরকম ঘটনা এই উপজেলায় নিত্য নৈম্যন্তিক ব্যাপার। এব্যাপারে থানায় কোন লিখিত অভিযোগ করা হয়নি। চেয়ারম্যান যা করেছে তা কতটুকু সঠিক তাহা আমার বোথগম্য নয়। সাথে ছবি আছে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ