• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:১৬ পূর্বাহ্ন |

সংবিধান কাদছে, সংবিধান রক্তাত্ত: এলিনা খান

Alina Khanঢাকা: বাংলাদেশের সংবিধান এখন কাঁদছে। সংবিধান এখন রক্তাত্ত বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী এলিনা খান। শনিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘মৌলিক অধিকার সংরক্ষণ কমিটি’ আয়োজিত ‘গুম, খুনঃ আতঙ্কিত বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, সংবিধানে নাগরিকের মৌলিক অধিকার গুলো নিশ্চিত করার কথা থাকলেও রাষ্ট্র তা প্রধান করতে ব্যর্থ হচ্ছে। স্বাধীনভাবে চলাফেরা ও মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে না পারায় সংবিধান আজ কাঁদছে। সংবিধান খুব কষ্টে আছে। তিনি আরো বলেন, সংবিধান একটি বই কিন্তু এটাকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য শুধু আমাদের সমালোচনা করলেই চলবে না। যা করার সব কিছুই করতে হবে। এখনই সময় আমাদের জেগে উঠতে হবে। এর জন্য শুধু সুশীল সমাজকে কাজ করলেই চলবে না। পাশাপশি রাজনৈতিক দলগুলোকেও এগিয়ে আসতে হবে।

সারা দেশ একটি সামাজিক ‘প্রমার’ মধ্যে চলছে উল্লেখ করে এলিনা খান বলেন, অনেক আগে থেকে আমরা গুম, অপহরণ দেখছি। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে এটা অনেকগুণ বেড়ে গেছে। এখন আমরা এত আতঙ্কে আছি যে আমাদের কোন আপনজন বাহিরে গেলে কিছুক্ষণ পর পর টেলিফোনে খবর নেওয়া প্রয়োজন হয়। সে ঠিক আছে নাকি অপহরণ হয়েছে সেটা নিশ্চিত হতে।

নারায়নগঞ্জের ৭জন অপরণের পর হত্যাকান্ডের ঘটনায় সন্দেহভাজ তিন র‌্যাব সদস্যকে কেন অব্যহতি দেওয়া হয়েছে প্রশ্ন তুলে এই মানবাধিকার কর্মী বলেন, কোন আর্মি হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকলে তার বিচার আর্মি কোর্ট মার্শাল আইনে হবে না । তার বিচার হবে সিভিল আইনে আদালতে। তারা অবশ্যই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত আছে। তাদের নামে মামলা করে বিচার করা হলে আগামীতে অন্যেরাও এই ধরণের ঘটনা থেকে বিরত থাকবে।

তিনি হাইকোর্টোর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন, ১৪ই মের মধ্যে নারায়ণগঞ্জের ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। কোর্টের কাথে আবেদন রইল এই তদন্ত প্রতিবেদন যেন মিডিয়ার মাধ্যমে জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়। দোষীদের যেন মিডিয়ার মাধ্যমে ইন্টারভিউ নেওয়ার সুযোগ থাকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রফেসর ফেরদাউস হোসেন বলেন, যে রাষ্ট্র জনগণের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ সেই রাষ্ট্রকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বললে হয়তো পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি আসবে । কিন্তু বাংলাদেশ যে তার কার্যথকারীতা আস্তে আস্তে হারিয়ে ফেলছে সেটায় কোন সন্দেহ নেই। আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছিলাম গণতন্ত্র পতিষ্ঠার জন্য রাষ্ট্র আমাদের উপর নিপীড়ন করবে এই জন্য আমরা স্বাধীনতা অর্জন করিনি। এখন রাষ্ট্রযন্ত্র মানুষের কাছে ভয়াবহ যন্ত্রে পরিণত হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মাহবুব উল্ল্যাহ বলেন, নগরীকের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্যসহ সকল মৌলিক অধিকার বাদ দেন।অন্তত আপনার প্রাণ কেউ কেড়ে নিতে পারবে না এই অধিকার সবাই চান।চান বলেই অনেক ঝুকি নিয়ে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। আমরা আবার ৭৪/৭৫ এ ফিরে গেছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, সাংবাদিক নির্মল সেন একটি সম্পাদকীয় লিখেছিলেন- ‘স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই’ সেই লেখা পড়লে মনে হবে আমরা ২০১৪ সালে আছি। কিন্তু সেটা লেখা হয়েছিল ১৯৭৪ সালে।

নিজউ টুডের সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন বলেন, আজ মানুষের জীবনের কোন নিরাপত্তা নেই। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা নেই। আইনের রক্ষকদের কাছে গিয়ে অভিযোগ করতে ভয় পায় সেখানে গিয়ে সহায়তা পাবে না এই ভয়ে।

সংগঠনের আহ্বায়ক সাংবাদিক মাহফুজ উল্ল্যাহর সভাপতিত্বে সেমিনারে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধা দলের উপদেষ্টা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব ব্যারিষ্টার রুমিন ফারহান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ