• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সৈয়দপুরে কলেজ ছাত্রী অপহরণ!

opohoronনীলফামারী প্রতিনিধি: জেলার সৈয়দপুর উপজেলা থেকে মুন্নী (ছদ্মনাম) নামের এক কলেজ ছাত্রী অপহরণ হয়েছে। এ ঘটনায় অপহৃতার ভাই মো: জামিল নীলফামারী আদালতে তিনজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছে। অপহরণের ৮দিন অতিবাহিত হলেও অপহৃত ওই কলেজ ছাত্রীকে এখনও উদ্ধার হয়নি বলে মেয়ের পরিবারের জানিয়েছে।

মামলা সূত্র মতে, সৈয়দপুর উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের ব্রম্মতল গ্রামের মৃত আবু বক্কর সিদ্দিকের ষোড়শী কন্যা খালিশা বেলপুকুর কলেজের এইচএসসি মানবিক বিভাগের ছাত্রী মুন্নী গত ২ মে রাতে অপহরণ হয়। ওই সূত্রটি জানায়, পাশের খালিশা বেলপুকুর গ্রামের সেকেন্দার আলীর পুত্র কারমাইকেল কলেজের অনার্সের ছাত্র আলমগীর হোসেন (১৯) প্রেমের অভিনয় করে ফুসলাইয়া মুন্নীকে ঘরের বাহিরে আনে এবং পরে মুন্নীকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মুন্নীর ভাই গত ৬ মে নীলফামারী আদালতে অপহরণকারী আলমগীর হোসেন এবং ঘটনার বিষয় জেনে তা গোপন ও অশোভন আচরণ করার দায়ে তার বাবা সেকেন্দার আলী ও মা জাহানারা বেগমকে আসামী করে মামলা রুজু করেন।

এ ব্যাপারে আলমগীরের বাবা সেকেন্দার আলী জানান, আমাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি মিথ্যা ও সাজানো অপহরণ মামলা করা হয়েছে। মেয়েটি অপহরণ হয়নি। প্রেমের দাবি নিয়ে সে এখনও অবস্থান করছে, যা সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ও সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানকে অবগত করা হয়েছে।

অপহরনের এ ঘটনার বিষয়ে কথা হয় সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সহিদার রহমানের সাথে। তিনি বলেন, মেয়েটি বিয়ের দাবিতে প্রেমিক আলমগীরের বাড়িতে অবস্থান করার খবর পেয়ে থানা থেকে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী, প্রেমিক-প্রেমিকার পরিবার ও এলাকাবাসী বিষয়টি স্থানীয়ভাবে সমাধান করার আশ্বাস দেয়ায় পুলিশ ফিরে আসে। শনিবার রাতে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান,  মেয়ের পরিবারের পক্ষ্য থেকে আদালতে দায়ের করার কোন মামলার কাগজপত্রাদি এখনও হাতে পাননি। তবে ছেলের পরিবারের পক্ষ্য থেকে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে বলে সিসি নিউজকে তিনি নিশ্চিত করেন।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ