• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন |

স্থানীয় নির্বাচনে সিলের বদলে টিক চিহ্ন

ECসিসি নিউজ: বাতিল ভোটের হার কমাতে স্থানীয় নির্বাচনে সিলের পরিবর্তে মার্কার পেন (মোটা দাগের লেখা হয় এমন কলম) দিয়ে টিহ্ন দেওয়ার প্রচলন করতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সাম্প্রতিককালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বাতিল ভোটের হার ক্রমান্বয়ে বেড়ে যাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
ইসি সূত্র জানিয়েছে, ২০১৩ সালে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন, কিশোরগঞ্জ-৪ উপনির্বাচন ও চার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বাতিল ভোটের হার বেড়ে যায়। সে বছর ৬ জুলাই অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মোট ১৮ হাজার ৪৬ ভোট বাতিল হয়।
কিশোরগঞ্জ-৪ উপনির্বাচনে বাতিল হয় প্রায় এক হাজার ২০০ ভোট। আবার চার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও ১০ হাজারের বেশি ভোট বাতিল করা হয়। ফলে সে বছরই ভোটদান পদ্ধতিতে পরিবর্তন এনে সিল দেওয়ার পরিবর্তে কলম দিয়ে পছন্দের প্রার্থীর প্রতীকের পাশে টিক চিহ্ন দেওয়ার প্রচলন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
তখন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেছিলেন, ‘নির্বাচনগুলোতে বাতিল ভোটের হার বেড়েই চলেছে। তাই কমিশন সিল ব্যবহার থেকে সরে আসার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভবিষ্যতে ছোট ছোট কিছু নির্বাচন যেমন পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদের ক্ষেত্রে কলম ব্যবহার করা হবে। তারপর যদি সাফল্য আসে তবে জাতীয় নির্বাচনেও সিলের পরিবর্তে কলম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’
গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচনেও বাতিল ভোটের হার নবম সংসদ নির্বাচনের চেয়ে বেড়ে যায়। এরপর ফেব্রুয়ারি, মার্চ, এপ্রিল জুড়ে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাতিল ভোটের হার সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে যায়। ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, প্রথম দফায় ৪ লাখ ৫১ হাজার ৩৮৩ ভোট, দ্বিতীয় দফায় ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৫৭৫ ভোট, তৃতীয় দফায় ৩ লাখ ৬৯ হাজার ৮৫৫ ভোট, চতুর্থ দফায় ৩ লাখ ২ হাজার ৮২৮ ভোট এবং পঞ্চম দফায় ৩ লাখ ১৭ হাজার ১১২টি ভোট বাতিল হয়।
ইসির উপসচিব মিহির সারওয়ার মোর্শেদ এ বিষয়ে বলেছেন, বাতিল ভোটের হার দিন দিন বেড়ে যাওয়ার কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। মূলত অজ্ঞতার কারণেই ভোট বেশি নষ্ট হয়। আর এটি বেশি হয় গ্রাম অঞ্চলের দিকে। বিশেষ করে অশিক্ষিত ভোটাররা নির্দিষ্ট প্রতীকের পাশে সিল মারতে এবং ব্যালট পেপার ভাঁজ করতে ভুল করেন। তবে সিল ভুল জায়গায় পড়ার চেয়ে ব্যালট পেপার ভাঁজ করতে না পারায় বাতিল ভোটের সংখ্যা বেশি। কারণ ঠিক মতো ব্যালট ভাঁজ না করলে অন্য প্রতীকে পাশেও সিলের কালি লেগে যায়।
ইসি সূত্র জানিয়েছে, সিল ব্যবহার করে প্রচলিত পদ্ধতিতে ভোটদানে নির্বাচন কর্মকর্তা ও ভোটারদের বেশ কিছু ঝামেলা পোহাতে হয়। অনেক সময় সিল ভেঙে যায়, রাবার উঠে যায় কিংবা কালি অস্পষ্ট হয়। আবার ভোটাররাও একাধিক প্রতীকের ঘরে সিল দিয়ে ফেলেন। ফলে বাতিল ভোটের সংখ্যা বেড়ে যায়। তাই প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচনে সিলের বদলে কলম দিয়ে টিক চিহ্ন প্রচলনের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ পদ্ধতির প্রচলন হলে, ব্যালট পেপারে ভোটাররা পছন্দের প্রার্থীর নির্দিষ্ট প্রতীকের ঘরে কলম দিয়ে টিক চিহ্ন এবং অপছন্দের প্রার্থীর ঘরে ক্রস চিহ্ন দেবেন।
গত বৃহস্পতিবার এ নিয়ে নির্বাচন কমিশন একটি আনুষ্ঠানিক বৈঠক করেছে। এতে ইসি সচিবালয়কে কোন কোন দেশে টিক চিহ্ন দিয়ে ভোট দেওয়ার পদ্ধতি বর্তমান আছে তা খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে। এছাড়া এ পদ্ধতির সুবিধা-অসুবিধাও খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে। মূলত ইসির সচিবালয়ের দেওয়া প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করেই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে। প্রতিবেদন ইতিবাচক হলে খুব শিগগিরই স্থানীয় নির্বাচনগুলোর বিধিমালা সংশোধন করে টিক চিহ্ন প্রচলন করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ