• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:১৩ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

ক্ষুদ্রঋণের প্রবক্তা রবীন্দ্রনাথ

Robiঢাকা: কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরই ক্ষুদ্র ঋণের প্রবক্তা। তিনি জানতেন, পল্লীর সিংহভাগ মানুষের পেশা কৃষি। তাই তিনি কৃষির উন্নয়নেই বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। শতবর্ষ আগেই কৃষির উন্নয়ন তথা গ্রাম-বাংলার কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে, ফলনবৃদ্ধির জন্য, তাদের আয়-রোজগার বাড়ানোর ওপর জোর দিয়েছেন কবি।

তিনি লক্ষ্য করলেন, জমি হারানোর ঝুঁকি নিয়েও দারিদ্র্যের কারণে গ্রামের মানুষ মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ নেয়। আর মহাজনদের ঋণের ফাঁদে পড়ে গ্রামের সহজ-সরল দরিদ্র মানুষেরা হয় সর্বশান্ত। কবি তার ‘দুই বিঘা জমি’ কবিতায় ‘উপেন’ চরিত্রের মাধ্যমে চিত্রায়িত করেছেন শোষণের এই ভয়াবহ চিত্র।

রবীন্দ্রনাথের শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রাণকেন্দ্র ছিল কৃষক ও সাধারণ মানুষ। তিনি নিজেকে সম্পৃক্ত করেছেন এসব মানুষের জীবনমান উন্নয়নে।

প্রজাদরদি রবীন্দ্রনাথ প্রজাদের দারিদ্র্য বিমোচনে এবং কৃষকদের মহাজনী ঋণের ফাঁদ থেকে মুক্তির জন্য সমবায় ব্যাংক স্থাপনের উদ্যোগ নেন। মহাজনদের ফাঁদ থেকে সহজ-সরল মানুষদের রক্ষার্থে রবীন্দ্রনাথ ১৮৯৪ সালে শিলাইদহে প্রথম কৃষি ব্যাংক স্থাপন করেন, পরবর্তীতে পতিসরে ১৯০৪ সালে কৃষি সমবায় ব্যাংক ও শ্রীনিকেতনে ১৯২৭ সালে বিশ্বভারতীয় সমবায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেন।

ব্যাংক খোলার পর বহু গরীব প্রজা প্রথমবারের মতো সুযোগ পেল ঋণমুক্ত হওয়ার। স্বল্প সুদে কৃষক, তাঁতি, মৎসজীবীদের মাঝে এ ঋণ বিতরণ করা হলো। এমনকি অনেকে এ ব্যাংকে আমানতও রেখেছেনে। গরীব কৃষক যারা মহাজনী ফাঁদে আটকা পড়েছেন তারা যাতে এই ফাঁদ থেকে মুক্তি পেতে পারেন সে জন্য রবীন্দ্রনাথ তাদের মাঝে ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ শুরু করেন।

রবীন্দ্রনাথের এই উদ্যোগকে বিশ্বে প্রথমবারের মতো দরিদ্র মানুষের মাঝে ক্ষুদ্রঋণের (মাইক্রোক্রেডিট) কর্মসূচি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

তিনি পরবর্তীতে ১৯১৩ সালে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হলে প্রাইজের সঙ্গে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা পান। নোবেল পুরস্কারের টাকা মূলধনে যোগ হওয়ায় কৃষি ব্যাংকের ঋণ প্রদানের ক্ষমতা আরো বাড়ে। ফলে দরিদ্র কৃষকরা জামানতবিহীন ক্ষুদ্রঋণ পাওয়ার সুযোগ পেল। এতে কালীগ্রাম-পরগণার মহাজনরা তাদের কারবার গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়। ১৯২৫ সাল পর্যন্ত এ ব্যাংকের কার্যক্রম চলেছে।

রবীন্দ্রনাথের কৃষিভিত্তিক সমবায় ব্যাংকিং মডেলের আদলে কৃষি প্রধান বাংলাদেশের কৃষকদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) প্রতিষ্ঠা করা হয়।

মানবতার কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জমিদার হয়েও গরীব কৃষকদের দুঃখ-বেদনা হৃদয় দিয়ে অনুভব করতেন। তিনি জমিদারদের মানবিক অধিকারে বিশ্বাসী হতে বলেছেন। রবীন্দ্রনাথের প্রচলিত জমিদারি প্রথার প্রতি বৈরাগ্য আর হতদরিদ্র চাষি ও প্রজাদের প্রতি মমতা কবি চরিত্রের এক অনন্য দিক।

রবীন্দ্রনাথ দরিদ্র অসহায় কৃষকদের আর্থিক স্বচ্ছলতা আনতে কৃষিকে বহুমুখীকরণের পাশাপাশি গ্রামীণ জনপদে অকৃষি খাত যেমন- কুটির শিল্প, রেশম, তাঁত শিল্পের সম্প্রসারণসহ আয় উৎসারী কর্মকাণ্ডের কথা বলেছেন। চাষির অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল কবি ‘বিজয়া সম্মিলনী’র ভাষণে বলেছেন, ‘যে চাষি চাষ করিয়া এতক্ষণে ঘরে ফিরিতেছে তাহাকে সম্ভাষণ করো, যে রাখাল ধেনুদলকে গোষ্ঠগৃহে এতক্ষণে ফিরাইয়া আনিয়াছে তাহাকে সম্ভাষণ করো।’

রবীন্দ্রনাথ চাইতেন চাষিরাই জমির মালিক হোক। তিনি কর বৃদ্ধির করার পাশাপাশি প্রজাদের কল্যাণেও পদক্ষেপ নিয়েছেন। তার সেরেস্তায় আমলাদের কর্তৃত্ব ও শোষণ কমাতে সক্ষম হয়েছিলেন তিনি। সেজন্য জমিদার হওয়া সত্ত্বেও তিনি ছিলেন প্রজাদের কাছে অনন্য এক প্রজাহিতৈষী ব্যক্তিত্ব। যে কারণে অন্য জমিদারের ক্ষেত্রে কৃষক বিদ্রোহ দেখা দিলেও রবীন্দ্রনাথের সময়ে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এক ফসলি জমিকে দুই বা তিন ফসলি করার জন্য তিনি নানা উদ্যোগ নেন। তিনি শিলাইদহে আলু চাষের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। আমেরিকা থেকে ভুট্টা ও মাদ্রাজ থেকে সরু চালের বীজ এনেছিলেন। তাছাড়া কপি, শিম, মটর ইত্যাদি চাষেরও ব্যবস্থা করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। শিলাইদহে তিনি আখ চাষের পরিকল্পনা  করেছিলেন এবং কৃষিকদের আখ মাড়াইয়ের জন্যে কল স্থাপনের উদ্যোগ নেন।

কৃষি উৎপাদনশীলতা বাড়াতে কবিগুরু ক্ষেতে রাসায়নিক সার, আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি, উন্নত জাতের উচ্চফলনশীল বীজের ব্যবস্থাও করেছিলেন।

বর্তমানে গ্রামোন্নয়নে সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি যেমন- ক্ষুদ্রঋণ, কৃষিঋণ, কৃষির আধুনিকায়ন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোগ সবকিছুই রবীন্দ্রনাথের চিন্তা ভাবনার প্রতিফলন। বর্তমান সময়ে দেশে যে কল্যাণধর্মী ও কৃষকবান্ধব উন্নয়ন নীতি কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে তা রবীন্দ্র চেতনারই প্রতিফলন।

বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ