• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:২০ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে প্রতিবন্ধী শিশুকে গর্তে রেখে সুস্থ করার চেষ্টা

nilphamari Mapসিসি নিউজ: নীলফামারীতে এক প্রতিবন্ধী শিশুকে গর্তে রেখে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করার চেষ্টা চালাছে তার পরিবার। স্থানীয় কবিরাজের চিকিৎসার পাশাপাশি চলছে মাটির গর্তে রেখে সুস্থ করার আপ্রান চেষ্টা। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে জেলার নীলফামারী সদর উপজেলার ইটাখেলা ইউনিয়নে।
জানা যায়, ওই এলাকার গরীব রিকশা চালক রতন ঋষি’র মেয়ে নয়মী ঋষি (৫)। নয়মী ঋষি জন্মেও পর থেকে আজ পর্যন্ত কথা বলতে পারেনা, জন্ম থেকে সে নিজের পায়ে হাটতেও পারে না, নিজের হাতে খেতেও পারে না। নয়মী ঋষি’র মা রঞ্জনা ঋষি জানান, নয়মী’র এ সমস্যাগুলো জন্মের পর আমরা এসব বুঝতে পারিনি ধীরে ধীরে বিষয়টি আমরা বুঝতে পারি। আজ রবিবার তাদের বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায় রান্না ঘরের পাশে একটি মাটির গর্তে রেখে শিশুটিকে ভাত খাওচ্ছে তার মা রঞ্জনা ঋষি। নয়মী’র বাবা রতন জানান, রোগ বুঝার পর নীলফামারী, রংপুরে অনেক চিকিৎসকের কাছে বাচ্চাটাকে নিয়েও কোন লাভ হয়নি। তাছাড়া আমরা গরীব মানুষ চিকিৎসার ব্যায়ভার বহন করতে পারছি না। তাই বাধ্য হয়ে কবিরাজের কাছে গিয়েছে, কিন্তু তাতেও কোন লাভ হয়নি। তাই এখন তাকে সুস্থ করতে অনেকাটা বাধ্য হয়ে বাড়িতে গর্ত করে তাকে রাখা হয়েছে। নয়মীকে গর্তে দাড় করিয়ে রেখে তারা স্বামী স্ত্রী কাজে যায়। এতে করে সে কিছুটা ভালো হবে বলে আমরা আশা করছি। তাছাড়া আমার বাড়ীতে রেখে গেলে তাকে দেখা কেউ নেই যে কোর সময় তার সাথে ঘটতে পারে বড় রকমের দূর্ঘটনা তাই নয়মীকে গর্তে রাখা বলে তাদের দাবী। সারাদিন মাটির গর্তে রেখে কোন সমস্যা হয় কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তারা জানায়, শীতের সময় বেশী থাকলে একটু সর্দি জ্বর হয়। এভাবে ৪ বছর ধরে রাখার পরেও নয়মী’র তেমন কোন উন্নতি হয়নি বলে তার বাবা রতন জানান। অসহায় রতনের নিজের কোন জমি নেই মানুষের জমি বর্গা চাষ করে আর রিক্সা চালিয়ে এবং অন্যের বাড়ীতে নয়মী’র মা কাজ করে কোন রকমে তাদের সংসার চলছে। বড় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে হয়তো নয়মী সুস্থ হতে পারে। উন্নত চিকিৎসার জন্য গরীব পরিবারটি টাকা কোথায় পাবে। এভাবে অপচিকিৎসা দিয়ে মেয়েটিকে তারা বড় করে তুলছে। সেই সাথে বয়স বাড়ার সাথে সাথে বাড়ছে নয়মী’র সমস্যা। বাচ্চার এমন অবস্থা দেখে পরিবারটি’র হা-হুতাশ করা ছাড়া আর কিছু বাকী নেই।
এ ব্যাপারে ইটাখোলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফিজুর রশীদ মজœু জানান, মেয়েটির পরিবারের কেউ বিষয়টি জানায় নি, এখন জানলাম আমি খোজ নিয়ে দেখব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ