• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:১৩ অপরাহ্ন |

সাত খুনের ঘটনায় ৩ র‌্যাব কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ

rabঢাকা: নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত গুম-খুনের ঘটনায় অকালীন বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া তিন র‌্যাব কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

রবিবার এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মো. খুরশীদ আলম সরকারের যুগ্ম-বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

সাত খুনের ঘটনায় র‌্যাব-১১এর তৎকালীন অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল তারেক সাইদ, মেজর আরিফ হোসেন এবং নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এম এম রানাকে গ্রেপ্তারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেয়া হয়।

স্বরাষ্ট্র সচিবকে অবিলম্বে এ জন্য পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আদেশে বলা হয়, চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া ওই তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি বা অন্য কোনো বিশেষ আইনে কোনো অভিযোগ পাওয়া না গেলে তাদেরকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে হবে।

গ্রেপ্তারের পর তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণেরও নির্দেশনায় বলা হয়।

এই নির্দেশনার পাশাপাশি দুটি রুলও দেয়া হয়।

পুলিশ ও র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পেশাগত কার্যাবলী সম্পর্কিত বিদ্যমান আইন সংশোধন, আইনকে হালনাগাদ করার বিষয়টি সক্রিয় বিবেচনা করতে কেন নির্দেশনা দেয়া হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি নাগরিকদের অধিকার রক্ষায় আইনের ঘাটতি সংশোধনে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তা-ও জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট।

দুই সপ্তাহের মধ্যে বিবাদী স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, জনপ্রশাসন সচিব ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদেশের পর বেঞ্চের কনিষ্ঠ বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকার বলেন, ইতোপূর্বে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ এ ব্যাপারে আদেশ দিয়েছিল। সে সময় ওই তিন কর্মকর্তাকে বরখাস্তের বিষয়টা থাকলে ওই বেঞ্চই তাদেরকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিতো।

তিনি বলেন, ‘আমরা নতুন করে এ বিষয়ে আদেশ দিলাম। কারণ কিছু পাওয়া না গেলেতো তাদেরকে বরখাস্ত করা হতো না।’

আদালত আরো বলেছে, ‘এর আগের স্বতঃপ্রণোদিত আদেশের সঙ্গে এই রিটেরও শুনানি হবে। সেই বেঞ্চের বিবেচনার জন্য আমরা বিষয়টি পাঠিয়ে দিলাম।’

নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় তদন্ত প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণে বিচার বিভাগীয় কমিশন চেয়ে সকালে এই রিট হয়। রিটের প্রাথমিক শুনানি শেষে আদাতল এসব আদেশ দেন।

সকালে চন্দন সরকারের জামাতা ডা. বিজয় কুমার পাল, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান ও আমরা নারায়ণগঞ্জবাসীর নির্বাহী সভাপতি মাহবুবুর রহমান রিটটি দায়ের করেন।

রিটের পক্ষে শুনানি করেন ড. কামাল হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এমকে রহমান।

এর আগে এই তিন কর্মকর্তার সেনাবাহিনীর দুজনকে আকালীন অবসর এবং নৌবাহিনীর একজনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়। তারা নিজ বাহিনীর পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। তদন্তে দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

লে. কর্নেল তারেক সাইদ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার জামাতা।

নারায়ণগঞ্জে নিহত প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের পরিবারের অভিযোগ তারেকসহ র‌্যাবের তিন কর্মকর্তার যোগসাজসে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেন অপহরণ ও হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে।

এ ঘটনার জন্য র‌্যাবকে ছয় কোটি টাকা দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন নজরুলের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম। তার এ অভিযোগ প্রকাশের পরই অভিযোগ তদন্তে কমিটি গঠন করেছে র্যালব। একই সঙ্গে নিরপেক্ষ কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

এছাড়া নারায়ণগঞ্জের অপহরণের পর সাতজনের লাশ উদ্ধারের দিনই তারেক সাইদসহ প্রশাসনের পাঁচ কর্মকর্তাকে নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রত্যাহার করা হয়।

গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে অপহরণ করা হয়। তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে তাদের লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ