• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:১১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

তাজউদ্দীন আহমদ: নেতা ও পিতা

Samadএবনে গোলাম সামাদ: পিতার প্রতি কন্যার টান থাকা স্বাভাবিক। তাজউদ্দীন আহমদ সাহেবের কন্যা (শারমিন আহমদ) তাকে নিয়ে বই লিখেছেন, যা নিয়ে এখন শুরু হয়েছে খুবই হইচই। কারণ এ বইতে তাজউদ্দীন-আহমদ সাহেবের কন্যা বলেছেন, তার পিতা ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ শেখ মুজিবকে বলেছিলেন স্বাধীনতা ঘোষণা করতে। কিন্তু শেখ মুজিব তাতে রাজি হননি। আওয়ামী লীগ বলে আসছে শেখ মুজিব ছিলেন স্বাধীনতার ঘোষক। কিন্তু তাজউদ্দীন-তনয়ার দাবি যদি সত্য হয় তবে বলতে হবে, শেখ মুজিব স্বাধীনতার ঘোষক ছিলেন না। এবং তিনি চাননি বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালে তাজউদ্দীন-কন্যার বয়স ছিল ১১ বছর। অনেকে বলছেন ওই বয়সের কন্যার পে জানা সম্ভব নয় তার পিতা শেখ মুজিবকে কী বলেছিলেন। কিন্তু অনেকের কাছে মনে হচ্ছে, ১১ বছরের কন্যা অনেক কিছুই শুনে থাকতে পারে। আর তার স্মৃতিতে গাঁথা হয়ে থাকতে পারে সেসব কথা। তিনি তাই যা লিখেছেন তার মধ্যে আছে সত্যের ছোঁয়া। কেবল তাজউদ্দীন-তনয়া নন, ইন্দিরা গান্ধী ১৯৭১ সালের ৬ নভেম্বর নিউ ইয়র্ক শহরে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তৃতা দিতে গিয়ে বলেছিলেন, শেখ মুজিব তখনো ব্যক্তিগতভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি। তার সাথে আলোচনা করে তাই পূর্ব বাংলার একটা সমাধান করা যেতে পারে। ইন্দিরা গান্ধী এ ব্যাপারে যথেষ্ট অবগত ছিলেন। তাজউদ্দীন-কন্যা যা বলেছেন তাকে তাই একেবারেই অবহেলা করা চলে না। শেখ মুজিবের সাথে তাজউদ্দীনের নানা বিষয়ে সৃষ্টি হতে পেরেছিল গভীর মতবিরোধ। শেখ মুজিব ঠিক চাননি ভারতের হাতের মুঠোয় যেয়ে পড়তে। যদিও চেয়েছিলেন ভারতের সাহায্যে কিছু রাজনৈতিক চাপ সৃষ্টি করতে। কিন্তু তাজউদ্দীন চেয়েছিলেন ভারতের সরাসরি হস্তপে। যেটা পরবর্তীকালের অনেক ঘটনা থেকে প্রমাণিত হতে পেরেছে।

তাজউদ্দীন আহমদ সাহেব সম্পর্কে চীনপন্থী কমিউনিস্ট নেতা মোহাম্মদ তোয়াহা এক সাাৎকারে বলেছেনÑ ‘…তাজউদ্দীন পূর্বাপর কমিউনিস্ট পার্টির সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। যদিও তাজউদ্দীন বাহ্যত আওয়ামী লীগ করতেন, কিন্তু প্রকৃতপে আমাদের সাথেই জড়িত ছিলেন। পার্টির সিদ্ধান্তেই তাকে আওয়ামী লীগে রাখা হয়’ (দ্রষ্টব্য : মহান একুশে সুবর্ণজয়ন্তী গ্রন্থ; সম্পাদনা : মাহ্বুব উল্লাহ। অ্যাডর্ন পাবলিকেশন, ঢাকা, ২০০৮। পৃষ্ঠা-১৪৪৪)। ১৯৬৫ সালে পূর্ব পাকিস্তানের কমিউনিস্টরা পিকিং ও মস্কোপন্থীতে বিভক্ত হয়ে যান। তোয়াহা হন পিকিংপন্থী (বেইজিং)। আর তাজউদ্দীন হন মস্কোপন্থী। তাজউদ্দীন যা কিছু করেছেন তা তিনি করেছেন মস্কোর নির্দেশে। ১৯৭১ সালে দিল্লি ও মস্কো একসাথে হাত মিলিয়েছিল রাষ্ট্র হিসেবে পাকিস্তানকে বিলুপ্ত করার লক্ষ্যে। তাজউদ্দীন চেয়েছিলেন তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানকে নিয়ে পাকিস্তান বিলুপ্তির যুদ্ধের সূচনা করতে। আসলে ১৯৭১-এর যুদ্ধ ছিল গোটা পাকিস্তান বিলুপ্তিরই যুদ্ধ। কিন্তু মার্কিন হস্তেেপর ফলে সেটা সম্ভব হয়নি। শেখ মুজিব বুঝতে পেরেছিলেন তাজউদ্দীন আসলে কী চাচ্ছেন। তাই তিনি চাননি পূর্ব পাকিস্তানের স্বাধীনতা ঘোষণা করতে। এ ছাড়া তখনো সুযোগ ছিল আলোচনার মাধ্যমে একটা সমাধানে আসার। ইন্দিরা গান্ধী আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের কথা বললেও ভেতরে ভেতরে নিচ্ছিলেন যুদ্ধের প্রস্তুতি। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যান প্রেসিডেন্ট নিক্সনকে ধোঁকা দিতে। পরবর্তী ঘটনা থেকে যার যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া চলে। প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া শেখ মুজিবকে গ্রেফতার করে পশ্চিম পাকিস্তানে নিয়ে যান। কিন্তু তিনি শেখ মুজিবকে বিচারের জন্য তেমন কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেননি। তিনি শেখ মুজিবকে তার উকিল নিযুক্তির সুযোগ প্রদান করেছিলেন।

১৯৭১ সালের ১৬ আগস্ট শেখ মুজিবের পে মামলা চালানোর জন্য এ কে ব্রোহি এবং তার সহযোগী গোলাম আলী মেনন, আকবর মির্জা ও গোলাম হোসেনকে পাকিস্তান সরকার কর্তৃক অনুমতি দেয়া হয়। মামলা চলত। মামলার ফলাফল কী হতো তা কেউ বলতে পারে না। শেখ মুজিবের সাথে কোনো দুর্ব্যবহার করা হয়নি পাকিস্তান কর্তৃপরে প থেকে। গুজব শুনেছিলাম, শেখ মুজিব নাকি বলেছিলেন, তিনি পাকিস্তানের নাগরিক। আর তিনি পাকিস্তানেই আছেন। তিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোনো যুদ্ধ ঘোষণা করেননি। তাজউদ্দীনের দায়দায়িত্ব তার ওপর তাই বর্তাতে পারে না। মূলত এ কারণেই হয়তো তিনি পেতে পেরেছিলেন উকিল নিযুক্তি ও মুক্ত বিচার পাওয়ার অধিকার। শারমিন আহমদ অভিযোগ তুলেছেন শেখ মুজব চাননি স্বাধীনতা ঘোষণা করতে। কিন্তু তিনি (শেখ মুজিব) আগাগোড়ায় চাননি পাকিস্তানকে ভেঙে দিতে। তিনি পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন চেয়েছিলেন। আর সেটা লাভ করার জন্য ভারতে যেতে ইচ্ছুক ছিলেন না। হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী তার এক বিশেষ সাাৎকারে বলেছেন, প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দিল্লির সরকারের সাথে তাজউদ্দীন চুক্তি করেন যে, বাংলাদেশ সরকারের কোনো সেনাবাহিনী থাকবে না। এবং থাকবে না স্বাধীন পররাষ্ট্রনীতি। হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী ছিলেন ১৯৭১-এ বাংলাদেশ সরকারের সাথে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের যোগাযোগ রা করার দায়িত্বে। তিনি পাকিস্তানের প ত্যাগ করে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের প নিয়েছিলেন। তিনি সাাৎকারটি প্রদান করেন ২৭ ডিসেম্বর ১৯৮৯ (দ্রষ্টব্য : মাসুদুল হক; বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ‘র’ এবং সিআইএ। প্রকাশক : ফিরোজ আহসান; প্রচিন্তা প্রকাশনী-ঢাকা। পৃষ্ঠা : ১৪০- ১৪৩)। হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী আরো বলেছিলেন, দেশে ফিরে শেখ মুজিব তাজউদ্দীনকৃত এই চুক্তি মানতে রাজি হন না। অর্থাৎ শেখ মুজিব ও তাজউদ্দীনের মধ্যে ছিল গুরুতর আদর্শিক বিরোধ। আশ্চর্য হতে হয় এই ভেবে যে, শেখ মুজিব একপর্যায়ে ঝুঁকে পড়েন মস্কোর প্রতি। আর গঠন করেন সোভিয়েত কায়দায় বাংলাদেশে এক দলের রাজত্ব। কিন্তু প্রথম দিকে তিনি ছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্রে আস্থাশীল। এবং মস্কোর চেয়ে ওয়াশিংটনের প্রতি ছিল তার বিশেষ পপাতিত্ব।

১৯৭৩ সালের ১ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ভিয়েতনাম যুদ্ধের প্রতিবাদে ঢাকায় হয়েছিল ছাত্রমিছিল। শেখ মুজিব সরকারের নির্দেশে পুলিশ সেই ছাত্রমিছিলে চালিয়েছিল গুলি। দুইজন ছাত্র নিহত হয়েছিল। কতগুলো তারিখ আমার কাছে যথেষ্ট কৌতূহল জাগায় : ১৯৭৫ সাল, ২৪ জানুয়ারি, বাকশাল গঠন। ১৯৭৫ সালের এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে ভারতের সিকিম দখল। ১৯৭৫ সালের ২৬ জুন ইন্দিরা গান্ধীর সারা ভারতে জরুরি অবস্থা জারি ও মানবাধিকার স্থগিতকরণ। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোর ৪টায় শেখ মুজিব হত্যা। ১৫ আগস্ট ছিল ভারতের স্বাধীনতা দিবস। এ সময় চলেছিল ভারতের স্বাধীনতা দিবসের আনন্দ আয়োজন। শেখ মুজিবের মৃত্যু এতে কোনো ছেদ আনেনি। সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ভারত শেখ মুজিবের মৃত্যুতে কূটনৈতিক কায়দায় দুঃখ প্রকাশ করেছিল। কিন্তু তার বেশি কিছু করতে অগ্রসর হয়নি। অনেক কিছুই থেকে গিয়েছে এখনো রহস্যময় হয়ে। তাজউদ্দীন-কন্যার বইটিকে দেশবাসী ঠিক কিভাবে গ্রহণ করবেন আমরা তা জানি না। তাজউদ্দীনের স্ত্রী জোহরা তাজউদ্দীন আওয়ামী লীগে কখনোই খুব আদ্রিত ছিলেন না। তবে শেখ মুজিব স্বাধীনতার ঘোষক নন- তাজউদ্দীন-কন্যার এই উক্তি অনেক আওয়ামী লীগ সদস্যের কাছে হয়তো বাঞ্ছিত বলে মনে হবে না। বিশেষ করে বিএনপির পক্ষ থেকে যখন প্রমাণের চেষ্টা চলেছে, শেখ মুজিব স্বাধীনতার ঘোষক ছিলেন না। আসলে শেখ মুজিব স্বাধীনতা ঘোষণা না করে যথেষ্ট রাজনৈতিক বুদ্ধির পরিচয় প্রদান করেছিলেন বলেই আমার মনে হয়।

তাজউদ্দীন-কন্যার বইটির দাম যথেষ্ট বেশি। জানি না এ দেশের সাধারণ মানুষ ক’জন এটা কিনে পড়তে পারবেন। দুঃখজনকভাবে রাজনীতি বাংলাদেশে হয়ে দাঁড়াচ্ছে অনেক পরিমাণেই বংশগত। তাজউদ্দীন-পরিবার নিজেকে পিতার ঐতিহ্যকে পুঁজি করে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবেন কি না তা বলা যাচ্ছে না। তাজউদ্দীন ছিলেন মস্কোপন্থী বাম। কিন্তু বাম চিন্তা আজ সারা বিশ্বেই হয়ে উঠেছে অপাঙ্ক্তেও। আমরা চোখের সামনে দেখলাম সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে পড়তে। দেখতে পেলাম মাও জে দং-এর দেশে কমিউনিস্ট পার্টিকে শেষ পর্যন্ত বাজার অর্থনীতির পথ ধরতে। চীনে সমাজতন্ত্রের কথা কেউ আর ভুলেও বলে না।
(নয়া দিগন্ত)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ