• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষাবাদ শুরু

Paddy Field, Nilphamariনীলফামারী প্রতিনিধি: চলতি বোরো মৌসুম থেকে নীলফামারী জেলায় জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষ শুরু হয়েছে। চাষাবাদে উদ্বুদ্ধ করতে জেলার ৫০জন কৃষক প্রদর্শণী প্লট করে যাত্রা শুরু করেছেন জিংক সমৃদ্ধ জাতটির।
প্রদর্শণী প্লটের চাষ পদ্ধতি ও ফলাফল পর্যবেণের জন্য আজ নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের নিত্যানন্দী গ্রামে মাঠ দিবসের আয়োজন করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মছিরত আলী শাহ ফকিরের সভাপতিত্বে মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নীলফামারীর উপ-পরিচালক এস এম সিরাজুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আরডিআরএস বাংলাদেশ নীলফামারী জেলার কর্মসুচী সমন্বয়কারী রাশেদুল আরেফিন এবং কৃষি ও পরিবেশ সমন্বয়কারী মামুনুর রশিদ মাঠ দিবসের মুল বিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন।
আলোচনা সভায় হারভেস্ট প্লাস চ্যালেঞ্জ প্রোগ্রামের পোস্ট ডক্টোরাল ফেলো এবং বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইনস্টিটিউট’র মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, বাংলাদেশের  ৪০ ভাগ শিশু যাদের বয়স ৫বছরের নীচে তারা অপুষ্টিতে ভূগছে এবং তাদের মধ্যে ৪৪ ভাগ আবার জিংক স্বল্পতায় ভূগছে এছাড়া প্রায় ৬০ ভাগ মহিলা জিংক স্বল্পতাজনিত রোগে ভূগছে। যেহেতু ধান আমাদের প্রধান খাদ্য, তাই জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষ এবং এর ভাত খেয়ে  সহজে জিংক’র ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে হারভেস্ট প্লাস চ্যালেঞ্জ প্রোগ্রামের কান্ট্রি ম্যানেজার ড. খায়রুল বাশার জানান, আগামী আমন মৌসুমে সারাদেশে ১০ হাজারের বেশি জিংক সমৃদ্ধ ব্রিধান ৬২ এর প্রদর্শণী প্লট স্থাপন করা হবে। এর মাধ্যমে স্বল্পসময়ে জিংক সমৃদ্ধ ধানের বীজ কৃষকদের মাঝে সম্প্রসারিত হবে। এ বিষয়ে হারভেস্টপ্লাস চ্যালেঞ্জ প্রোগ্রাম ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে এবং এর আওতায় বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইনস্টিটিউট নতুন নতুন জিংক সমৃদ্ধ ধান উদ্ভাবনে কাজ করছে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর নীলফামারীর উপ-পরিচালক এস এম সিরাজুল ইসলাম বলেন, নীলফামারী জেলায় খাদ্য উৎপাদনে একটি উদ্বৃত্ত জেলা, কিন্তু এখানে অনেক শিশু ও গর্ভবর্তী মা পুষ্টিহীনতায় ভূগছেন। এই জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষের মাধ্যমে জেলায় খাদ্য নিরাপত্তার পাশাপাশি পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।
সভায় উপস্থিত নীলফামারী সদর উপজেলা কষি কর্মকর্তা কেরামত আলী, টুপামারী সমাজকল্যান ফেডারেশন সভাপতি আরতি রানী রায়, ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার ভবানী মোহন রায়, আরডিআরএস’র সহকারী  সমন্বয়কারী (কৃষি) নুহেরা বেগম ও সিনিয়র কৃষি অফিসার নাসির উদ্দিন প্রমূখ।
মাঠ দিবস শেষে সুশীলনের পঠ গানের দল জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষের গুরুত্বের উপর পট গান পরিবেশন করেন যেখানে বিভিন্ন গ্রাম থেকে আগত ৪ শতাধিক কৃষক-কৃষাণী উপস্থিত ছিল।
আরডিআরএস নীলফামারী সিনিয়র কৃষি কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন জানান, কার্যক্রমের আওতায় আরডিআরএস বোরো মৌসুমে নীলফামারী সদর ও জলঢাকা উপজেলার ৫০জন কৃষকের জমিতে জিংক সমৃদ্ধ ধানের  প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হয়েছে। কৃষকদের বিনামুল্যে বীজ, সারসহ বিভিন্ন উপকরণ দেয়া হয় চাষাবাদের জন্য।
মাঠ দিবসের আলোচনা সভায় কিষাণী মিনা রানী রায় জানান, ধানের ফলন ভাল এবং উপকারিতা বেশি হওয়ার কারণে প্রদর্শণী প্লট দেখে স্থানীয়রা উদ্বুদ্ধ হয়ে জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষাবাদে আগ্রহ দেখিয়েছেন। তিনি জানান, তার ৪৫শতাংশ জমিতে প্রদর্শনী প্লটের ধান কর্তন করে সেগুলো বীজ হিসেবে ব্যাপক আকারে চাষাবাদের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ