• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:০৬ পূর্বাহ্ন |

প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন মোদি!

Modiআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন বিজেপির নরেন্দ্র মোদি। অন্তত ভোট-পরবর্তী জরিপগুলো সেরকমই বলছে। সম্ভাব্য আসন সংখ্যার কিছুটা হেরফের হলেও বিজেপির জয় নিয়ে কোনো জরিপেরই ভিন্ন মত নেই। জরিপের তথ্য অনুযায়ী বিজেপি একক বৃহত্তম দল হিসেবে বিজয়ী হওয়ার পাশাপাশি লোকসভায় বড় ব্যবধানে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক এলায়েন্স বা এনডিএ জোট। খবর ইন্ডিয়া টুডে, এনডিটিভি ও ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ডটকমের।
পাঁচ সপ্তাহ ধরে চলা ভোটের শেষ দফা ভোট গ্রহণ হলো গতকাল সন্ধ্যা ৬টায়। আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণা হবে ১৬ মে।
ইন্ডিয়া টুডের জরিপ বলছে, বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট পাবে ২৬১ থেকে ২৮৩টি আসন। ২৮৩টি আসন পেলে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ২৭২টি আসনের চেয়েও ১১টি আসন বেশি থাকবে তাদের। যদিও সাধারণভাবে সরকার গঠনে জোটের বাইরেও আঞ্চলিক দলগুলোর সমর্থনের প্রয়োজন হয়।
ইন্ডিয়া টিভির পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, এনডিএ আসন পাবে ২৮৯টি। তাদের হিসেবে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ পাবে মাত্র ১০১টি আসন। সে ক্ষেত্রে এটা হবে কংগ্রেসের ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপতম ফল। কংগ্রেসের দলীয় ফলাফলটা সে ক্ষেত্রে কোনোভাবেই দুই অঙ্কের কোটা পেরোবে না।
২০০৪ ও ২০০৯ সালের নির্বাচনে ভোট-পরবর্তী জরিপগুলো বিজেপিকে এগিয়ে রেখেছিল। যদিও দুবারই জোট সরকার গঠন করেছিল কংগ্রেস।
দিল্লিভিত্তিক সংস্থা সেন্টার ফর দ্য স্টাডি অব ডেভেলপিং সোসাইটিজের (সিএসডিএস) রাজনৈতিক বিশ্লেষক প্রাভিন রায় বললেন, ‘নির্বাচনের ফল ঘোষণার পরই কেবল আমরা নিশ্চিত হতে পারব, মোদি ফ্যাক্টর কতটা কাজে লেগেছে। হতে পারে জরিপে যেটা দেখা যাচ্ছে, সেটা মিডিয়ার তৈরি করা অতিরঞ্জিত ফল।’
প্রাপ্ত ভোটের রেকর্ড
এ দিকে, প্রাপ্ত ভোটের হারের রেকর্ড গড়ে শেষ হলো ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। পাঁচ সপ্তাহ ধরে চলা ভোট গ্রহণের শেষ দিন ছিল গতকাল। নির্বাচন কমিশনের হিসেবে এবারের নির্বাচনে মোট প্রাপ্ত ভোটের হার ৬৬.৩৮ শতাংশ। এর আগে ১৯৮৪-৮৫ সালে অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচনে ভারতের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৬৪ শতাংশ ভোট পড়েছিল। সেবার বিজয়ী হয়েছিলেন কংগ্রেস নেতা রাজিব গান্ধী। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ও রাজিব গান্ধীর মা ইন্দিরা গান্ধী আততায়ীর হাতে নিহত হওয়ায় ভোটারদের সহানুভূতি ছিল রাজিব গান্ধীর পক্ষে। এবারের নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের হার সে রেকর্ডকেও ছাড়িয়ে গেল।
নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, উত্তর প্রদেশের যে ১৮টি আসনে গতকাল ভোট গ্রহণ হলো, সেখানে ভোট পড়েছে ৫৫ শতাংশ। ২০০৯ সালে পুরো রাজ্যে প্রাপ্ত ভোটের হার ছিল ৪৫.৬ শতাংশ। অন্য দিকে, পশ্চিমবঙ্গের ১৭ আসনে ২০০৯ সালে ভোট পড়েছিল ৮১.৯ শতাংশ। এবারের নির্বাচনে গতকাল সেখানে ভোট পড়েছে ৭৯.০৩ শতাংশ। আর বিহারের ছয়টি আসনে গতকাল বিকেল ৪টা নাগাদ প্রাপ্ত ভোটের হার ছিল ৫৪ শতাংশ। অথচ গত নির্বাচনে সেখানকার পুরো প্রাপ্ত ভোটের হার ছিল ৪৩.৭ শতাংশ।
বারানসিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দুই তারকা প্রার্থী বিজেপির প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী নরেন্দ্র মোদি আর আম আদমি পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়াল। প্রচণ্ড তাপপ্রবাহের মধ্যেও সেখানে ভোটারের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। ভোট গ্রহণ পুরো শেষ হওয়ার আগেই সেখানকার প্রাপ্ত ভোটের হার ৫৫.৩৪ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।
গতকালের ভোট নির্বাচনের পুরো চিত্র পাল্টে দিয়েছে। নির্বাচনে প্রথম আট দফা ভোট গ্রহণের পর দেখা গেছে মোট ৬৬.২ শতাংশ রেজিস্টার্ড ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে। নির্বাচন কমিশনের আঞ্চলিক অফিস থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হবে ১৬ মে। বিজেপি ও তার জোটভুক্ত দলগুলো এবার সর্বোচ্চ আসন পাবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে আঞ্চলিক দলগুলোও নির্বাচনী ফলাফলে বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে। সে ক্ষেত্রে সরকার গঠনের জন্য ৫৪৩ আসনের মধ্যে ২৭২টিতে জয় লাভ করা বিজেপির জন্য সহজ নাও হতে পারে।
অর্থনীতির অধ্যাপক বিবেক দেহেজিয়া বললেন, ‘আমাদের সতর্ক হতে হবে। ভোটের হার বেশি হলেই যে সেটা কারো জন্য ভালো বা মন্দ হবে, তা বলা যাচ্ছে না। যে ভোটার এবার কংগ্রেসকে ভোট দেয়া থেকে সরে এলেন, তার ভোটটি যে বিজেপির বাক্সেই পড়ছে, এ রকম ভাবার কোনো কারণ নেই।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ