• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন |

হুমকির মুখে তিস্তা ব্যারেজ

Tista
বিশেষ প্রতিনিধি: ট্রাক প্রতি ৩ থেকে ৫’শ টাকা উৎকোচের বিনিময়ে স্কেলে কোন পরিমাপ ছাড়াই শত শত পাথর ভর্তি ট্রাক প্রতিদিন তিস্তা ব্যারেজ অতিক্রম করায় চরম হুমকির মুখে পড়েছে দেশের সর্র্বৃহত সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ। পাউবোর কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে যোগসাঁজশে পাথর ব্যবসার সঙ্গে জড়িত সিন্ডিকেট প্রতিদিন পরিমাপ ছাড়াই তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে অতিরিক্ত পাথর ও মালামাল বোঝাই ট্রাক এভাবে পারাপার করছে। এর ফলে চরম হুমকির মুখে পড়েছে ব্যারাজ।
আজ সোমবার সকালে স্কেলে কোন পরিমাপ ছাড়াই ৩’শ থেকে ৫’শ টাকা করে উৎকোচ নিয়ে ট্রাক পারাপারের সময় স্থানীয় লোকজন শতাধিক ট্রাক আটক করে। এ সময় ট্রাক ড্রাইভার ও ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী পরিচালক হাফিজুর রহমানের সাথে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর ফলে ব্যারাজের ওপর দিয়ে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি অবনতি হতে থাকলে রংপুর হতে তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আতিকুর রহমান ঘটনাস্থলে পৌছে হাফিজুরকে প্রত্যাহার করার ঘোষনা দিলে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে দুপুরের পর যান চলাচল শুরু হয়।
সূত্র জানায়, পাউবোর চুক্তি ভিত্তিক কর্মচারী আব্দুল হক, খলিল ও খাদেমুল ইসলামই হচ্ছেন পরিমাপ ছাড়াই পাথর ও মালামার বোঝাই ট্রাক পারাপারের মূল হোতা। এলাকাবাসী জানায়, ব্যারাজের ওপর দিয়ে ৮ হতে ২০টনের বেশী ওজনের ট্রাক ও ১০ চাকার ট্রাক পারাপারে বিধিনিষেধ থাকলেও তা না মেনে ৩০-৪০ টন পাথর ভর্তি এক থেকে দেড়শ ট্রাক অবৈধ ভাবে পার হয়ে যাচ্ছে প্রতিদিন। যা এক পর্যায়ে ৮০ টন পর্যন্ত গিয়ে দাড়ায়। আর এ থেকে আসা অবৈধ উপার্জনের টাকা থানা-পুলিশ-আনছার থেকে শুরু করে পাউবোর প্রতিটি টেবিলে পৌচ্ছে যাচ্ছে নিয়মিত। এভাবে প্রতিদিন অন্তত ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত পাথর ও মালামাল বোঝাই ট্রাক থেকে। আর এতে করে ব্যারাজের অস্তিত্ব নিয়ে শংকিত এলাকার মানুষ। এ ব্যাপারে পাউবোর প্রকৌশলী এডি হাফিজুর রহমান তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তিনি মাপ ছাড়া কোন ট্রাক পার হতে দেন না বিধায় তার বিরুদ্ধে এ সব ষড়যন্ত্র এর বেশী তিনি বলতে রাজী হননি।
এ ব্যাপারে পাউবোর তিস্তা যান্ত্রিক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিছুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওই বিভাগে এডি আব্দুল হাফিজকে কোজ করা হয়েছে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। অপর দিকে তিস্তা পারে অবৈধ পাথর ও বালু উত্তোলন কোন ভাবেই বন্ধ হচ্ছেনা। রাতের অন্ধকারে স্থানীয় কতিপয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ভুমি কর্মকর্তার যোগসাযোশে অসাধু পাথর ব্যবসায়ীরা উচ্চ মতা সম্পন্ন শত শত বোমা মেশিন দিয়ে পাথর ও বালু উত্তোলন করছে। অথচ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ একেবারে নিশ্চুপ। অভিযোগ রয়েছে সংশ্লিষ্টদের এমনকি জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে ম্যানেজ করেই অবৈধ পাথর উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ