• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৫৮ অপরাহ্ন |

এমপি পদ হারাতে পারেন নিজাম হাজারী

MP Nijam Hazariসিসি নিউজ: অস্ত্র মামলায় সাজা ভোগে জালিয়াতি এবং নির্বাচন কমিশনে মিথ্যা হলফনামা দেয়াসহ নানা অভিযোগে এমপি পদ হারাতে পারেন নিজাম হাজারী। সাজার মেয়াদ পূর্ণ করতে ফের জেলেও যেতে পারেন দশম সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ফেনীর এই এমপি। জড়িয়ে পড়তে পারেন উচ্চ আদালতের রায় জালিয়াতি মামলায়ও। তিন বছরে অস্বাভাবিক সম্পদ বৃদ্ধি এবং একটি অস্ত্র মামলায় প্রায় তিন বছর সাজা ফাঁকি দেয়ার অভিযোগে আলোচনায় উঠে আসেন নিজাম হাজারী। এ নিয়ে তুমুল বিতর্ক ও সমালোচনার ঝড় বইছে সর্বত্র। তোলপাড় সৃষ্টি হয় ক্ষমতাসীন দলের ভেতরে ও বাইরে। আদালতে-প্রশাসনে। উষ্মা প্রকাশ করা হয় খোদ সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে। এতে রাজনৈতিক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছেন তিনি। বেকায়দায় পড়েছেন নিজাম হাজারীর আশ্রয়-প্রশ্রয় দাতারাও। সূত্র জানায়, ফেনীর বহুল আলোচিত আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল হাজারীর তৎকালীন স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য নিজাম হাজারী। জয়নাল হাজারীর স্বেচ্ছা রাজনৈতিক নির্বাসনের পর উত্থান হয় তার। দখলে নেন ফেনীর সর্বময় ক্ষমতা। একক আধিপত্য বিস্তার করেন এখানকার বালুমহাল, প্রশাসন, বাসস্ট্যান্ড, সরকারি-আধাসরকারি উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সবখানে। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশনে দেয়া হিসাবমতে তিন বছরে তার সম্পদ বাড়ে ৩২ গুণ। তবে হিসাবের বাইরে তার সম্পদের পরিমাণ শত গুণ বেড়েছে বলে ওয়াকিবহাল মহলের অভিমত। এদিকে তার অতীত কিছু কর্মকাণ্ড সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হলে তোলপাড় শুরু হয়। এ ব্যাপারে সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন-এর সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, উত্থাপিত অভিযোগ সত্য হলে তিনি এমপি পদে থাকার যোগ্যতা হারাবেন। এমন অপরাধে অভিযুক্ত কেউ এমপি পদে থাকতে পারেন না। তবে উত্থাপিত অভিযোগ সত্য কিনা সেটা এখন দেখার বিষয়। ২০০০ সালে চট্টগ্রামের একটি আদালতে অস্ত্র আইনের ১০ বছর সাজা হয়েছিল তার। কিন্তু মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার দুই বছর ১০ মাস আগেই কারাগার থেকে বেরিয়ে যান তিনি। একাধিক আইনজীবী ও সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, এই জালিয়াতির ঘটনা সত্য হলে নিজাম হাজারীকে আবার কারাগারে ফিরে যেতে হবে। জালিয়াতির আশ্রয় নেয়ায় তার বিরুদ্ধে নতুন করে মামলাও হতে পারে। সূত্র জানায়, ২০০০ সালের ১৬ই আগস্ট অস্ত্র আইনের ১৯(ক) ধারায় ১০ বছর এবং ১৯(চ) ধারায় সাত বছরের কারাদণ্ড হয় নিজাম হাজারীর। চট্টগ্রাম মহানগরীর ডবলমুরিং থানায় হওয়া মামলায় চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল তাকে এই সাজা দিয়েছিল। উভয় দণ্ড একসঙ্গে চলবে বলে রায়ে বলা হয়। অর্থাৎ ১০ বছর সাজা ভোগ করবেন নিজাম হাজারী। এই আদেশের বিরুদ্ধে নিজাম হাজারী হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেন। উচ্চ আদালত তার সাজা বহাল রাখে। সর্বশেষ তিনি রিভিউ আবেদন করলে আদালত তা খারিজ করে দেয়। সূত্র জানায়, নিজাম হাজারী ১৯৯২ সালের ২২শে মার্চ হাজতে যান। হাজতে যাওয়ার দু’দিন পর (২৪শে মার্চ ১৯৯২) তাকে আটকাদেশ (ডিটেনশন) দেয়া হয়। ওই বছরের ২৮শে জুলাই তিনি জামিন পান। কিন্তু তার আটকাদেশ বাতিল হয় ওই বছরের ১৫ই আগস্ট এবং ওই দিনই তিনি কারাগার থেকে ছাড়া পান। এই হিসাবে নিজাম হাজারী হাজতে ছিলেন ১৯৯২ সালের ২২শে মার্চ থেকে ১৫ই আগস্ট পর্যন্ত মোট চার মাস ২৪ দিন। কোন মামলায় সাজার আদেশ হওয়ার আগে কারাগারে থাকা সময়কে হাজতবাস এবং সাজা ঘোষণার পরের সময়কে কয়েদ খাটা বলা হয়। নথিপত্রে দেখা যায়, পলাতক থাকা অবস্থায়ই ২০০০ সালের ১৬ই আগস্ট ওই মামলায় নিজাম হাজারীকে সাজা দেয় ট্রাইব্যুনাল। ২০০০ সালের ১৪ই সেপ্টেম্বর তিনি আদালতে আত্মসমর্পণ করেন এবং তাকে ওই দিনই কারাগারে পাঠানো হয়। তার কয়েদি নম্বর ছিল ৪১১৪/এ। ২০০৫ সালের ১লা ডিসেম্বর তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পান। অর্থাৎ, কয়েদি হিসেবে তিনি কারাভোগ করেন পাঁচ বছর দুই মাস ১৭ দিন। এই হিসাবে নিজাম হাজারী সাজা ভোগ করেছেন পাঁচ বছর সাত মাস ২১ দিন। তাকে সাজা রেয়াত (মাফ) দেয়া হয়েছে এক বছর ছয় মাস ১৭ দিন। কারাগারে সর্বনিম্ন নয় মাসে বছর ধরা হয়। তবে কত মাসে বছর হবে, তা নির্ধারিত হয় কয়েদির আচরণের ওপর ভিত্তি করে। কারাগারে ঢোকা ও মুক্তি পাওয়ার সময় ধরে নিজাম হাজারী চার মাস ২৪ দিন হাজতবাস করেছেন। কিন্তু তার কয়েদি রেজিস্টারের তথ্য হলো, তিনি তিন বছর দুই মাস ২৫ দিন হাজত খেটেছেন। সূত্র জানায়, নিজাম হাজারীর হাজতি রেজিস্টারের তথ্য কয়েদি রেজিস্টারে স্থানান্তরের সময় তার হাজতবাসের সময় বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে। এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. ছগির মিয়া বলেন, আমি তখন ছিলাম না। তাই তখনকার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই বিষয়ে ভাল বলতে পারবেন। তবে কারাগারের হিসাব বলছে, নিজাম হাজারী দুই বছর ১০ মাস এক দিন কম কারাভোগ করে বেরিয়ে গেছেন।
সূত্র জানায়, মামলাটি বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন অবস্থায় আসামি নিজাম হাজারী নানাভাবে কালক্ষেপণের চেষ্টা চালিয়েছিলেন। বিষয়টি আদালতের নজরে আসে। হাইকোর্টের আপিল আদেশেও বিচারপতি একে বদরুল হক ও বিচারপতি এএফএম মেছবাউদ্দিন বিষয়টি তুলে ধরেন। ২০০১ সালের ১৮ই এপ্রিল এ দুই বিচারপতির বেঞ্চে নিজাম হাজারীর আপিল শুনানি শুরু হয় (ফৌজদারি আপিল ২৩৬৯/২০০০)। একই বছরের ২রা মে তারা ট্রাইব্যুনালের দেয়া সাজা বহাল রেখে রায় দেন। ২০০১ সালের ডিএলআর-৫৩তে এই রায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে এ রিভিউ নিষ্পত্তি হওয়ার পর হাইকোর্টে আপিল করার সুযোগ নেই। কিন্তু বিধি ভঙ্গ করে মুক্ত থাকা অবস্থায় আবারও হাইকোর্টে আপিল করেন নিজাম হাজারী। ২০০৫ সালে কারাগার থেকে বের হওয়ার পর ২০০৬ সালে জেলের বাইরে থেকে হাইকোর্টে আপিল করার বিষয়টিও রহস্যজনক। তবে এসব তথ্য অস্বীকার করেন নিজাম হাজারী। তিনি বলেন, প্রতি তিন মাসে একবার ব্লাড ব্যাংকে রক্ত দিয়ে এক মাস করে আমি সাজা মওকুফ করেছি। এই হিসাবটি না আসায় বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে তিন বছরের ব্যবধানে নিজাম উদ্দিন হাজারীর শুধু টাকা বেড়েছে ৩২ গুণ। একই সঙ্গে বেড়েছে তার স্ত্রীর সম্পত্তিও। এ সময়কালে তার স্ত্রী পাঁচটি ফ্ল্যাট ও রামগড়ে ১৫ একর জমির মালিক হয়েছেন। নির্বাচন কমিশনে নিজাম হাজারীর জমা দেয়া হলফনামা বিশ্লেষণ করে এ তথ্য পাওয়া গেছে। ২০১১ সালের ১৮ই জানুয়ারির নির্বাচনে ফেনী পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন নিজাম হাজারী। এর তিন বছরের মাথায় তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন। পৌর নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া হলফনামায় নিজাম হাজারী নিজের এবং স্ত্রীর নামে থাকা সম্পদের বিবরণ দেন। তাতে দেখা যায়, ওই সময়ে নিজাম হাজারীর নামে ব্যাংকে জমা টাকার পরিমাণ ১০ লাখ আর স্ত্রীর নামে সঞ্চয়পত্র/স্থায়ী আমানত ছিল এক কোটি টাকা। তখন তার কাছে নগদ টাকা ছিল ৫০ হাজার, স্ত্রীর কাছে ছিল ৫০ হাজার টাকা। হলফনামা অনুযায়ী, ২০১১ সাল পর্যন্ত নিজাম হাজারী ৫০ শতাংশ কৃষি জমি ও ৫০ শতাংশ অকৃষি জমির মালিক। তখন স্ত্রীর নামে কোনো জমি বা ফ্ল্যাট ছিল না। নিজামের একটি মোটর গাড়ি থাকার কথা বলা হলেও দাম উল্লেখ করা হয়নি। স্ত্রীর নামে তখন কোনো গাড়ি ছিল না। তবে স্ত্রীর ১০০ তোলা স্বর্ণালঙ্কার ছিল। গত ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের আগে গত ডিসেম্বরে নির্বাচন কমিশনে আবার হলফনামা দেন নিজাম হাজারী। তাতে দেখা যায়, তার আয় বৃদ্ধির তুলনায় সম্পদ অনেক বেশি বেড়েছে। ২০১১ সালে তিনি বাৎসরিক আয় দেখান এক লাখ ৮০ হাজার টাকা। ২০১৩ সালে দেখান ২ লাখ ৪১ হাজার ৪৬৮ টাকা। অর্থাৎ তিন বছরের ব্যবধানে নিজাম হাজারীর বাৎসরিক আয় বেড়েছে ৬১ হাজার ৪৬৮ টাকা। কিন্তু দুই হলফনামা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, তিন বছরের ব্যবধানে নিজাম হাজারীর ব্যাংকে জমা টাকা ১০ লাখ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন কোটি ২৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। কৃষি জমি বেড়েছে তিনগুণ (১৫০ শতাংশ)। গত ডিসেম্বরে তার কাছে নগদ টাকা ছিল পাঁচ লাখ ৩০ হাজার টাকা, আর স্ত্রীর কাছে ৫০ হাজার টাকা। আগে স্ত্রীর নামে ব্যাংকে জমা ছিল না, এ ধাপে এসে স্ত্রীর নামে ব্যাংকে জমা দেখানো হয় দুই লাখ টাকা। সর্বশেষ হলফনামা অনুযায়ী, তিন বছরে নিজামের স্ত্রী পাঁচটি ফ্ল্যাট, ৮ শতাংশ অকৃষি জমি, রামগড়ে ১৫ একর জমি ও ২৭ লাখ টাকার একটি মোটর গাড়ির মালিক হয়েছেন। অবশ্য এ ধাপে স্ত্রীর নামে স্থায়ী আমানত ৫০ লাখ টাকা দেখানো হয়, যা আগে ছিল এক কোটি টাকা। এ ছাড়া, সর্বশেষ হলফনামায় নিজাম হাজারী নিজের ৩০ তোলা এবং স্ত্রীর ১০০ তোলা স্বর্ণ থাকার কথা উল্লেখ করেন। ফেনী জেলা যুবলীগের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, মামলার খরচ যোগাতে ২০০৫ সালে নিজাম হাজারী ১৫ ডিসিমেল সম্পত্তি বিক্রি করেন। কয়েক বছরের ব্যবধানে সেই নিজাম হাজারী শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ