• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন |

দুটি ভুট্টা নেয়ার অপরাধে শিশুর গলায় জুতার মালা

Badarganj photo J
সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ: ক্ষুধার জ্বালা মেটাতে ক্ষেতের দুইটি ভুট্টা ছিড়ে নেওয়ার কারণে রংপুরের বদরগঞ্জে আফরোজা খাতুন(১২) নামে এক শিশু, তার মা ও নানীকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতনকারী শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে প্রকাশ্যে ওই শিশুর গলায় জুতার মালা পরিয়ে তাকে গ্রামে ঘুরানো হয়। এতেই শেষ নয় স্থানীয় এক মৌলভী দিয়ে শিশুটিকে সাতবার কান ধরে উঠবস করিয়ে পড়ানো হয় তওবা। এ ঘটনায় শিশুটির মা ছহিরা বেগম বদরগঞ্জ থানায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করলে পুলিশ লিমন তার মা হাবিবাকে গ্রেপ্তার করে। ন্যাক্কারজনক এ ঘটনাটি ঘটেছে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার কালুপাড়া ইউনিয়নের বৈরামপুরহাট সংলগ্ন সরকারপাড়ায়। মামলা করায় উল্টো প্রভাবশালীদের ভয়ে এখন নির্যাতিত পরিবারটি গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল হক মানিক।
জানা গেছে, রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার কালুপাড়া ইউনিয়নের বৈরামপুর সরকারপাড়ার  ১২ বছরের শিশু কন্যা আফরোজা খাতুন। তার মা ছহিরা বেগম অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজে গিয়েছিল। বাড়িতে তার নানী রাহেনার সঙ্গে ছিল আফরোজা ও তার ছোট ভাই সোহেল বাবু (৮)। মা ভাত নিয়ে বাড়ি ফিরতে দেরি হচ্ছে। কিন্তু পেটের ুধা সইতে পারছিলনা আফরোজা। তাই সে  বাড়ির পাশে বর্গা চাষি ফরিদের তে থেকে ভুট্টার এনে আগুনে পুড়িয়ে ুধার জ্বালা মিটাতে চেয়েছিল। কিন্তু তার ুধা থেকে গেল। জমির মালিক অহিদুল হকের ছেলে তুহিন ও ওই জমির বর্গাচাষীর ফরিদ হোসোনের ছেলে লিমন মিয়া(২৫) ভুট্টা চুরির অপরাধে শিশুটিকে ধরে ফেলে। এক পর্যায়ে টেনে হেচড়ে শিশুটিকে ধরে আনেন তাদের বাড়ীতে। এর পর তারা শিশুটিকে অমানুসিক নির্যাতন করে।  ভুট্টা চুরির অপরাধে শিশু আফরোজার গলায় জুতার মালা পরিয়ে গ্রামে ঘুরায় লিমন ও তুহিন। তবুও ক্ষান্ত হয়নি নির্যাতনকারিরা। তারা গ্রামের আবদুল আজিজ নামে এক মৌলভী দিয়ে শিশুটিকে তওবা পড়ান। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার (১২ মে) রাতে থানায় মামলা হলে, আজ মঙ্গলবার ভোরে পুলিশ শিশু নির্যাতনকারী লিমন ও তার মা হাবিবা বেগমকে গ্রেপ্তার  করে। কিন্তু সরকার দলীয় প্রভাবশালীদের দাপটে পুলিশ নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা না নিয়ে দায়সারা একটি মামলা নেন।
নির্যাতিতার মা ছহিরা বলেন, ভুট্টা ছিড়ি নেওয়ার জন্যে মোর ছাইলটাকে ধরি নিয়া মারছে। পরে চেয়ারম্যানের কাছে বিচার চাবার যায়া হামাকো মারি আহত করি দেচে। বাবা মুই মাইনষের বাড়িত কাজ-কাম করি ছইলগুলাক খাওয়াও। ওইদিন খিদার জ্বালায় ছইলটা ২টা ভুট্টা ভাঙছিল। আর ওই জন্যে হামাক ডাংগে মারি শ্যাষ করছে। চেয়ারম্যান ৭০ টাকা দিয়া হামাক ঔষধ কিনি দেচে।
বর্গা চাষি ফরিদ হোসেন বলেন, ওরা সব সময় ভুট্টা তে নষ্ট করি দেয়। এ নিয়ে কয়েকবার নিষেধ করা হয়। কিন্তু তারা কথা শোনে না। সে জন্যে আমার ছেলে একটা মাইর দেয়।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে উপজেলার কালুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল হক মানিক বলেন, প্রথম দিনের ঘটনা আপোষ করার জন্য একজন মেম্বারকে দায়িত্ব দেই। পরে আবারো নির্যাতন করা হলে তাদের আইনের আশ্রয় নিতে বলা হয়।
বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুর রহমান চৌধুরী বলেন, ঘটনার সত্যতা পাওয়ার পর রাতেই ভিকটিমকে দিয়ে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্য আসামীদের ধরতে চলছে অভিযান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ