• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন |

বাংলাদেশ ব্যাংকের ১৪ কোটি টাকা আত্মসাত

Taka-2ঢাকা : অবশেষে দীর্ঘ পাঁচ বছর পর ঘুম ভেঙ্গেছে বাংলাদেশ ব্যাংক খুলনা কার্যালয়ের শীর্ষ কর্তাদের। ব্যাংকের শ্রেডিং কক্ষ থেকে পাঞ্চকৃত (কেটে টুকরো টুকরো করা) প্রায় ১৪ কোটি টাকা আত্মসাৎ হয়। এতোবড়ো চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটলেও কর্মকর্তারা কার্যত নীরব ছিলেন এ ঘটনায়। শুধুমাত্র তদন্তের নামে দীর্ঘ কালক্ষেপণের পর অবশেষে সম্প্রতি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে মামলায় চার দিন মজুরকে আসামি করা হলেও জড়িত নেপথ্যের শীর্ষ কর্তাদের কোনো দায়ভার দেখানো হয়নি। গত ২৭ মার্চ অত্যন্ত গোপনীয়তার সাথে খুলনা সদর থানায় এ সংক্রান্ত মামলাটি রেকর্ড করা হয়। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত চার আসামির কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, শেখ শাহাদাত হোসেন, মিজানুর রহমান, শেখ আমজাদ হোসেন ও আব্দুল মালেক নামক চার ব্যক্তিকে এজাহারভূক্ত আসামি করা হয়েছে। উল্লিখিত ব্যক্তিরা তৎকালীন সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক, খুলনা শাখায় দিন মজুর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু ঘটনার পরই কোনো রকম জবাবদিহীতা বা আইনের আওতায় না এনেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের কর্ম থেকে অব্যাহতি দেন। ফলে তারা নিরাপদে কেটে পড়তে সক্ষম হন। যদিও ওই সময় ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাসহ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা কয়েকজন কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তবে, পরবর্তীতে তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয় বিতর্কিতভাবে। ব্যাংলাদেশ ব্যাংক ও পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্র জানান, এজাহারভূক্ত আসামিরা দিন মজুর হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক, খুলনা শাখার শ্রেডিং কক্ষে কর্মরত থেকে পুরাতন, ছেঁড়া, ফাটা বা অব্যবহৃত টাকা পাঞ্চ (কেটে টুকরো টুকরো করা) করতেন। ২০০৯ সালের ২৮ এপ্রিল থেকে ওই বছরের ৩ জুন পর্যন্ত ৩৬ দিনে সেখান থেকে মোট ১৩ কোটি ৭১ লাখ ৯৫ হাজার ৫শ’ টাকা চুরির ঘটনা ঘটে। কর্মরত শ্রমিকরা এসব টাকার নোট না কেটে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেটের সহায়তায় বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় বাইরে পাচার করে দেয়। দীর্ঘ ৩৬ দিন এভাবে ব্যাংক থেকে টাকা পাচার হতে থাকলেও তা ছিল ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। সূত্র জানান, পাচারকৃত টাকার একটি অংশ বদল করে নতুন টাকায় রূপান্তর করতে খুলনা থেকে ঈগল পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে করে ঢাকায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নেওয়ার সময় ৪ জুন, ২০০৯ রাজবাড়ী থানার গোয়ালন্দ ফেরীঘাটে পরিবহন তল্লাশীকালে ধরা পড়ে। রাজবাড়ী থানার সাব-ইন্সপেক্টর হায়দার হোসেন বাস তল্লাশীকালে দাবিদার বিহীন একটি বস্তা উদ্ধার করেন। যা খুলে বাংলাদেশ ব্যাংক, খুলনার সীলযুক্ত ২৮ লাখ টাকা পাওয়া যায়। ওই ঘটনায় তিনি রাজবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি নং-১১৫) করেন। এতে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এ ঘটনার জের ধরে তৎকালীন ম্যানেজার (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) মোঃ আব্দুস সাত্তারসহ ১২ কর্মকর্তাকে কর্তৃপক্ষ সাময়িক বরখাস্ত করেন। এছাড়া টাকা উদ্ধারের ঘটনার তিন মাস পর ব্যাংকের পক্ষ থেকে খুলনা থানায় শুধুমাত্র একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়। এর পরই কোনো রকম জবাবদিহীতা বা আইনের আওতায় না এনেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত চার শ্রমিককে কর্ম থেকে অব্যাহতি দেয়। এদিকে, ঘটনার দীর্ঘ সময় পরে গোয়েন্দা সংস্থা সিআইডি (রমনা জোন)’র পক্ষ থেকে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে বিতর্কিত এক তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। সেই বিতর্কিত তদন্ত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতেই গত ২৭ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংক, খুলনা যুগ্ম ব্যবস্থাপক (ব্যাংকিং) জাহাঙ্গীর হোসেন বাদী হয়ে খুলনা সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি থানার সাব-ইন্সপেক্টর কাজী আশরাফ হোসেন তদন্ত করছেন। মামলার সত্যতা স্বীকার করে খুলনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর সুকুমার বিশ্বাস বলেন, অর্থ আত্মসাতের ঘটনাটি বেশ কয়েক বছর আগের। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মামলাটি দায়েরের পর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংক, খুলনার নির্বাহী পরিচালক মোঃ আব্দুর রহিমের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তিনি ব্যস্ততার অজুহাতে কথা বলতে রাজি হননি। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক এবং মুখপাত্র মু. মাহফুজুর রহমান শীর্ষ কাগজকে বলেন, দায়িত্ব অবহেলার জন্য খুলনার শীর্ষ কর্মকর্তাদেরকে আমরা সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছি। এ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে সেখানে ডেইলী লেবার (দিন মজুর) ওই চার ব্যক্তি জড়িত থাকার বিষয়টি উঠে এসেছে। ফলে কর্মকর্তা জড়িত না থাকায় বরখাস্ত আদেশ তুলে নেওয়া হয়েছে। মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আমরা মামলা করেছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ