• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:১২ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

বাবার কলিজা ভক্ষণকারী সিরিয়াল কিলার ফিহো

11আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ব্রাজিলের এদো ঘিঞ্জি পরিবেশে পারিবারিক কলহ আর সমাজের বৈষম্যের ভেতর দিয়ে বড় হয়েছেন পেদ্রো রড্রিগজ ফিহো। শৈশব থেকেই দশটা মানুষের মতো তার জীবনযাপন সাধারণ ছিল না। খুন আর খুনীদের দুনিয়ায় তাকে ডাকা হতো ‘খুনী ছোটো পিটার’। তবে পৃথিবীর অন্যান্য সিরিয়াল খুনীর সঙ্গে ফিহোর কিছু পার্থক্য আছে। বেশিরভাগ সিরিয়াল কিলারদের ক্ষেত্রেই দেখা যায় তারা মানসিক বিকারগ্রস্ততা থেকে একের পর এক মানুষ খুন করে গেছেন। আর ফিহো খুন করেছেন প্রতিশোধ নিতে সেই সকল মানুষকে যারা সমাজের চোখে অপরাধী।

১৯৫৪ সালে ব্রাজিলের সান্তা রিতা দি সাপুচাইয়ের এক গৃহস্থ পরিবারে জন্মান ফিহো। জন্মগতভাবে তার মাথার খুলিতে সমস্যা ছিল। পরবর্তীতে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিল যে ফিহোর মাথার ওই ত্রুটিই তাকে নিখুতভাবে খুন করতে প্ররোচিত করেছিল মানসিকভাবে। মাত্র ১৩ বছর বয়সে ফিহো প্রথম খুনের চেষ্টা করেন। এ চেষ্টা বিফল হলে তিনি খুন করে বসলেন আরফানস শহরের সহকারী মেয়রকে। এই মেয়রের দেয়া চোরের অপবাদের কারণে ফিহোর বাবাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। সেই ক্ষোভ থেকেই তিনি মেয়রকে খুন করেন। তবে মেয়রকে খুন করেই তিনি ক্ষান্ত দেননি। সত্যিকারের যে চোরের জন্য তার বাবাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল সেই চোরকেও খুন করেন।

পরপর দুটো খুনের পর ফিহোব্রাজিলের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়াতে থাকেন আর তার কাজ করতে থাকেন। এসময় তিনি ব্রাজিলের কুখ্যাত এক মাদক ব্যবসায়ীকে খুন করেন। প্রতিশোধ পরায়ণ ফিহোর বয়স ১৮ হওয়ার আগেই তার হাতে মোট দশজন মানুষ খুন হয়।

বেপরোয়া জীবন আর খুনের বোঝা মাথায় থাকার কারণে কোথাও স্থির হতে পারেননি ফিহো। একদিন নিজের বাবাকে খুন করে বসেন তিনি। কারণ ফিহোর বাবা তার মাকে ধারালো ছুরি দিয়ে হত্যা করেছিল। আর তাই তিনি তার বাবার বুক বরাবর ছুরি চালিয়ে কলিজা বের করে আনেন। শুধু তাই নয় সেই কলিজার কিছু অংশ তিনি ভক্ষণও করেছিলেন বলে ব্রাজিল পুলিশের নথিপত্র মারফত জানা যায়।

১৯৭৩ সালে রড্রিগজ ফিহো পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন ফিহো। প্রায় একশ জনকে খুন করার দায়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। যদিও ৭১টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা প্রমাণ করা গিয়েছিল। ব্রাজিলের আদালত তাকে ১২৮ বছরের কারাদণ্ড দেয়। কিন্তু ব্যবহার ভালো হওয়ার কারণে এবং অন্যান্য দিক বিবেচনায় ২০০৭ সালে তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

কারাগারে থাকাকালীন সময়ে সাধারণ কয়েদিদের মধ্যে ফিহো বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। কারণ তিনি ছিলেন সমাজে ত্রাস সৃষ্টিকারী সন্ত্রাসীদের হন্তারক। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর ফিহোর আর কোনো অপরাধের কথা শোনা যায়নি। এমনকি তিনি এখন কোথায় বাস করছেন, নাকি মারা গেছেন সে সম্পর্কেও কিছুই জানা যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ