• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৪:৪৯ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
প্রথম দিনেই পদ্মা সেতু থেকে টোল আদায় ২ কোটির বেশি পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

ভালোবাসা শক্তি জোগায়

Loveবিনোদন ডেস্ক: সবকিছুর মধ্যেই হতাশা খুঁজে বেড়ানোর বদলে ভালোবাসা আমাদের আরও বেশি আত্মবিশ্বাস নিয়ে জীবনকে সামলাতে সহায়তা করে। ছবিটি প্রতীকীভালোবাসা মানে কেবল কারও প্রেমে পড়া নয়, ভালোবাসা মানে জেগে ওঠা, জীবনকে নতুন করে সাজাতে ঘুরে দাঁড়ানোও। জার্মান মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, একটা রোমান্টিক সম্পর্ক তরুণ-তরুণীদের নেতিবাচক আবেগ কমায় এবং ব্যক্তিত্বের বিকাশে কার্যকর ভূমিকা রাখে। সব মানুষের মধ্যে থাকা পাঁচটি সাধারণ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অন্যতম ‘নিউরোটিসিজম’ নিয়ে গবেষণা চালিয়ে জার্মান মনোবিজ্ঞানীরা এই দাবি তুলেছেন। ইন্দো এশিয়ান নিউজ এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

‘নিউরোটিসিজম’ হলো মানুষের মৌল চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের এমন একটি দিক, যা থেকে আমাদের মধ্যে উদ্বেগ, দুশ্চিন্তা, ঈর্ষাকাতরতা, দ্বেষ এবং কোনো বিষয়ে মানসিক আচ্ছন্নতা ইত্যাদি প্রবণতার কম বা বেশি উপস্থিতি বোঝা যায়।

জার্মানির ইয়েনা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী ক্রিস্টিন ফিন বলেন, ‘নিউরোটিক মানুষেরা সাধারণত উদ্বেগ আক্রান্ত হয়ে থাকেন, অনিরাপদ বোধ করেন এবং সহজেই বিরক্ত হয়ে যান। তাঁদের মধ্যে বিষণ্নতার প্রবণতা থাকে এবং অনেক সময়ই তাঁরা আত্মমর্যাদাবোধ হারিয়ে ফেলতে পারেন। আর সাধারণত এমন মানুষেরা নিজেদের জীবন নিয়ে অতৃপ্তিতে ভোগেন।’

এই মনোবিজ্ঞানী আরও বলেন, ‘আমরা দেখতে পেয়েছি যে নিউরোটিক মানুষেরা ভালোবাসার সম্পর্কে জড়ালে অনেকটাই স্থিতিশীল হয়ে ওঠেন এবং তাঁদের ব্যক্তিত্ব স্থিত হয়।’

এই গবেষণার জন্য ভালোবাসার সম্পর্কে জড়ানো ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সী ২৪৫টি জুটিকে নয় মাস ধরে পর্যবেক্ষণ করেন এবং তিন মাস পর পর প্রত্যেক তরুণ-তরুণীর আলাদা সাক্ষাত্কার নেন মনোবিজ্ঞানীরা। একটা বিশেষ প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে মনোবিজ্ঞানীরা তরুণ-তরুণীদের মধ্যে নিউরোটিসিজমের প্রভাব এবং ভালোবাসার সম্পর্কের বিষয়ে তাঁদের সন্তুষ্টি পর্যালোচনা করেন।

পাশাপাশি এই গবেষণার জন্য দৈনন্দিন জীবন-যাপনের নানা ঘটনা এবং সঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্কের ওপর সেগুলোর সম্ভাব্য প্রভাব নিয়েও মনোবিজ্ঞানীদের সঙ্গে কথা বলতে হয়েছে অংশগ্রহণকারীদের। মনোবিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছেন, ভালোবাসা বা প্রেমের সম্পর্কে জড়ানোর পর তরুণ-তরুণীদের মধ্যে ধীরে ধীরে নেতিবাচক আবেগ কমে আসতে থাকে।

মনোবিজ্ঞানী ফিন বলেন, ‘সবকিছুর মধ্যেই হতাশা খুঁজে বেড়ানোর বদলে ভালোবাসা আমাদের আরও বেশি আত্মবিশ্বাস নিয়ে জীবনকে সামলাতে সহায়তা করে।’

জার্নাল অব পারসোনালিটিতে প্রকাশিত এই গবেষণা প্রতিবেদনে মনোবিজ্ঞানীরা মন্তব্য করেন, ‘একটা সম্পর্কে জড়ানোর মধ্য দিয়ে তরুণ-তরুণীরা শুধু জিততেই পারেন।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ