• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

মোশাররফ করিমের শাস্তি দাবি সৌদি প্রবাসীদের

76800_1ঢাকা: দেশের বেসরকারি এক স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত ধারাবাহিক নাটক ‘মাইক’ এর অভিনেতা মোশাররফ করিম, পরিচালক, প্রযোজকসহ পুরো ইউনিটের শাস্তি দাবি করেছে সৌদি আরব প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

মাইক নাটকের বিভিন্ন পর্বে অভিনেতা মোশাররফ করিমের জবানিতে প্রবাসীদের ব্যাপারে কুরুচিপূর্ণ সংলাপ প্রচার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন তারা।

জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে নানা ব্যক্তি এবং বাঙালি কমিউনিটির বিভিন্ন ফ্যান পেজে এ নিয়ে অনেক পোস্ট লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আর ওই পোস্টগুলোর সমর্থনে হাজার হাজার লাইক ও কমেন্টও পড়ছে।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা অভিযোগ করছেন, সৌদি আরব প্রবাসী মানেই ক্লাস ফাইভ ফেল, অশিক্ষিত। প্রবাসীরা সৌদি আরবে রাস্তা ঝাড়ু, মরুভূমিতে ছাগলের রাখালের কাজ করেন। আর দেশে গিয়ে রঙিন শার্ট-প্যান্টের সঙ্গে সাদা ক্যাডস পরে গায়ে সুগন্ধি মেখে এলাকায় চাপাবাজি করে বেড়ান। বিয়ের জন্য পাত্রী খোঁজেন।

জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম অভিনীত এই নাটকের বেশ কয়েকটি পর্বে বেশ কয়েকবার মোশারফ করিমের কমন একটি সংলাপ ছিল ‘সৌদি আরব যায় ফকিরনির পোলারা, আমার কি টাকা পয়সার অভাব আছে’। পুরো নাটকেই সৌদি প্রবাসীদের দেখানো হয়েছে আনকালচার্ড, গেঁয়ো ভূত হিসেবে।

প্রবাসীদের এমন অবমাননায় ক্ষোভ প্রকাশ করে সৌদি আরব প্রবাসী ব্লগার মোহাম্মদ আমিনুল হুদা শাহীন বাংলানিউজকে বলেন, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের খাত হলো বিদেশের শ্রমবাজার। আর সৌদি আরব এক্ষেত্রে প্রধান। সৌদি আরব থেকে প্রতিমাসে যে পরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে যায়, তা অন্য কোনো দেশে থেকে যায়না।

কোথায় সরকার, রাষ্ট্র, সমাজ প্রবাসীদের কাজের স্বীকৃতি দেবে, তাদের উৎসাহ দেবে তা নয়, বরং তাদের বিভিন্ন নাটক সিনেমায় হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, সৌদিতে ঝাড়ুদার হিসেবে কাজ করা প্রবাসীরা নিশ্চয় দেশের ভূমিদস্যু, চোর, ব্যাংক ডাকাত থেকে নিকৃষ্ট নয়! আমরা এহেন ন্যাক্কারজনক কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানাই এবং সংশ্লিস্ট অভিনেতা, নাট্যকার, প্রযোজক, পরিচালকের দৃস্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

সৌদি রাজপরিবারের চিকিৎসক দলের সদস্য ডা. আরিফুর রহমান তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, মাইক নাটকের অভিনেতা মোশাররফ করিম ও নাট্যকারের ক্ষমা চাওয়া উচিত।

এই নাটকটি শ্রমিকদের জন্য অপমানজনক উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, তারা (প্রবাসীরা) গতরে খেটে খায়, আপনাদের মতো সন্ত্রাস আর চুরি করে খায়না।

এ নিয়ে ডা. আরিফুর রহমান ডব্লিউবিসি ফ্যানপেজের একটি ছবি শেয়ার করলে সেখানে রিয়াদ কমিউনিটির বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণ ব্যক্তিরা মন্তব্য করেছেন।

ওই পেজে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল রিয়াদের (বাংলা শাখা) সাবেক চেয়ারম্যান বিশিষ্ট সাহিত্যিক ফিরোজ খান লিখেছেন, আমিও এ বিষয়ে একমত। ইদানিং বাংলা নাটকে সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রচণ্ডভাবে ‘আন্ডারমাইন’ ও ‘হিউমিলিয়েট’ করা হচ্ছে ।

এসব নাটকের রচিয়তাদের সাবধান করে দেওয়া উচিৎ বলেও মনে করেন তিনি।

মোহাম্মদ শানু নামে আরেকজন প্রবাসীও পরিচালক ও অভিনেতাকে নিয়ে বিষোদগার করেছেন।

সৌদি আরবে কর্মরত প্রকৌশলী রাশেদ বলেন, হালাল পথে রোজগার করা কোনো কাজকেই কটাক্ষ করা উচিত না। হোক সে ক্লিনার কিংবা সুইপার। দেশে রাজনীতির নামে দুর্নীতি করছে যারা, তাদের বিরুদ্ধে একটি নাটক বানানোর মুরোদ নেই, আর যারা হালাল পথে রোজগার করে, সেই প্রবাসীদের ছোটভাবে উপস্থাপন করছে। ওই সমস্ত নির্মাতাদের স্রেফ বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, গর্দভ ছাড়া আর কিছু বলা যায় না।

সৌদি আরবের তেল সমৃদ্ধ শহর দাম্মামে কর্মরত ফরহাদ হোসাইন তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এভাবে, ‘আমি নাটক কম দেখি এখন। তবে যখন প্রবাসীদের হেয় করা নাটক চোখে পড়ে, তখন মাথার চুল পর্যন্ত দাঁড়িয়ে যায় জিদে।

একটা নাটকে দেখলাম, বিদেশ থেকে বিয়ে করতে যাওয়া একজনকে দেখিয়ে নাটকের অন্য চরিত্রে থাকা আরেকজন বলছে, গাধারা বিদেশ থেকে আইসা আমাগো গ্রামের মাইয়া বিয়া কইরা নিয়া যাইবো! এত্ত সহজ?’

এই নাটকের সব কলাকুশলীদের অবিলম্বে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যতায় সৌদি আরব থেকে রেমিট্যান্স পাঠানো বন্ধ করে দেওয়া হবে বলেও হুশিয়ারি দেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ