• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন |

সেলুলয়েড যৌনতার নন্দন কাব্য

mastraসাহিত্য ডেস্ক: যৌনতা আর তার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা শব্দ শিরোনামে থাকলে যে সংবাদমাধ্যমের কাহিনির কাটতি রে-রে করে বেড়ে যায়, এ আমার বহু বার দেখা! রেগে যাবেন না, প্লিজ! যৌনতার দাবির কাছে সব জাতি-ই অসহায়। এবার, সেই পথে সহজে নিজের লেখাকে পাঠকের নজরে ফেলতে চাইলে একটা দাবিরও মুখোমুখি দাঁড়াতে হয়। সেটা নান্দনিকতার।

মশলা ঢাললেই যে রান্না ভাল হয়, তা তো নয়। আশির দশকের ‘মস্তরাম নামে অজ্ঞাত-পরিচয় উত্তর ভারতীয় ইরোটিকা-লেখকের কল্পিত বায়োপিক বানাতে গিয়ে পরিচালক অখিলেশ জয়সবালও দাঁড়িয়েছিলেন সেই নান্দনিকতার দাবির মুখে। এবং তিনি যে ষোল আনা উতরে গিয়েছেন, সেটা ‘মস্তরাম দেখলেই বোঝা যাবে।

কিন্তু তার আগে একটা প্রশ্ন ওঠে। ‘অমার্কা ‘মস্তরাম’ ছবির ফোকাস পয়েন্ট-টা কোথায়? কী দেখাতে চাইছেন আমাদের পরিচালক? মুচমুচে যৌনদৃশ্য এবং তার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা একটা কাহিনি? ‘মস্তরাম দেখতে বসলে ঠিক এই জায়গাটায় এসে একটা বড়সড় ধাক্কা খেতে হয়। ‘মস্তরাম কখনই যৌনতাকে অবলম্বন করে এগোয় না। বরং ইরোটিকা জন্মের গল্প বলে! কীভাবে কলম থেকে চুঁইয়ে নামে যৌনতা, বলে সেই কথাই। ‘মস্তরাম তাই আগাগোড়া এক লেখকের গল্প। জীবনের মশলা নিয়ে যার পথ চলা।

এদিকে সমস্যা হল, এমন লেখক জনপ্রিয় হলেও সমাজ কি তাঁকে সাহিত্যিক তকমা দেয়? না কি গোপনীয়তার আড়ালেই কেবল উপভোগ করতে হয় তাঁর শব্দসঞ্চয়? ছবির ঠিক শুরুতেই এই জায়গাটায় ঘা মারেন অখিলেশ। যেখানে এক হস্টেলের ডর্মিটরিতে, রাতে একটা বিছানা থেকে টর্চের আলো ঠিকরে এসে বিদ্ধ করে অন্ধকারকে।

সেই আলো ঘুরতে থাকে। দেখা যায়, গোটা ডর্মিটরি জুড়ে ছেলেরা বিছানায় কাঁপছে! আর একটা বিছানায় একটা ছেলে পড়ে চলেছে টাটকা তাজা, হাতে গরম হিন্দি ‘হেটো বই! সেই বই, যার থেকেই জন্ম নিয়েছে মস্তরাম। আর তখনই, ওই ডর্মিটরিটাই যেন বা চেহারা নেয় গোটা দেশের। অখিলেশও বুঝিয়ে দেন, তাঁর ছবির কারবার এই সাহিত্য নিয়ে।

সেই জন্যই ‘মস্তরাম ছবি জুড়ে ফ্রেমের পর ফ্রেমে চলে নান্দনিকতার সফর। এই ছবির মজা যতটা না লুকিয়ে রয়েছে চিত্রনাট্যে, তার চেয়েও বেশি করে রয়েছে গেভমিক অ্যারি-র সিনেম্যাটোগ্রাফিতে। মানালির প্রেক্ষাপটে কাচের জানলায় শরীরের ছায়া পড়া, বৃষ্টি নামা, পাহাড়ি পথের চড়াই-উতরাই, সিঁড়ি ভাঙা, দরজার পাল্লা বন্ধ হওয়া, কুয়াশা, আবছায়া, স্প্রিং খাটের ওঠা-পড়া, সিরিঞ্জ থেকে ছিটকে আসা ওষুধ, উদ্দাম ঝর্না আর তার পাশে গাছের ডাল- সব কিছুই যৌন উপমা হয়ে উঠে আসে ছবিতে। ঠিক যেমনটা সাহিত্যে হয়, তেমন করেই। সরাসরি যৌনদৃশ্য ছবিতে দেখা যায় মাত্র তিন বার! এই সংবেদনশীলতা নিঃসন্দেহে ছবিটাকে তৃপ্তির তূরীয় দশায় পৌঁছে দেয়।

তা বলে, সেই উদযাপনে চিত্রনাট্যের ভূমিকা নেহাত ফেলনাও নয়। সাহিত্য, বিশেষ করে ইরোটিকা যেমন মানুষের মন নিয়ে খেলে, তেমন করেই খেলতে খেলতে ছবিতে গল্প বলেন অখিলেশ। একেকটা সময়ে তাঁর আর গুঞ্জন সাক্সেনার যৌথ চিত্রনাট্য এক টানে দর্শকেরও মুখোশ খুলে দেওয়ার খেলায় নামে। বিশেষ করে যখন মস্তরাম রাইটার্স ব্লকে জড়িয়ে পড়ে, লিখতে না পেরে প্রিয় বন্ধু আর বউয়ের সম্পর্ককে সন্দেহের দৃষ্টিকোণ থেকে ইরোটিকার বিষয় করে তোলে, সেই মুহূর্তে রীতিমতো অস্বস্তিতে পড়তে হয়! কেননা, সারা ছবি জুড়ে দর্শকেরও তাদের দেখতে দেখতে খটকা লাগে, অথচ নেহাত লিখেছে বলেই দোষের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকে একা, একলা মস্তরাম। পাশাপাশি, লেখকের যন্ত্রণা, তাঁর হারানো শব্দের খোঁজ, উপহাসের খোরাক হওয়া- তারও নিপুণ কথনে মুগ্ধ করে ছবিটি।

‘মস্তরাম’ ছবির সবচেয়ে উপভোগের জায়গা এই সাহিত্যিকের টানাপোড়েনই! পর্নোগ্রাফিকে বিষয় করে ছবি বানাতে গেলেই পরিচালক-প্রযোজকরা সাধারণত তার অন্ধকার দিকটাকে বিক্রি করেন। যৌনতার ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা মানুষদের কষ্ট দেখিয়ে পয়সা তোলার একটা প্রবণতা সেলুলয়েডের থাকে। অখিলেশের ছবি তার পুরোপুরি উল্টো পথে হাঁটে। এই ছবি কখনই যৌনতাকে অন্ধকারে লুকিয়ে রাখার কথা বলে না। বরং যা ঘটে, তাকেই নিরপেক্ষভাবে বর্ণনা করে চলে।

‘মস্তরাম’-কে কেউ কোনও দিন না দেখে থাকলেও রাহুল বগ্গা যে খুব বিশ্বাসযোগ্য এই চরিত্রে, সেটাও ছবি দেখে মেনে নিতেই হয়। তিনি-ই সাবলীলভাবে গোটা ছবিটাকে টেনে নিয়ে গিয়েছেন। বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করে, মস্তরামের জীবন এরকমই ছিল! অবশ্য লেখকের স্ত্রীর চরিত্রে তারা আলিশা বেরি-র অভিনয়ও মন ছুঁয়ে যাবে।

আর ছবি শেষ হলে, হল থেকে বেরিয়ে ফুটপাথে যদি ‘হেটো’ বিক্রি চোখে পড়ে, সেটা একবার অন্তত হাতে নিয়ে উল্টে দেখতে ইচ্ছে হবে। মস্তির জন্য নয়, মস্তরামের জন্য! সেখানেই জিতে যায় অখিলেশ জয়সবালের প্রথম ছবি।

পরিচালনা : অখিলেশ জয়সবাল
প্রযোজনা : সঞ্জীব সিংহ পাল, অজয় রাই
চিত্রনাট্য : অখিলেশ জয়সবাল, গুঞ্জন সাক্সেনা
সিনেম্যাটোগ্রাফি : গেভমিক অ্যারি
অভিনয় : রাহুল বগ্গা, তারা আলিশা বেরি প্রমুখ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ