• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

হাতিবান্ধায় বিপাকে কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডাররা

Hatibandha Photo-01হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধার কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডার(সিএসইচসিপি) কর্মীরা গত পাঁচ মাস ধরে বেতন না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছে। এতে করে আর্থিক সংকটে মাঝে থেকে অনেক দূর-দূরান্তের গ্রামে অবস্থিত কমিউনিটি কিনিকে গিয়ে সেবাদানে নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাদের।
জানা গেছে, হাতীবান্ধা উপজেলার মোট ৩১ টি কিনিকে প্রায় ৩০ জন কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডার (সিএএসইসিপি) কর্মরত আছেন। ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে সর্বশেষে বেতন ভাতা উত্তোলন করেন তারা। কিন্তু এরপর থেকে চলতি মে মাস পর্যন্ত কোন প্রকার বেতন ভাতা পাচ্ছেন না কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডার (সিএএসইসিপি) কর্মীরা। ফলে তাদের আর্থিক দৈনতার মাঝে গ্রামের মানুষজনকে সেবা দিতে হিমশিমে পড়তে হয়।
হাতীবান্ধা উপজেলার নিজ শেখ সুন্দর গ্রামের কমিউনিটি কিনিকে কর্মরত হেল্থ প্রোভাইডার আব্দুল মান্নান জানান, প্রায় ৫ মাস পেরিয়ে গেলেও কোন বেতন ভাতার খবর নেই। ফলে অর্থ কষ্টের মাঝে সাধারণ মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত বেতন ভাতা পরিশোধের দাবি জানান তিনি।
একই কথা বলেন আমঝোল কমিউনিটি হেল্থ প্রোভাইডার রফিকুল ইসলাম। তার ভাষ্য মতে, প্রতিটি কমিউনিটি কিনিকে সর্বোচ্চ ৬ থেকে ৭ হাজার মানুষজনকে স্বাস্থ্য সেবা দেয়া হয়। অথচ যারা এই সেবা নিশ্চিত করছে তাদেরকেই মাসের পর মাস ধরে বেতন ভাতা জন্য অপেক্ষা করতে হয়। আবার চলতি বছরের চাকুরি হরানোর ভায়। সরকার কমিউনিটি হেল্থ প্রোভাইডারদের চাকুরি জাতীয় করন না করলে পথে বসতে হবে। তাই সরকারের কাছে এমন সমস্যার সমাধান চায় বেজগ্রাম কমিউনিটি হেল্থ প্রোভাইডার আতাউর রহমান।
সুত্র মতে, দেশের জনগণকে মানসম্মত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে ১৯৯৮ সালের ২৮ জুন তৎকালিন আওয়ামীলীগ সরকারের আমালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সেক্টর কর্মসূচী বাস্তবায়ন পরিকল্পনার একটি প্রকল্প অনুমোদিত করা হয়। পরে ওই বছরের ১ জুলাই থেকে স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সেক্টর কর্মসূচীটি বাস্তবায়নের কাজ শুরু করে।
এই অবস্থায় ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার দায়িত্ব নেয়ার পর কমিউনিটি কিনিক পুনরুজ্জীবিতকরণের ল্েয সারাদেশে প্রায় ১০ হাজার ৬২৪ টি কমিউনিটি কিনিক চালু করে সরকার। পরে ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় ‘রিভাইটালাইজেশন অব কমিউনিটি হেলথ কেয়ার ইনিশিয়েটিভস ইন বাংলাদেশ (আরসিএইচসিআইবি) নামক একটি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়। ওই প্রকল্পের অধিন মানুষের স্বাস্থ্য সেবাদানে প্রতিটি কিনিকে একজন করে কমিউনিটি হেল্থ প্রোভাইডার নিয়োগ দেয় হয়। দায়িত্বরত এসব হেল্থ প্রোভাইডার দীর্ঘদিন ধরে নিয়মিত বেতন ভাতা তুললেও। চলতি বছর জানুয়ারি থেকে আজ অবধি কোন বেতন ভাতা তুলতে পারেননি বলে জান গেছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. বিমল কুমার বর্মণ জানায়, ওইসব হেল্থ প্রোভাইডার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা প্রকল্পের অধিনে সেবা দিচ্ছে। তাদের বেতন ভাতা বাকি থাকলেও তা একবারে পরিশোধ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ