• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন |

খানসামায় সরকারী ছুটির দিনে কারিতাসের ঋণের কার্যক্রম!

Takaসিসি নিউজ: সরকারী ছুটি উপেক্ষা করে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় কারিতাস নামের একটি সংস্থা মঙ্গলবার বৌদ্ধ পূর্নিমার দিনেও তাদের ঋণের কার্যক্রম অব্যহত রাখার অভিযোগ মিলেছে। সরকারী ছুটির দিনেও এমন কার্যক্রম নিয়ে গোটা উপজেলায় ওই সংস্থাটির প্রতি সাধারণ মানুষের মাঝে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

সূত্র মতে, গতকাল মঙ্গলবার ছিল বৌদ্ধ পূর্নিমার জন্য সরকারী ছুটির দিন। ওই দিনেও কারিতাস আঙ্গারপাড়া ইউনিটের মাঠ কর্মী দবুরুল ইসলাম ছাতিয়ানগড় গ্রামের ভাদুশা পাড়ার সূর্য তরুণ দলের সদস্যদের কাছে ঋণের সাপ্তাহিক কিস্তির টাকা আদায় করতে যায়। কিন্তু সরকারী ছুটির দিনে কিস্তি নেয়া হয়না বলে দরিদ্র সদস্যরা তা সংগ্রহ করে রাখায় কিস্তির টাকা প্রদানে ব্যর্থ হয়। অপরদিকে কিস্তির টাকা আদায়ের লক্ষ্যে মাঠ কর্মী দবুরুল ইসলাম সমিতির সদস্যদের চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এতে সদস্যদের সাথে ওই মাঠ কর্মীর কথা কাটাকাটি হয়। পরে গ্রামবাসীর হস্তক্ষেপে মাঠ কর্মী শারিরীক লাঞ্চিত থেকে রক্ষা পায়।

সমিতির সদস্য একরামুল, আলেফা, শামসুন নাহার জানান, সরকারী ছুটির দিন বলে আমরা কিস্তির টাকা সংগ্রহ করে রাখি নাই। কিন্তু মাঠ কর্মী উঠানে এসে কিস্তির টাকার জন্য নানা ধরনের অপমানজনক কথা বলে টাকা আদায়ের চেষ্টা করে। এক প্রশ্নের জবাবে সদস্যরা বলেন, আমরা নিয়মমাফিক কিস্তির টাকা প্রদান করি।

কারিতাসের মাঠ কর্মী দবুরুল ইসলাম জানান, উর্ধতণ কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কিস্তির টাকা আদায় করার জন্য মাঠে এসেছি।

মাঠ কর্মীকে ঋণের কিস্তির টাকা আদায়ের জন্য মাঠে পাঠানোর কথা অকপটে স্বীকার করে আঙ্গারপাড়া ইউনিট ম্যানেজার ছালেউর রহমান বলেন, বকেয়া টাকা উত্তোলনের জন্য পাঠানো হয়েছে মাঠ কর্মীকে। তিনি নিজেও কিস্তির টাকা উত্তোরনের জন্য ফিল্ডে রয়েছেন বলেন সিসি নিউজকে জানান।

এ ব্যাপারে ছাতিয়ানগড় উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোরঞ্জন রায় সিসি নিউজকে জানান, গ্রামের দরিদ্র মানুষদের নিয়ে এনজিওগুলো তাদের ক্রেডিট প্রোগ্রাম চালু করেছে। তাই দরিদ্র মানুষের সুবিধা-অসুবিধাগুলো অবলোকন করে তাদের কার্যক্রম চালানো উচিৎ।

কথা হয় কারিতাস, খানসামা সদর ইউনিটের এরিয়া ম্যানেজার আমিনুল ইসলামের সাথে। তিনি ছুটির দিনে কিস্তি আদায়ের বিষয়টি জ্ঞাত নয় বলে জানান।

খানসামা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সহিদুজ্জামান শাহ এ বিষয়ে বলেন, দরিদ্র মানুষেরা উপার্জন করে কিস্তির টাকা প্রদান করে। অনেক সদস্য রয়েছেন কোন অফিসে দিনমজুরীতে কাজ করেন, আবার কেই আছেন অন্যের বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করেন কিংবা কেউ কর্জ নিয়ে ওই দিনের কিস্তি প্রদান করে থাকেন। কিন্তু সরকারী ছুটির দিনে অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমায় বন্ধ থাকায় তা অবশ্যই সমস্যার সৃষ্টি হবে। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলে সিসি নিউজকে নিশ্চিত করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ