• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

পার্বতীপুরে স্ত্রী ও পুত্রের লাঠির আঘাতে মুড়িবিক্রেতা নিহত

PARBATIPUR PIC 2পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের পার্বতীপুরে সুবাস চন্দ্র (৪৮) নামে এক মুড়ি বিক্রেতা দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী ও সন্তানদের হাতে নিহত হয়েছেন। নিহত সুবাস পার্বতীপুর উপজেলার হাবড়া ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত হরিপদ রায়ের ছেলে। আজ বুধবার সকাল ৭টার দিকে পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দ্বিতীয় স্ত্রী জোসনা বালা সহ ৫ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, নিহত সুবাস চন্দ্র রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত গনপতির বিধবা স্ত্রী জোসনা বালাকে ৮ বছর পূর্বে দ্বিতীয় বিয়ে করে (হিন্দু ধর্মে বিধবা বিয়ে না হওয়ায় মালা বদল করে)। সুবাস চন্দ্রের প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও চার মেয়ে এবং জোসনা বালার প্রথম পক্ষের তিন ছেলে থাকায় বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে তাদের মাঝে দাম্পত্যকলহ শুরু হয়। দাম্পত্যকলহ চরম আকার ধারণ করলে তিন বছর পূর্বে জোসনা বালা আগের স্বামীর সন্তানদের নিয়ে একই গ্রামে আলাদা বসবাস শুরু করে। কিন্তু পাশাপাশি বাড়ী হওয়ায় প্রায় সুবাসের সাথে জোসনা বালা ও সুবাস চর্ন্দের ঝগড়া লেগেই থাকতো। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সুবাস চন্দ্র পার্শ্ববর্তী চৌরাস্তা বাজার থেকে মুড়ি বিক্রি করে বাড়ির খুলিয়ানে এসে জোসনাকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ শুরু করে। এসময় জোসনা বালা, তার ছেলে নিতেষ ও প্রদিপ এসে সুবাসকে বেদম মারপিট করলে ঘটনা স্থলেই সে নিহত হয়। হত্যাকান্ডে ঘটিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসিরা জোসনা বালা, ছেলে প্রদিপ চন্দ্র, পুত্রবধু সন্ধ্যা রানী, দেবর (আগের স্বামীর ভাই) নিবেশ চন্দ্র ও নিবেশ চন্দ্রের স্ত্রী প্রতিমা রানীকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরে সকাল ৭টার দিকে পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে এবং আটককৃতদের থানায় নিয়ে আসে।  PARBATIPUR PIC 1
এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে পার্বতীপুর মডেল থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোসাদ্দেক হোসেন নিশ্চিত করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ