• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নবাবগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসে দালাল ছাড়া মিলছে না সেবা !

Oniomএকলাছুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর): খসড়া প্রকাশনা ও আপত্তি দায়েরের ক্ষেত্রে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসে ভুমি মালিকদের নানা হয়রানীর অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেন কতিপয় দালাল নিয়োগ করে এ হয়রানী করছে বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগিদের অভিযোগ, নবাবগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসে দালাল ছাড়া মিলছে না সেবা।
প্রজাস্বত্ব বিধিমালার ২৯ বিধি মোতাবেক খসড়া প্রকাশনা দেয়ার কথা। খসড়া প্রকাশনা কালে কমপে এক মাস ডি.পি খতিয়ান ভূমি মালিকের দেখার জন্য খোলা রাখার বিধান থাকলেও সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেন অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের জন্য সবকিছুই করছে গোপনে। ডি.পি খতিয়ানে ভূলত্রুটি সারতে ভূমি মালিকদের দালালদের খপ্পড়ে পড়তে হচ্ছে।
ডি.পি চলাকালীন নির্দিষ্ট ফরমে নির্ধারিত কোর্ট ফি মাত্র ৫ টাকা দিয়ে  আপত্তি কেস দায়ের করার আইনী সুযোগ থাকলেও দালালরা এ কাজে নিচ্ছে ৩ থেকে ১০ হাজার টাকা। প্রতিটি কর্মদিবসে দালালদের মাধ্যমে সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেন ৫ থেকে ১৫ টি আপত্তি কেস নিস্পত্তি করছেন।
সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেন অভিযোগের বিষয়ে কোন মন্তব্য না করলেও বলেছেন, উদ্ধর্তন কর্তপক্ষ সবকিছুই জানেন। মিডিয়ায় প্রকাশ করে কিছুই হবে না।
সরজমিনে নবাবগঞ্জ সেটেলমেন্ট অফিসে একাধিক দালালের অস্তিত্ব দেখা গেছে। আপত্তি দায়ের করতে আসা ভুমি মালিক মোকলেছার রহমান, আ: রউফ, মোমিনুর ইসলাম, জহুরুল ইসলাম সহ সকলেরই একই অভিযোগ সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেনের কাছে দালাল ছাড়া আপত্তি দায়ের কেস আলোর মুখ দেখে না।
ভুক্তভোগিরা আরো জানিয়েছে, প্রতিটি মুদ্রিত খতিয়ানের বিক্রয় মূল্য ৬০/= টাকা নগদে ডিসিআরে মাধ্যমে নেয়ার বিধান থাকলেও সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আকতার হোসেনের নিযুক্ত দালালদের দিতে হচ্ছে ৫শ’ থেকে দুই হাজার টাকা।
ভূমি মালিকরা হয়রানী রোধে উদ্ধর্তন কর্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ