• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:০০ অপরাহ্ন |

নূর হোসেনের দেহরক্ষী দুটি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার

nurনারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি পলাতক নূর হোসেনের অস্থাবর সব সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার প্রশাসন এ ব্যাপারে অভিযান চালাবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।

বুধবার সন্ধ্যায় পুলিশের আবেদনে জেলার সিনিয়র বিচারক হাকিম কে এম মহিউদ্দিন এই আদেশ দেন। নারায়ণগঞ্জ আদালতে পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান আদেশের সত্যতা স্বীকার করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মামুনুর রশিদ মণ্ডল তিন দিন আগে এই আবেদন করেছিলেন বলে জেলা পুলিশ সুপার খন্দকার মহিদ উদ্দিন জানিয়েছেন।

গত ২৭ এপ্রিল একসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, নজরুলের গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার এবং তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক ইব্রাহিম অপহৃত হন।

পরদিন ২৮ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন নজরুল ইসলামের স্ত্রী। কাউন্সিলর নূর হোসেনকে প্রধান করে মামলায় আসামি করা হয় মোট ১২ জনকে।

গত ৩০ এপ্রিল বিকেলে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৬ জন এবং ১ মে সকালে একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত সবারই হাত-পা বাঁধা ছিল। পেটে ছিল আঘাতের চিহ্ন। প্রতিটি লাশ ইটভর্তি দুটি করে বস্তা বেঁধে ডুবিয়ে দেওয়া হয়।

গত ৩ মে নূর হোসেনের সিদ্ধিরগঞ্জের বাসায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ ১৬ জনকে গ্রেপ্তার এবং রক্তমাখা মাইক্রোবাস জব্দ করে। এরপর গ্রেপ্তার করা হয় আরো ৭ জনকে।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় র‌্যাব-১১ এর কয়েকজন কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ করেন নিহত প্যানেল মেয়র নজরুলের পরিবারের সদস্যরা।

নূর হোসেনের দেহরক্ষী দুটি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার
এদিকে নূর হোসেনের দেহরক্ষী মামুনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে ৫ রাউন্ড গুলিভর্তি দুটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।

বুধবার রাত ৯টার দিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের একটি টিম সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল বোর্ডিংয়ের ১১নং কক্ষ হতে মামুনকে আটক ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয় জানিয়েছেন জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক (ডিআইও-১) মাঈনুর রহমান।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিমরাইল বোর্ডিংয়ের ১১নং কক্ষে অভিযান চালানো হয়। তখন মামুনকে পয়েন্ট ৩ বোরের দুটি পিস্তল ও ৫ রাউন্ড গুলিসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগেও নূর হোসেনের মালিকানাধীন বাসা ও নিয়ন্ত্রণাধীন ট্রাক স্ট্যান্ডে পুলিশ অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার করেছিল। ইতোমধ্যে সন্দেহভাজন হিসেবে নূর হোসেনের ২৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হলেও পলাতক রয়েছে নূর হোসেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ