• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

গাজরের পুষ্টিগুণ

Gajorস্বাস্থ্য ডেস্ক: গাজর সহজলভ্য ও কম দাম হলেও অত্যন্ত পুষ্টিসমৃদ্ধ। বাংলাদেশের কোনো কোনো অঞ্চলে একে মিষ্টি মুলো বলে। এটা কাঁচা, রান্না ও সালাদ করে খাওয়া চলে। তবে কাঁচা চিবিয়ে খেলে বা সালাদ করে সম্পূর্ণ পুষ্টি পাওয়া যায়। রান্নার পর পুষ্টি কিছুটা নষ্ট হয়।
গাজরকে প্রকৃতি ও স্রষ্টার অমূল্য সৃষ্টি এবং পুষ্টির ভাণ্ডার বলা যায়। গাজর দুই প্রকার- দেশী ও বিলেতি। দেশী গাজর দেখতে কিছুটা মেরুন রঙের। এই জাতের গাজর আজ বিলুপ্ত। এখন শুধু বিলেতি জাতের গাজর পাওয়া যায়। এই জাতের গাজর কিছুটা কমলারঙের। গাজর শাকেরও উপকার আছে। গাজর দিয়ে আচার, হালুয়া, পায়েস ইত্যাদি তৈরি হয়। আয়ুর্বেদীরা বলেন, গাজর যদি সঠিক পরিমাণে খাওয়া যায়, তাহলে দামি ফলমূল শাকসবজির চেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়।
গাজরের বহু গুণ। যেমন- ক্ষুধা বৃদ্ধি করে, সহজে হজম হয়। রক্তপিত্ত, অর্শ, পেটের অসুখ, কফ ও বায়ুরোগ ভালো হয়।
গাজর কৃমিনাশক। এতে হৃদরোগ ভালো হয়। হৃদরোগীরা কাঁচা চিবিয়ে খেলে বেশি উপকার পাবে। এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’। এই ভিটামিনের অভাবে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে এবং দৈহিক শক্তি হ্রাস পায়। দেহের ত্বক খসখসে হয়ে যায়। রাতকানা রোগ হয়। মাড়ির রোগ হয়। হাড় নরম হয়ে যায়। তাই গাজর খেলে ওই সব রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
গাজর খেলে ত্বক কোমল ও সুন্দর হয়। যারা অর্শ, যক্ষ্মা ও পিত্ত রোগে ভুগছেন, তারা নিয়মিত গাজরের সালাদ খেলে উপকার হবে। শিশুদের গাজর খাওয়ালে পুষ্টি পায়, বাড়ন দ্রুত হয় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। যাদের প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া আছে তারা গাজর খেলে উপকার পাবে। গ্যাস্ট্রিক-আলসার রোগীরা গাজর খেলে উপকার হয়।
গাজরের কচিপাতা শাক হিসেবে খাওয়া যায় এবং এই গাজরশাক গাজরের চেয়ে তিনগুণ বেশি উপকারী। গাজর রক্ত পরিষ্কার করে। মহিলারা ত্বক ফর্সা করতে এবং মুখের সৌন্দর্য বাড়াতে বেশি বেশি গাজর খেতে পারেন। যাদের পেটে গ্যাস হয়, শরীরে জ্বালাপোড়া করে তারা গাজর খেয়ে উপকার পাবেন। সুত্র : ইন্টারনেট।

গাজর সহজলভ্য ও কম দাম হলেও অত্যন্ত পুষ্টিসমৃদ্ধ। বাংলাদেশের কোনো কোনো অঞ্চলে একে মিষ্টি মুলো বলে। এটা কাঁচা, রান্না ও সালাদ করে খাওয়া চলে। তবে কাঁচা চিবিয়ে খেলে বা সালাদ করে সম্পূর্ণ পুষ্টি পাওয়া যায়। রান্নার পর পুষ্টি কিছুটা নষ্ট হয়।

গাজরকে প্রকৃতি ও স্রষ্টার অমূল্য সৃষ্টি এবং পুষ্টির ভাণ্ডার বলা যায়। গাজর দুই প্রকার- দেশী ও বিলেতি। দেশী গাজর দেখতে কিছুটা মেরুন রঙের। এই জাতের গাজর আজ বিলুপ্ত। এখন শুধু বিলেতি জাতের গাজর পাওয়া যায়। এই জাতের গাজর কিছুটা কমলারঙের। গাজর শাকেরও উপকার আছে। গাজর দিয়ে আচার, হালুয়া, পায়েস ইত্যাদি তৈরি হয়। আয়ুর্বেদীরা বলেন, গাজর যদি সঠিক পরিমাণে খাওয়া যায়, তাহলে দামি ফলমূল শাকসবজির চেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়।
গাজরের বহু গুণ। যেমন- ক্ষুধা বৃদ্ধি করে, সহজে হজম হয়। রক্তপিত্ত, অর্শ, পেটের অসুখ, কফ ও বায়ুরোগ ভালো হয়।
গাজর কৃমিনাশক। এতে হৃদরোগ ভালো হয়। হৃদরোগীরা কাঁচা চিবিয়ে খেলে বেশি উপকার পাবে। এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’। এই ভিটামিনের অভাবে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে এবং দৈহিক শক্তি হ্রাস পায়। দেহের ত্বক খসখসে হয়ে যায়। রাতকানা রোগ হয়। মাড়ির রোগ হয়। হাড় নরম হয়ে যায়। তাই গাজর খেলে ওই সব রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
গাজর খেলে ত্বক কোমল ও সুন্দর হয়। যারা অর্শ, যক্ষ্মা ও পিত্ত রোগে ভুগছেন, তারা নিয়মিত গাজরের সালাদ খেলে উপকার হবে। শিশুদের গাজর খাওয়ালে পুষ্টি পায়, বাড়ন দ্রুত হয় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। যাদের প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া আছে তারা গাজর খেলে উপকার পাবে। গ্যাস্ট্রিক-আলসার রোগীরা গাজর খেলে উপকার হয়।
গাজরের কচিপাতা শাক হিসেবে খাওয়া যায় এবং এই গাজরশাক গাজরের চেয়ে তিনগুণ বেশি উপকারী। গাজর রক্ত পরিষ্কার করে। মহিলারা ত্বক ফর্সা করতে এবং মুখের সৌন্দর্য বাড়াতে বেশি বেশি গাজর খেতে পারেন। যাদের পেটে গ্যাস হয়, শরীরে জ্বালাপোড়া করে তারা গাজর খেয়ে উপকার পাবেন। সুত্র : ইন্টারনেট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ