• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন |

ভারতীয় আইনে বাংলাদেশিদের তাড়াতে পারবেন না মোদী

Lawআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতীয় লোকসভা নির্বাচনের প্রচারের দিন এবং স্থানগুলোর দিকে একটু নজর দিলে দেখা যাবে শুধু সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোই নয়, পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় মোদী বনাম মমতার লড়াইয়ের মূল ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশি শরণার্থী ও অনুপ্রবেশকারী। এখন প্রশ্ন হলো যারা নামে বাংলাদেশি ও পরিচয়পত্রে ভারতীয় তাদের বাংলাদেশে পাঠানো সম্ভব হবে কি?

প্রচার কৌশলে বহুবার পশ্চিমবাংলার মাটিতে দাঁড়িয়ে ভাবী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, বিজেপি ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশ থেকে আসা অনুপ্রবেশকারীদের ঠেকানো সম্ভব হবে। তিনি শরণার্থী ও অনুপ্রবেশকারীদের পার্থক্যও বিভিন্ন জনসভায় বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, শরণার্থীরা ভারত মায়ের সন্তানের মতো থাকবেন, কিন্তু অনুপ্রবেশকারীদের ফিরে যেতে হবে।

তার বিপরীতে গিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বারবার মোদীর এই বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে বিভিন্ন জনসভায় বলেন, যারা এখানে শরণার্থী তথা আশ্রিতা তাদের প্রত্যেকের ভারতীয় নাগরিকত্বের পরিচয় আছে, তারা প্রত্যেকেই ভোটার। তাহলে কিভাবে তাদের পশ্চিমবাংলা থেকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেবে।

১০ মে কলকাতার কাঁকুড়গাছিতেও এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আজ যা আমি বলছি, ২০০৫ সালে তা দিদি নিজে বলেছিলেন। যা কালকে ন্যায় ছিল, আজ তা অন্যায় কী করে হয়।

এতো গেল ভোট প্রচারণার কৌশল মাত্র। রাজ্যের তথা ভারতের প্রচার পর্বের পাশাপাশি ভোটগ্রহণ পর্বও শেষ। ১৬তম লোকসভা নির্বাচনে ৩০ বছর পর একক সংখ্যাগরিষ্ঠ হিসেবে স্থায়ী সরকার গড়তে চলেছেন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।

কিন্তু এখন প্রশ্ন হলো, মোদী বলেছিলেন, যারা ভারতের অর্থনৈতিক বোঝা বাড়াচ্ছেন, সেই সমস্ত বাংলাদেশিদের বাংলাদেশে ফিরতেই হবে।

পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী তার প্রসঙ্গ টেনেই বলেছেন, প্রত্যেকেই ভোটার অর্থাৎ ভারতের নাগরিক। ২০১৪ এর গণতন্ত্রের উৎসবে তারাও অন্যান্য ভারতীয়দের মতো অংশগ্রহণ করেছেন, তাদের মনোনীত প্রার্থীকে ভোট দিয়েছেন। তাহলে আদৌ কি ওই সমস্ত মানুষদের, যারা নামে বাংলাদেশি ও পরিচয়পত্রে ভারতীয় তাদের বাংলাদেশে পাঠানো সম্ভব? তাদের জন্যে ভারতীয় আইন কি বলছে?

এই প্রশ্নের উত্তরে হাইকোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী জ্যোতিষ্ক পাঁজা শীর্ষ নিউজকে জানিয়েছেন, ভারতের সংবিধানের ১৪নং ধারায় বলা হয়েছে, ‘আইনের চোখে ভারতে বসবাসকারী প্রত্যেক মানুষের অধিকার ও সুরক্ষা সমান’।

পাশাপাশি সংবিধানের ২১নং ধারায় বলা হয়েছে, ‘যারা ভারতের নাগরিকত্ব পেয়েছেন, ভারতের সেই সমস্ত নাগরিকদের থাকা ও স্বাধীনতা কেউ হরণ করতে পারবেন না এবং তাদের কোনো দিনও কোনোভাবে কেউ বিতাড়িত করতে পারবেন না’।

পাশাপাশি যারা এখনও পর্যন্ত ভারতীয় নাগরিকত্বের স্বীকৃতি পাননি কেবলমাত্র তাদের জন্য ভারতের হাইকোর্ট ও সুপ্রিমকোর্টের কাছে বিশেষ ক্ষমতা আছে। অর্থাৎ হাইকোর্ট ও সুপ্রিমকোর্ট যদি চান ভারতের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি পাননি এমন মানুষেরাও ভারতে থাকবেন, তাহলে ভারত থেকে তাদের বিতাড়িত করা সম্ভব হবে না।

এখন দেখার বিষয় ভারতের ভাবী প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক কাঠামো সুদৃঢ় করতে বাংলাদেশি ইস্যুতে কি পদক্ষেপ নেন। সে দিকে নজর থাকবে ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশেরও।

উৎসঃ   শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ