• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

উদ্ধার কাজ সমাপ্ত: ডুবে যাওয়া লঞ্চ থেকে ৪৭ লাশ উদ্ধার

11সিসিনিউজ: মুন্সীগঞ্জের মেঘনায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ এমভি মিরাজ-৪ থেকে এ পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ ৪৭ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪৬ জনের লাশ শনাক্ত শেষে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ায় একজনের লাশ হাসপাতাল মর্গে ও অপর দু’জনের লাশ উদ্ধার করে মেঘনা পাড়ে রাখা হয়েছে। লাশের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ছাড়া শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ থাকতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ আজ সকালে লঞ্চটি উদ্ধার করে উদ্ধার কাজ সমাপ্ত ঘোষণা করেছে।
মেঘনার গজারিয়ার দৌলতপুর তীরে এখন কান্নার রোল। কেউ কাঁদছেন স্বজনের লাশের পাশে বসে, কেউ কাঁদছেন নিখোঁজ স্বজনের অপোয়। শুধু স্বজন হারানো মানুষই নয়, নদীতীরে ভিড় করেছেন স্থানীয় হাজার হাজার মানুষ। পল্টন খান নামে এক যুবক তার নিখোঁজ বোনের সন্ধানে নিজেই নদীতে নেমে তল্লাশি চালাচ্ছেন। তার মতো অনেকেই ভাড়া ট্রলার নিয়ে নদীতে স্বজনের খোঁজ করছেন।
এ দিকে সকালে লঞ্চ উদ্ধারকাজে বিলম্ব হওয়ার কারণে নৌমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে নিহতদের শত শত স্বজন বিক্ষোভ করেছেন। তবে কোস্টগার্ড, বিআইডব্লিউটিএ, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ যৌথভাবে উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে। বেলা ১১টা পর্যন্ত ডুবে যাওয়া লঞ্চটির ২০ ঘণ্টা অতিবাহিত হলেও এমভি মিরাজ-৪ লঞ্চটি উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছিল না। লঞ্চটি সে সময়ও মেঘনা নদীর তলদেশে অবস্থান করছিল। এরই মধ্যে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান ঘটনাস্থল ত্যাগ করে মাওয়া ঘাট হয়ে কিশোরী ফেরিতে মাদারীপুরের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন।
বেশ কয়েকবার চেষ্টার পর ডুবে যাওয়া মিরাজ-৪ লঞ্চটি লিফটওয়্যার দিয়ে বাঁধা হয়। গতকাল সোয়া ২টার দিকে ডুবুরিরা লিফটওয়্যার দিয়ে লঞ্চটি বেঁধে আসেন। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের লিফটওয়্যার ছিঁড়ে যাওয়ায় বেকায়দায় পড়েন কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিস, প্রশাসনসহ উদ্ধারকর্মীরা। একপর্যায়ে উদ্ধারকারী জাহাজের তৎপরতায় ডুবে যাওয়ার ২৬ ঘণ্টা পর সন্ধ্যা ৬টার দিকে তীরের কাছাকাছি আনা হয় এমভি মিরাজ-৪। এর আগে ডুবে যাওয়া লঞ্চ ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় পর লঞ্চটির তলদেশ দৃশ্যমান হয়। বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় লঞ্চটিকে টেনে মেঘনা তীরের কাছাকাছি নিয়ে এসেছে। তবে দুর্ঘটনা-কবলিত লঞ্চটি পানির নিচে একেবারেই উল্টে রয়েছে। এ ছাড়া লঞ্চটির ওজন প্রায় ১২৭ টন হলেও উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের ধারণমতা ২৫০ টন রয়েছে।
এ দিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কন্ট্রোলরুম থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লঞ্চডুবিতে নিহত ২৯ জনের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেনÑ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বর গ্রামের সরদার বাড়ির এলাহী বক্সের ছেলে জামাল সিকদার (৫০), নড়িয়া রাহাপাড়া গ্রামের সেতারা বেগম (৫৫), নড়িয়া পাঁচগাঁও গ্রামের টুম্পা (২৬), সুমনা (৮), আব্দুল জলিল (৫৫), নড়িয়া সুরেশ্বর গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে মাহি (৪), জালাল সিকদারের শিশুপুত্র আরিফ (১৮মাস), জলিল মালত (৫০), নড়িয়া পণ্ডিতপাড় গ্রামের মানিক (১৪), আব্দুল্লাহ আল রেদোয়ান (৪০), নড়িয়ার ডরমা আক্তার (৩২), মাসুম (৪০), রহিমা (৩২), রোমান (৫), আকলিমা আক্তার রিয়া, রাশিদা বেগম (৬০), নন্দনপাড়ের খোরশেদ আলী খন্দকার (৪৫), ওসমান গনি মোল্লা (৪০), ডুলকাঠির ইসমাইল ফকির (৬৫), ভেদরগঞ্জ কার্তিকপুরের কৃষ্ণ মুল কৃষ্ণ (৫০), পূর্ণলক্ষ্মী দাস (৮৫), আইকপাড় গ্রামের রহিমা বেগম (৫৫), দুবলার চরের লাইলী বেগম (৫০), রিতু আক্তার (১২), কলকাঠির মান্নান দেওয়ান (৫০), ভেদরগঞ্জের জালাল খাঁ (৭০), চাঁদপুর তমিজউদ্দিন এলাকার মিন্টু মোল্লা (৪০), নড়িয়ার পূর্ব চরকৃষ্ণ গ্রামের আব্দুল কাদের শিকদার (৫০)।
বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান ড. শামছুদ্দোহা খন্দকার সাংবাদিকদের জানান, লঞ্চটি একবারেই উল্টে রয়েছে। এ ছাড়া মেঘনার তলদেশে স্রোত ও দমকা হাওয়ার কারণে উদ্ধারকাজ কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। যদিও আগে মনে করা হয়েছিল সন্ধ্যার মধ্যেই উদ্ধার কাজ শেষ করা যাবে, কিন্তু এখন মনে হচ্ছে শেষ হতে মধ্যরাত পর্যন্ত লাগতে পারে।
এ দিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় নিহত প্রতিজনকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় থেকে ২০ হাজার টাকা ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ট্রাস্ট বোর্ড থেকে আরো ৫০ হাজার টাকা করে দেয়া হবে বলে জানা গেছে।
তদন্ত কমিটি গঠন : এ ঘটনায় সমুদ্র পরিবহন অধিদফতর তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিতে নৌ-বাণিজ্য অধিদফতরের ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড শিপস সার্ভেয়ার এ এফ এম সিরাজুল ইসলামকে আহ্বায়ক, সমুদ্র পরিবহন অধিফতরের মুখ্য পরিদর্শক (অ.দা.) শফিকুর রহমানকে সদস্যসচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল হাসানকে সদস্য করা হয়েছে। ওই তদন্ত কমিটি আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে কালবৈশাখীতে লঞ্চটির ডুবে যাওয়ার কারণ নির্ণয়, য়তির পরিমাণ নির্ধারণ, আইএসও ’৭৬-এর যেসব ধারা লঙ্ঘনের কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে তা শনাক্তকরণ, দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তি বা সংস্থাকে শনাক্তকরণ এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা কিভাবে রোধ করা যায় সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ পেশ করবে।
গত বৃহস্পতিবার বিকেলে ঝড়ের কবলে পড়ে মেঘনা নদীতে প্রায় ২৫০ জন যাত্রী নিয়ে এমভি মিরাজ-৪ নামে এ লঞ্চটি ডুবে গিয়েছিল। লঞ্চটি ঢাকা সদরঘাট থেকে শরীয়তপুরের সুরেশ্বর- চন্দ্রপাড়া-ওয়াপদা যাচ্ছিল।
লাশ হস্তান্তর করার পর শরীয়তপুর নিহতদের নিজ নিজ বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এ দিকে দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে লঞ্চটি ডুবে গেলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে প্রায় শতাধিক যাত্রী। নিখোঁজদের খোঁজে তাদের আত্মীয়স্বজনরা সুরেশ্বর, সাধুরবাজার লঞ্চঘাটে বসে আছেন অপোয়, কখন আসবে তার স্বজনের লাশ বা খবর। অনেকে আবার স্পিড বোট ও ট্রলারে স্বজনদের খোঁজে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার মেঘনা নদীর পাড়ে যান। গত দুই দিন ধরে চলছে শরীয়তপুরের সুরেশ্বর, চণ্ডিপুর, পাঁচগাঁও কোলকাঠি এলাকায় শোকের মাতম। নিহতদের স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠছে আকাশ বাতাস।
দুর্ঘটনাকবলিত স্থানে লাশগুলো উদ্ধার শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করছেন বলে সাংবাদিকদের কাছে নিশ্চিত করেছেন শরীয়তপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ভিখারুদ্দৌলা চৌধুরী। লাশ হস্তান্তর করার পর স্বজনরা তাদের নামাজে জানাজা শেষে নিজ নিজ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করেছে। এ দিকে দুর্ঘটনার পর দু’দিন অতিবাহিত হলেও এখনো শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ আছে বলে ঘাটে অপেমাণ মরণ ফকির, সালামত হাওলাদারসহ অনেক স্বজনের দাবি।
কিছুক্ষণ পর পর দু-একটি করে সুরেশ্বর লঞ্চঘাটে লাশ আসছে। লাশ দেখে নিখোঁজদের স্বজনেরা নৌকা-ট্রলারের ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। উৎসুক জনতার ভিড় সামলাতে সুরেশ্বর লঞ্চঘাটে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
নড়িয়া উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামের আবদুল জলিল খানের লাশ বাড়ি আসার পর ৮০ বছর বয়সী তার বৃদ্ধ মা খায়রুন নেছা কান্নায় ভেঙে পড়েন। আর বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন আর বার বলছেন, বাবা জলিল আমাকে রেখে তুই কই গেলি। আমাকে রেখে তোরে নিলো কেন আল্লাহ।
যারা নিখোঁজ রয়েছেন তারা হলেন, নড়িয়া মৃধাকান্দি এলাকার সনিয়া, সজিব, সাকিল, আলো বেগম, সায়মন বেগম, পাঁচগাঁও গ্রামের লিটন, নিকারীপাড়া এলাকার সেলিম, কোলকাঠি গ্রামের হৃদয় দেওয়ান, মিল্টন খাঁ, কোটাপাড়া এলাকার আসাদুজ্জামান খান মিন্টু, বাংলাবাজার ব্যবসায়ী সাকিল হাওলাদার, রতন আকন, হাকিম বেপারীর মেয়ে রিয়া আক্তার, নড়িয়া এলাকার পারভেজ, দক্ষিণ হালইসার গ্রামের সুমন সরদার, একই গ্রামের মমিন সরদার, মিরাজ লঞ্চের স্টাফ কেদারপুরের রিপন শেখ, সিংহলমুড়ি গ্রামের হেলাল, খোরশেদ আলম, নড়িয়া বৈশাখীপাড়া এলাকার প্রতিবন্ধী লিপি আকতার, ডিঙ্গামানিক এলাকার আলো বেগম, মাহিন খান, শামিম, সোনিয়া, রনি মাঝি, কেদারপুর এলাকার ছায়েদ ঢালী, একইএলাকার কাদির খলিফা, সুমন শেখ, কাঞ্চন হাওলাদার লোনসিং গ্রামের রোকসানা, শুরেশ্বর এলাকার আনোয়ার ঢালী, মাদারীপুরের সূর্যমণি এলাকার সালাম ঢালী, ফতেজঙ্গপুর সাতপাড় গ্রামের বিউটি বেগমসহ প্রায় শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন বলে পদ্মাপাড়ে থাকা স্বজনেরা জানান।
মিরাজ লঞ্চের যাত্রী নিখোঁজ আসাদুজ্জামান মিন্টুর ভাই শরীয়তপুর সদর উপজেলার পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান গগন খান বলেন, আমার ভাই কিছু দিন ধরে অসুস্থ ছিল। চিকিৎসা শেষে লঞ্চে বাড়ি ফিরছিল। তার সাথে আমাদের প্রতিবেশী রাসেল নামে একটি ছেলে ছিল। রাসেল সাঁতার কেটে তীরে উঠতে পারলেও আমার ভাইয়ের কোনো সন্ধান এখনো পাচ্ছি না।
শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক রামচন্দ্র দাস বলেন, লঞ্চডুবির ঘটনা শোনার পর থেকে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসনের সাথে যুক্ত হয়ে উদ্ধারকাজ চালিয়ে যাচ্ছি। লাশ পৌঁছে দেয়ার জন্য সব প্রস্তুতি আছে। এখনো অনেকেই নিখোঁজ রয়েছেন। আমরা উদ্ধারকাজ অব্যাহত রেখেছি।
মেঘনায় লঞ্চ দুর্ঘটনায় মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সমবেদনা
কূটনৈতিক প্রতিবেদক জানান, মেঘনায় যাত্রীবাহী লঞ্চ দুর্ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা।
গতকাল এক বিবৃতিতে মজিনা এমভি মিরাজ-৪ লঞ্চডুবির দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারের প্রতি আন্তরিক শোক ও সমবেদনা জানান। দুর্ঘটনার পর প্রাথমিক উদ্ধার কাজ পরিচালনায় সহায়তাকারীদের তিনি ধন্যবাদ দেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সবার প থেকে দুর্ঘটনায় হতাহতদের স্বজন ও বাংলাদেশের জনগণকে সমবেদনা জানান এবং সবার কল্যাণার্থে প্রার্থনা করেন।
খেলাফত মজলিসের শোক : মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে মিরাজ-৪ লঞ্চডুবি ও নারী-শিশুসহ বহু প্রাণহানির ঘটনায় খেলাফত মজলিসের আমির অধ্য মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের গভীর শোক প্রকাশ করে নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধার তৎপরতা জোরদার করার দাবি জানিয়েছেন। একই সাথে তিনি নৌদুর্ঘটনা রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান। বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় লঞ্চ দুর্ঘটনায় নিহতদের রূহের মাগফিরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান। সেই সাথে নিহতদের পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানান।
ছাত্রশিবিরের শোক : মুন্সীগঞ্জ থেকে সুরেশ্বরগামী লঞ্চ ঝড়ের কবলে পড়ে মেঘনা নদীতে ডুবে গিয়ে জানমালের ব্যাপক ক্ষতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে ইসলামী ছাত্রশিবির। গতকাল এক বিবৃতিতে শিবিরের সভাপতি আব্দুল জব্বার ও সেক্রেটারি জেনারেল আতিকুর রহমান বলেন, এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় আমরা শোকাহত। সেই সাথে লঞ্চ ডুবে যারা নিহত হয়েছেন তাদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে তাদের শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান শিবির নেতৃদ্বয়। সূত্র: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ