• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:১০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

মেঘনায় লঞ্চডুবিতে ২৮ মরদেহ উদ্ধার

Lonchসিসি নিউজ: কালবৈশাখী ঝড়ের কবলে পড়ে মেঘনায় ডুবে গেছে এমভি মিরাজ-৪ নামের একটি লঞ্চ। আজ শুক্রবার ভোর রাত পর্যন্ত ২৮ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শরিয়তপুরের উদ্ধারকৃত লাশের মধ্যে রয়েছে শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামের টুম্পা বেগম (২৬), তার ছেলে মাহি (২), সুরেশ্বরর গ্রামের জালাল শিকদার (৫৫), ছেলে আবিদ শিকদার (২৮), রাহাপাড়া গ্রামের সুমনা (৮), সেতারা বেগম (৫০), দক্ষিণ হারিসার গ্রামের লঞ্চের ফেরিওয়ালা শিক মালয় (৪২), পরিসার গ্রামে মাহি (৪), আনুমানিক ৬০ ও ৭০ বছরের দুই নারী ও অজ্ঞাতনামা এক পুরুষ (৩৫)। বাকিদের নাম পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা থেকে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরের পরে শরীয়তপুরের দিকে রওনা দেয় এমভি মিরাজ-৪ লঞ্চটি। বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে দৌলতপুর গ্রাম সংলগ্ন মেঘনার মোহনায় পৌঁছে এটি কালবৈশাখী ঝড়ের কবলে পড়ে। প্রবল ঝড়ের তোড়ে এসময় মাঝনদীতে ডুবে যায় লঞ্চটি।

ঘটনার সময় অন্তত ৭০ জন যাত্রী সাঁতরে পাড়ে উঠতে সক্ষম হয়। বাকিরা নিখোঁজ রয়েছে। তাৎক্ষণিক স্থানীয় উদ্ধারকারীরা নদী থেকে নারী ও শিশুসহ নয়জনের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

উদ্ধার তৎপরতা তদারকি করতে সন্ধ্যার পর থেকে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপি, শরীয়তপুরের এমপি সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল (অব.) মীর শওকত আলী এমপি, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. সামছুদ্দোহা খন্দকার, পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের এডিশনাল ডিআইজি (ক্রাইম) শফিকুল ইসলাম প্রমুখ দুর্ঘটনাস্থলে আসেন।

তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি
এমভি মিরাজ-৪ ডুবির ঘটনায় ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার নৌ ও পরিবহন মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।
নৌ-বাণিজ্য অধিদপ্তরের ইঞ্জিনিয়ার অ্যান্ড শিপস সার্ভেয়ার এ এফ এম সিরাজুল ইসলামকে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের স্পেশাল অফিসার মেরিন সেফটি এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সাইফুল হাসান কমিটির সদস্য এবং সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের মূখ্য পরিদর্শক মো. শফিকুর রহমান কমিটির সদস্য সচিব।

কমিটি কালবৈশাখী ঝড়ে ডুবে যাওয়ার কারণ নির্ণয়, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ, আইএসও’৭৬ এর যেসব ধারা লঙ্ঘনের কারএণ দুর্ঘটনা ঘটেছে তা সনাক্তরণ, দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তি বা সংস্থাকে সনাক্তকরণ এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা কীভাবে রোধ করা যায় সে বিষয়ে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ প্রদান পেশ করবে।

লাশ প্রতি ৭০ হাজার টাকা
এদিকে নৌ-পরিবহন মন্ত্রলালয় ও জেলা প্রশাসনের তহবিল থেকে নিহতদের লাশ দাফন ও ক্ষতিপূরণ বাবদ জনপ্রতি ৭০ হাজার টাকা করে নিহতের স্বজনদের দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সরকারি খাত থেকে লাশ দাফন বাবদ জনপ্রতি ২০ হাজার টাকা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া ঘটনাস্থলে পৌছে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান নিহতদের ক্ষতিপূরণ বাবদ জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দেন।

মানুষে ঠাসা মেঘনার পাড়
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মেঘনা পাড়ে ছুটে আসছেন নিহত ও নিখোঁজদের স্বজনরা। তারা মেঘনাপাড়ে অন্ধকারের মধ্যে সময় পার করছেন। তাদের জন্য সেখানে আলো, তাবু ও খাবারের কোন রকম ব্যবস্থা করা হয়নি।

যাত্রীদের অনুরোধ শুনেনি লঞ্চ চালক
অনুরোধ উপেক্ষা করেই লঞ্চটিকে বিপদের দিকে নিয়ে যান এমভি মিরাজ-৪ এর সুকানি ও কেরানি। উল্টো যাত্রীদের ধমকও দেন তারা। বেঁচে যাওয়া যাত্রীদের কাছ থেকে এমন তথ্যই জানা গেছে।

দুর্ঘটনার ১০ মিনিট আগে থেকে যাত্রীরা লঞ্চটি মেঘনার তীরে বা পাশের খালে নিয়ে থামানোর জন্য বলেন। কিন্তু লঞ্চের সুকানি ও কেরানি কোনো কর্ণপাত না করে উল্টো যাত্রীদের উপর উত্তেজিত হয়ে উঠে। এর কয়েক মিনিট পরেই লঞ্চটি উল্টে যায়। ডুবে যাওয়ার আগে লঞ্চটি কাত হয়ে ছিল অন্তত ৫ থেকে ৭ মিনিট। এরপর পানি ঢুকে তা তলিয়ে যায়।

একই পরিবারের ৬ জন নিখোঁজ
মেঘনায় ডুবে যাওয়া এমভি মিরাজ-৪ একই পরিবারের ৬ জন নিখোঁজ থাকার খবর পাওয়া গেছে। সাত জনের মধ্যে জীবিত উঠে আসা আলো বেগম এ তথ্য জানিয়েছেন। নিখোঁজ ব্যক্তিরা হলেন- মাহী (১৪), মানিক (১৪), শাকিল (১৪), সজিব (১১), সোনিয়া (২০) ও সায়মন (৬)।

তাদের গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার ঘরিষাড় গ্রামে। ঢাকার কালিগঞ্জ থেকে গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিল তারা। সূত্রঃ বাংলামেইল/ডয়েচেভেলে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ