• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:০৭ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে আটকেপড়া অবাঙ্গালী বৃদ্ধ কামরুদ্দিনের আর্তনাদ

Kamruzzman
এম আর মহসিন, সিসিনিউজ: সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধ কামরুদ্দিন শৈশবেই এতিম। আর কর্মজীবনে পাঁচ যুগেও পাশে কাউকেও পাননি। এতে শিশুকাল থেকে জীবিকার তাগিদে এখনও একাকী সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। বয়স ও অপুষ্টির ভারে নুয়ে পড়া দেহ নিয়েও অবিরত হাটছেন আইসক্রীমের ভ্যান নিয়ে। শক্তিহীন শরীরে কান্তি ভর করলেও জীবন বাঁচাতে এখনও তপ্ত রোদে ছুটছেন গ্রামের পর গ্রামে। তারপরেও সাত সদস্যের পরিবারকে অভূক্ত দিন কাটাতে হচ্ছে। অর্থাভাবে মৌলিক অধিকার বঞ্চিত এ বৃদ্ধ ও তার পরিবারটি তাই বেঁচে থাকার স্বার্থে সমাজও রাষ্ট্রের কাছে একটু আর্থিক সহায়তার কামনা করছেন।
জানা যায়, ভারতের বিহার রাজ্যের মুগের জেলায় ইটাহারী স্টেশন এলাকায় বসবাসরত কামরুদ্দিনের পিতা রিয়াসাত। চাকরী করতেন জামালপুর রেল কারখানায়। পরে ১৯৪৭ সালে দেশ বিভক্তির পর মায়ের কোলে চেপে সৈয়দপুর শহরে আসেন। চাকরী সূত্রে সৈয়দপুর রেল কারখানায় যোগদান করেন তার পিতা। আর এ বছরেই পিতার মৃত্যু হলে শৈশবে এতিম হোন। রেলওয়ে থেকে কোন সুযোগ সুুবিধা না পাওয়ায় কামরুদ্দিনের মা পরের বাড়িতে কাজ করে প্রতিপালন করেন। ৮ বৎসর বয়সে বাদামের ঝুড়ি কাঁধে নিয়ে রেলস্টেশন থেকে স্কুল ও পাড়া মহল্লায় বিক্রি করে মাকে সহায়তা করেছেন কামরুদ্দিন। আবার অন্যান্য সময় আইসক্রীমের চাহিদা থাকায় ঝুঁকে পড়েন এ ব্যবসায়। এভাবে ৫ যুগ গত হলেও এখনও তিনি পাড়া মহল্লায় তপ্ত রোদে বিক্রি করছেন ওই আইসক্রিম। এরই মধ্যে গত হয়েছে তার মা ও স্ত্রী। আর আটকেপড়া ১নং অবাঙ্গালী ক্যাম্পের একটি ঘরে মাঝখানে কাপড় ঝুলিয়ে ৪ মেয়েসহ ১ ছেলে নিয়ে কোন রকম বসবাস করে আসছেন।
গত শুক্রবার ওই ক্যাম্পটিতে গিয়ে দেখা যায়, বৃদ্ধ কামরুদ্দিনের এক ঘরে ৩ যুবতী মেয়েসহ বসবাসের করুণ চিত্র। গাদাগাদি করে ছেলে মেয়েসহ দুই বিছানা ও মেঝেতে কোনরকম বসবাস করছেন। নেই পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা। পাশাপাশি আর্থিক অনটনে শিার আলো থেকেও এ বৃদ্ধের সব সন্তানেরাই হয়েছেন বঞ্চিত।
রোকসানা (২১) ও সীমা (৩০) জানান, বৃদ্ধ বাবা আইসক্রীম বেচে যা নিয়ে আসে তা দিয়ে কোনরকম দুই বেলা আহার মেটে। আর অন্যান্য খরচ হয় না। তাই প্রয়োজনে মানুষের কাছে হাত পেতে জীবিকা চালাতে হচ্ছে।
কামরুদ্দিন জানান, পাকিস্তান আমলে বাদাম বেচার সময় পার্বতীপুর ওভার ব্রিজ থেকে পড়ে ডান পা ভেঙ্গে যায়। পরে চিকিৎসা করাতে না পেরে এক পায়ের ওপরই চলতে হচ্ছে খুড়িয়ে খুড়িয়ে। আগে ২ থেকে আড়াই টাকা আয় করলে দিন পার হতো এখন দেড় থেকে দুশো টাকা আয় করেও খাবার জুটছে না। আর বয়স বেশি হওয়ার কারণে আইসক্রীমের ভ্যান টানতে পারি না তপ্ত রোদে। তারপরেও জীবিকা তাগিদে তাপদাহে হাটতে হচ্ছে। অথচ এ বয়সে সকলে গরীবরা বয়স্ক ভাতা পায়। কিন্তু স্থানীয় মেম্বার, চেয়ারম্যানকে জানালেও তারা তাকায়নি। এখন চলতে ফিরতে পারছি না তার ওপর দুটো বিবাহযোগ্য মেয়ে। কিভাবে চলব? গতকাল এ প্রতিনিধির কাছে নিজের অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এ বৃদ্ধ। তার দাবি আর দশটা মানুষের মতো বেঁচে থাকার স্বার্থে সমাজপতিসহ সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর একটু আর্থিক সহায়তার প্রয়োজন। তাহলে তারাও বেঁচে থাকবে এ পৃথিবীতে। ওই ক্যাম্পের সভাপতি আকবর জানান, এ দশায় পড়েছে সৈয়দপুরে প্রায় ২২টি ক্যাম্পের হতদরিদ্ররা। তারা শিার অভাবে নিজের পেশা বদল করতে পারেনি। ফলে এখন করুণ দশা কাটছে এ পরিবারগুলোর ওপর। তাই কামরুদ্দিনের মতো অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো উচিত সমাজের প্রতিনিধি ও সরকারের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ