• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:১১ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে ভ্যানচালকের ছেলে পেয়েছে জিপিএ-৫

Nilphamariসিসিনিউজ: দারিদ্রতা ও অর্থ সংকট দমিয়ে রাখতে পারেনি নীলফামারীর ভ্যানচালকের সন্তান  হাফিজুলকে। চরম অর্থ কষ্টের মাঝেও হাফিজুল এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে সবাইকে অবাক লাগিয়ে দিয়েছেন। দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে এসএসসি পাস করলোও উচ্চ শিা গ্রহন নিয়ে এখন দুচিন্তায় পড়েছেন হাফিজুল। এরপরেও সে উচ্চ শিা নেয়ার আকাঙ্খাকে বাস্তবে রূপ দিতে বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছে।
নীলফামারী সদর উপজেলার খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের রিক্সা ভ্যান চালক এমদাদুল হক। তার তিন ছেলে এক মেয়ের মধ্যে হাফিজুল ইসলাম সবার ছোট। সারাদিন ভ্যান চালিয়ে যা রোজগার করতেন তা দিয়ে কোন রকম খেয়ে না খেয়ে পরিবারটি দিনাতিপাত করে আসছেন। দারিদ্রতা আর অর্থ অভাবে বড় ছেলে ও মেয়ের লেখাপড়া করাতে পারেনি এমদাদুল হক। কিন্ত তার মেজো  এবং  ছোট ছেলের  মেধা ও অদম্য ইচ্ছা শক্তির কাছে হার মেনে অন্যের সহযোগিতা নিয়ে কষ্ট করে তাদের লেখাপড়া করাতে থাকেন। এলাকাবাসি ও শিক্ষকদের সহযোগিতা ২০০৮ সালে মেজো ছেলে ছাবির হোসাইন নীলফামারী সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে পাশ করেন। সে সময় “ভ্যানচালকের ছেলের জিপিএ-৫ লাভ” শিরোনামে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় একটি সংবাদ প্রচার হলে ক্রাউন সিমেন্ট ছাবিরের উচ্চ শিক্ষা গ্রহনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। ক্রাউন সিমেন্টর সহযোগিতায় ছাবির ঢাকার নটরডম কলেজে ভর্তি হয়। তাদের সহযোগিতায় সেখানকার শিক্ষা জীবন শেষ করে এখন চট্রগ্রাম প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যায়তে সিএসইতে ৪র্থ বর্ষে অধ্যায়নরত রয়েছে।
এবার ভ্যানচালক এমদাদুললের ছোট ছেলে হাফিজুলও এসএসসি পরীক্ষায় নীলফামারী সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছেন। পিতার সামথ্য না থাকায় সেও তার বড় ভাইয়ের মতো কার সহযোগিতা নিয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে চান।
এলাকাবাসী জানায় বসত ভিটে ছাড়া এমদাদুলের কোন জমি নেই। নীলফামারী শহরের গাছবাড়ী ভ্যান ষ্ট্যান্ড থেকে ধান, চাল, কাঠ ও অন্যান্য মালামাল ভ্যানে বহন করে যা আয় হতো তা দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করত। বয়স বেশী হওয়ায় এখন আগের মতো ভ্যানও টানতে পারেন না এমদাদুল হক। তাই প্রায় সময় হাফিজুল স্কুলে না গিয়ে তার বাবাকে মালামাল বহনে সাহায্য করত। পিতা ভ্যানের হেন্ডেল ধরত আর হাফিজুল ভ্যানের পিছন দিক ধরে ঠেলে ঠেলে মালামাল গন্তব্য পৌছে দিত। এমনকি তার বাবা অসুস্থ হলে পড়লে সে নিজেই  ভ্যান নিয়ে বেরিয়ে পড়ত।
ছেলের সাফল্যে আনন্দের মধ্যেও কষ্ট তারা করে হাফিজুলের বাবা এমদাদুলকে। ছেলের কষ্টের কথা বলতে গিয়ে কেঁদে বলেন, “প্রায় সময় স্কুল না গিয়ে তার সাথে ভ্যান ঠেলতে হয়েছে হাফিজুলকে।  তার পরও থেমে থাকেনি তার মেধা। সে শুধু একটাই বলেছে “বাবা যত কষ্টই হউক আমাকে বড় ভাইয়ের মতো সাফল্য অর্জন করে বড় হতে হবে।”
হাফিজুলের মা  মর্জিনা বেগম জানায় সকালে একমুঠো পান্থা জোটাতে নাপেরে সামান্য মুড়ি মুখে দিয়ে দিনের পর দিন হাফিজুলকে যেতে হয়েছে স্কুলে। বাড়ী থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার পথ হেঁটে তাকে স্কুলে যেত হত।  বন্ধু বান্ধবের কাছ থেকে বই ধার করে নিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত কুপির আলোতে তাকে পড়তে হয়েছে।  এছাড়া হাফিজুল রাতের কোন এক সময়ে প্রতিবেশী ছোট ছেলে-মেয়েদের প্রাইভেট পড়াত। এ থেকে যা পেত তা দিয়ে  নিজের বই খাতা ও কলম কিনত।
নীলফামারী সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু নুর মোহাম্মদ আনিছুল ইসলাম চৌধুরী  জানান, হাফিজুলের মেধার কাছে হার মেনেছে সকল বাধা। তিনি বলে তার বাবা ভ্যানচালক জেনে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাকে বিনা বিতনে কোচিং করিয়েছেন।  অদম্য এ মেধাবীর লেখাপড়া চালানোর সহযোগীতায় দেশের হৃদয়বান ব্যক্তিদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।
হাফিজুল ডাক্তার করতে চায়। এজন্য পড়তে চায় ভালো কোন কলেজে। কিন্তু ভ্যানচালক পিতা পারবে কি তার সে সাধ পুরণ করতে?


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ