• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:১৯ পূর্বাহ্ন |

সরকারি-বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিকল্পনা প্রণয়নে চলছে ভয়াবহ নৈরাজ্য

classroomসিসিনিউজ: সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ এবং এ বিষয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষণ ও পরিকল্পনা প্রণয়ন নিয়ে চলছে ভয়াবহ নৈরাজ্য। ২০ হাজার ৫০০টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় ডিজিটাল শ্রেণীকক্ষ স্থাপন করা হলেও অব্যবস্থাপনায় কমপক্ষে আড়াই হাজার শ্রেণীকক্ষ অচল হয়ে আছে। পাঁচ থেকে সাত হাজার ল্যাপটপ অকার্যকর হয়ে আছে।
নামকাওয়াস্তে কিছু শিক্ষককে প্রশিক্ষণ দিয়ে এই কার্যক্রম চালু করায় ছাত্রছাত্রীরা এর কোন সুফল পাচ্ছে না। অনেক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা উপকরণ ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। অপব্যয় হচ্ছে সরকারের মোটা অঙ্কের টাকা। এসব কার্যক্রম দেখভালের দায়িত্ব শিক্ষা অধিদফতরের হলেও সংস্থাটি এ নিয়ে উদাসীন, নেই কার্যকর তদারকি। মহাজোট সরকারের আমলে ‘আইসিটি ফর এডুকেশন ইন সেকেন্ডারি অ্যান্ড হায়ার সেকেন্ডারি লেভেল প্রজেক্ট’-এর অধীনে দেশের ২০ হাজার ৫০০টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় একটি করে ডিজিটাল শ্রেণীকক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। ২০১১ সালের জানুয়ারিতে শুরু হওয়া এই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী জুনে। এই প্রকল্পের অধীনে প্রতিটি বিদ্যালয়ে একটি করে ল্যাপটপ, স্পিকার, ইন্টারনেট মডেম, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, স্কিন সরবরাহ করা হয়েছে। একজন করে শিক্ষককে ১২ দিনের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। ৩০৫ কোটি ৬৫ লাখ ৩৪ হাজার টাকার এই প্রকল্পে শিক্ষক প্রশিক্ষণসহ প্রতিটি ডিজিটাল শ্রেণীকক্ষ স্থাপন করতে সরকারের ব্যয় হয়েছে এক লাখ ৩০ হাজার টাকা।
আইসিটি প্রকল্পের পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ইতোমধ্যে ১৯ হাজার ২৬২ জন শিক্ষককে ডিজিটাল কনটেন্ট (শিক্ষা উপকরণ) সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। বাকি শিক্ষকরা জুনের মধ্যে প্রশিক্ষণ পাবে।’ মাঠ পর্যায়ে কর্মরত বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডিজিটাল শ্রেণীকক্ষ স্থাপনের নামে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মাল্টিমিডিয়া, আইসিটি ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হলেও অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা এগুলোর ব্যবহার দূরের কথা, তা দেখারও সুযোগ পাচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় আইসিটি শিক্ষার বিকাশে বিষেশভাবে কাজ করলেও শিক্ষা অধিদফতর যথাযথভাবে এর তদারকি করছে না।
অভিযোগ আছে, মাঝেমধ্যে শিক্ষা অধিদফতরের দু’একজন কর্মকর্তা নিজেদের গ্রামের বাড়ি বেড়াতে কিংবা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে বিভিন্ন জেলায় গেলেও তারা নামকাওয়াস্তে দু’একটি প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ঢাকায় ফিরে ইচ্ছেমতো ভাউচার বানিয়ে টিএডিএ ভাতা নিচ্ছেন। এর ফলে আইসিটি শিক্ষার বিকাশে বিপুল অঙ্কের অর্থ ব্যয় হতে থাকলেও শিক্ষার্থীরা এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত।
রাজধানীর মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী কামরুন নেছা বলেন, ‘স্কুলের কম্পিউটার রুমে কখনও ঢুকতে দেয়া হয় না। ডিজিটাল ক্লাস রুমে কখনও ক্লাস হয়নি। বাসায় গিয়ে কম্পিউটার ও ল্যাপটপ ব্যবহার করি। স্যাররা এ সম্পর্কে কিছুই পড়ায় না।’
মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর দু’ছাত্র জানায়, ‘দু’তিন মাস পরপর ৪/৫ জন ছাত্রকে কম্পিউটার রুমে ডেকে নিয়ে কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া পরিষ্কার করে বের করে দেয়া হয়।’
গত ৪, ৫ ও ৬ মে কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হলো তিন দিনব্যাপী শিক্ষক সম্মেলন। ওই সম্মেলনে অংশ নেয় সারাদেশের ১০০ জন শিক্ষক, যারা মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, ডিজিটাল কনটেন্ট ও শিক্ষক বাতায়নে বিশেষ অবদান রেখেছেন। আধুনিক প্রযুক্তি-কলাকৌশলের মাধ্যমে পাঠদানে উৎসাহ ও শিক্ষায় তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিতের স্বীকৃতি হিসেবে ৪২ জন সেরা শিক্ষককে পুরস্কৃত করা হয়েছে। এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে যান। তখন ওই স্কুলের অষ্টম ও নবম শ্রেণীর ছাত্রীরা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা কখনও মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম দেখিনি। স্যাররাও কখনও ল্যাপটপ ও কম্পিউটার দেখায়নি।’
প্রকল্প পরিচালক আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘সব সরকারি (৩১৬টি) স্কুলেই ডিজিটাল ক্লাসরুম স্থাপন করা হয়েছে।’ তিনি জানান, ‘গড়ে ৮/১০ ভাগ মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম অব্যবহৃত থাকতে পারে।’
আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘প্রকল্পের মোট ছয়টি কর্মকর্তার পদের মধ্যে দুটি পদ শূন্য আছে। ফলে আমাদের পক্ষে সব প্রতিষ্ঠান মনিটরিং সম্ভব নয়। মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম নিয়মিত মনিটরিংয়ের জন্য দু’বার মাউশি’তে চিঠি দিয়েছি।’
এছাড়াও এই কার্যক্রম মনিটরিংয়ের জন্য জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে স্থানীয় পর্যায়ে মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে বলেও প্রকল্প পরিচালক জানান।
জানতে চাইলে মাউশি’র পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) প্রফেসর আতাউর রহমান বলেন, ‘ডিজিটাল শিক্ষা কার্যক্রম তদারকির জন্য মাঠ পর্যায়ের সকল কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা আন্তরিক না হলে আমরা কী করতে পারি?’
পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকার দু’টি সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক বলেন, ‘সরকারি স্কুলে কম্পিউটার বিষয়ে শিক্ষকের পদ নেই। এর ফলে যারা এই ১২ দিনের প্রশিক্ষণ পেয়েছেন, তারাও এই কার্যক্রম ভালোভাবে রপ্ত করতে পারেননি। তাছাড়া কোন ল্যাপটপ, কম্পিউটার ও অন্য উপকরণ নষ্ট হলেও তা মেরামতের বিল কে দেবে? এজন্যই এগুলোর ব্যবহার কম হচ্ছে।’
এদিকে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রয়োজন ছাড়াই ২৮টি মাদ্রাসায় শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ এবং বিজ্ঞান শাখা না থাকা সত্ত্বেও ৫টি মডেল মাদ্রাসায় বিজ্ঞান শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ করা হয়েছে একটি প্রকল্পের অধীনে। দীর্ঘদিন ধরে ৩৩টি মাদ্রাসার অব্যবহৃত শিক্ষা উপকরণ- বিশেষ করে কম্পিউটার, মাল্টিমিডিয়া, মূল্যবান বই নষ্ট হচ্ছে। এসব মাদ্রাসায় লাইব্রেরি, আইসিটি ল্যাবরেটরি স্থাপন, উন্নতমানের চেয়ার-টেবিলও প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু দাতা সংস্থার ঋণের অর্থে কেনা বিপুল পরিমাণ অত্যাধুনিক শিক্ষা উপকরণ কেউ ব্যবহার করছে না বলে মাউশির পরিকল্পনা অনুবিভাগের কর্মকর্তারা জানান।
শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ, এগুলোর ব্যবহার ও প্রয়োজনীয়তা নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) কর্মকর্তারা এখন একে অন্যের ওপর দায় চাপাচ্ছেন। যথাযথভাবে শিক্ষা উপকরণের ব্যবহার নিশ্চিতের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় কয়েক দফা নির্দেশনা দিলেও তা কোন কাজে আসছে না।
‘সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট’ বা এসইএসডিপি প্রকল্পের অধীনে মোট ৩৩টি আলিম স্তরের মাদ্রাসাকে মডেল মাদ্রাসায় রূপান্তর করা হয়েছে। মামলা চলমান থাকায় ২টি মাদ্রাসাকে মডেলে রূপান্তর করা যাচ্ছে না। মডেল হওয়ায় প্রতিটি মাদ্রাসায় ২০টি করে কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক শিক্ষা উপকরণ দিয়ে আইসিটি ল্যাবরেটরি স্থাপন, ৯৯৪টি বই দিয়ে একটি লাইব্রেরি স্থাপন করা হয়েছে। অবকাঠামো নির্মাণসহ প্রতিটি মডেল মাদ্রাসায় প্রায় ৭০ লাখ টাকার শিক্ষা উপকরণ প্রদান করা হয়েছে। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণও দেয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা জানায়, মডেলে রূপান্তরিত মাদ্রাসাগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটিতে বিজ্ঞান শাখার অনুমোদনই নেই। অথচ এসব মাদ্রাসায় বিজ্ঞান শিক্ষার অত্যাধুনিক উপকরণ সরবরাহ করা হয়েছে, যা বাক্সবন্দি অবস্থায় নষ্ট হচ্ছে। বিজ্ঞান শাখার অনুমোদন নেই এমন মাদ্রাসার মধ্যে খাগড়াছড়ির রামঘর বনিয়াতুল উলুম মডেল মাদ্রাসা, চট্টগ্রামের ষোলশহরের আহম্মেদিয়া সুন্নিয়া মডেল মাদ্রাসা, লক্ষ্নীপুরের মান্ধারী ইসলামিয়া মডেল মাদ্রাসা, সিলেটের ভাদ্বেশ্বর মডেল মাদ্রাসা ও সুনামগঞ্জের দিন-ই সিনিয়র মডেল আলিম মাদ্রাসা অন্যতম।
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম তদারকির দায়িত্ব মাউশি’র মনিটরিং অ্যান্ড এভালুয়েশন উইংয়ের। এই উইংয়ের পরিচালক বলেন, ‘সব প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল কনটেন্ট ব্যবহৃত হচ্ছে না, এটা সত্য। কারণ অনেক মডেম কাজ করছে না। আবার আমি রংপুরের গঙ্গাচড়ার দুটি প্রতিষ্ঠানে সম্প্রতি গিয়ে দেখেছি, সেখানে ডিজিটাল কনটেন্ট ব্যবহার হচ্ছে।’
তিনি ডিজিটাল শিক্ষা কার্যক্রম যথাযথভাবে তদারকি না হওয়ার জন্য জনবল স্বল্পতাকে দায়ী করে বলেন, ‘দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে ৩০ হাজারের বেশি। আর আমার জনবল আছে ৭/৮ জন। সংবাদ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ