• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন |

চিরিবন্দরের বাউবি’র ৩৩৮ শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে

open-university_pic-1-311x186চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের চিরিবন্দর উপজেলার রাণীরবন্দর মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষর অসততা আর চক্রান্তে সৃষ্ট দ্বন্দ্বে সদ্য প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৩৮ জন কর্মজীবী শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে পড়েছে।
সূত্র ও নথিপত্রে জানা গেছে, ওই কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুল আউয়াল ২০১৩ সালের ১৮ অক্টোবর অবসর গ্রহণের পর ভারপ্রাপ্ত অধ্যেক্ষের পদ নিয়ে গভর্নিং বডি, সদস্য, শিক্ষক ও কর্মচারীর মধ্যে দ্বিধা বিভক্তির সৃষ্টি হয়। এতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ক্ষমতা বলে কমিটির রেজুলেশন ব্যতিরেখে ওই কলেজের সহাকারী অধ্যাপক আমিনুল হককে সাময়িক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব দেন। অধ্যাপক আমিনুল হক অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেয়া মাত্রই কলেজ ধ্বংসে নানা চক্রান্ত শুরু করেন এবং ওই কলেজে সদ্য প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা কো-অর্ডিনেটর প্রভাষক নজরুল ইসলামকে সরিয়ে বাউবি’র স্টাডি সেন্টার ও পরীক্ষা কেন্দ্রটি ধ্বংস করতে মরিয়া হয়ে ওঠেন।
এ ঘটনায় গভর্নিং বডির সদস্য ও শিক্ষক-কর্মচারীরা বুঝে ওঠা আগেই অধ্যক্ষ আমিনুল হক বাউবি’র কো-অর্ডিনেটর নজরুল ইসলামকে কোন প্রকার ত্রুটি ও কারণ দর্শানো নোটিশ ছাড়াই গত ৩১ মার্চ সাময়িক বরখাস্ত করেন এবং একই দিনে কো-অর্ডিনেটর পদ দখল করতে বাউবি কর্তৃপক্ষের বরাবরে একটি আবেদন করেন। এতে বাউবি’র উপ-আঞ্চলিক পরিচালক  মো: মোকছেদার রহমান অধ্যক্ষ আমিনুল হকের কাছে নতুন সমন্বয়কারী নিয়োগের প্রস্তাব প্রেরণ বিষয়ে গভর্নিং বডির সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত ও অনুমোদন সংক্রান্ত রেজুলেশনের সত্যায়িত অনুলিপি এবং বর্তমান সমন্বয়কারী প্রভাষক নজরুল ইসলামের ইস্তফাপত্র তলব করেন।
প্রকাশ থাকে যে, বাউবি কর্তৃপক্ষ কলেজটিতে এইচএসসি প্রোগ্রামের স্টাডি সেন্টার এবং পবর্তীতে পরীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে অনুমোদন প্রদান করে। বাউবি স্টাডি সেন্টার অনুমোদনকালে কলেজের গভর্নিং বডির সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত ও সুপারিশের ভিত্তিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রভাষক নজরুল ইসলামকে সমন্বয়কারী পদে নিয়োগ প্রদান করে।
বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত ওই অধ্যক্ষের চক্রান্ত ও দাপটে আসন্ন পরীক্ষার পূর্বে প্রথম বর্ষের ২২৩ জন ও দ্বিতীয় বর্ষের ১১৫ জন কর্মজীবী শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে পড়েছে। তবে কো-অর্ডিনেটর নজরুল ইসলামকে সড়ানোর চক্রান্ত জটিল আকার ধারণ করলে এবং লেখাপড়া বিঘ্ন হলে কঠোর আন্দোলন ও অবরোধে নামবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে বাউবি’র শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও এটি একটি চক্রান্তকারী মহলের অপতৎপরতা বলেও উল্লেখ করেন গভর্নিং বডির একাধিক সদস্য। কমিটির দাতা সদস্য ডা. হবিবর রহমান জনান, নজরুল ইসলাম শিক্ষক হিসেবে খুব ভালো। কিন্তু কমিটির মিটিং এবং সিদ্ধান্ত ছাড়াই আমিনুল হক অবৈধ ভাবে তাকে বরখাস্ত করেছে। এছাড়াও আমিনুল হক নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা কথা বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মন বিষিয়ে তুলেছে বলেও কমিটির অপর সদস্যরা জানান।
এ ব্যাপারে সাময়িক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমিনুল হকের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবনা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কলেজের সভাপতি, যা কিছু করা হয়েছে তার নির্দেশে করা হয়েছে। কোন কিছু প্রশ্ন থাকলে ইউএনওকে জিজ্ঞেস করেন।
পরে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি তো অফিস করছেন না। ক্লাস নেয়া বন্ধ রেখেছেন। তার বিষয় কিভাবে সিদ্ধান্ত নেব। তিনি অফিস করুক তারপর দেখা যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ