• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:২৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় সাতজনকে অপহরণের ঘটনা

82647_1নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে অপহরণের ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী পাওয়া গেছে।
শনিবার সিদ্ধিরগঞ্জে গণশুনানিতে বন্দর থানা এলাকার কাপড় ব্যবসায়ী শহীদুল ইসলাম তদন্ত কমিটির কাছে সাক্ষ্যে ওই দিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।
সাক্ষ্য দিয়ে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ২৭ এপ্রিল মেয়ের পরীক্ষা শেষে তাকে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড দিয়ে বাসায় ফিরছিলেন। দুপুর দেড়টার দিকে রাস্তায় র‌্যাব-১১-এর দুটি গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে র‌্যাবের সদস্যরা তাকে ধমক দিয়ে চলে যেতে বলেন। ওই সময় অন্য দুইটি গাড়ি থেকে কিছু লোককে র‌্যাবের গাড়িতে জোর করে তোলা হচ্ছিল। এ সময় কয়েকজনের হাতে পিস্তল ছিল, যা দিয়ে তাদের মাথায় আঘাত করতে দেখা গেছে।
র‌্যাবই নজরুলসহ সাতজনকে তুলে নিয়ে গেছে বলে দাবি করেন তিনি বলেন, মনে করেছি- র‌্যাব চেকপোস্ট বসিয়ে অপরাধীদের তল্লাশি করছে। পরে গণমাধ্যমে নজরুলসহ সাতজনকে অপহরণের বিষয়টি জানতে পারি।
তদন্ত কমিটিতে সাক্ষ্য দিয়ে বেরিয়ে মোহাম্মদ আলী নামে এজন বলেন, অপহরণের দিন দুপুরের পর লিংক রোড দিয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে ফতুল্লা স্টেডিয়ামের একটু সামনে রাস্তার পশ্চিম পাশে র‌্যাবের দুটি গাড়ি দেখেছিলেন তিনি।
সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পশ্চিমপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আলী পরে খবর শোনেন তার এলাকার কাউন্সিলর নজরুলসহ সাতজনকে অপহরণ করা হয়েছে।
এরপর তিনি বাড়িতে ফিরে দেখেন যে তার প্রতিবেশী আনোয়ার হোসেন আসিফের স্ত্রী ঘরের সমস্ত মালামাল নিয়ে অন্য স্থানে চলে যাচ্ছেন। জিজ্ঞাসা করলে আসিফের স্ত্রী জানায়, সে বাবার বাড়িতে চলে যাচ্ছে।
অপহরণ ও হত্যাকাণ্ডের নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটির দায়ের করা মামলার পাঁচ নম্বর আসামি আনোয়ার পলাতক রয়েছেন।
এছাড়া পলাতক নূর হোসেনের মামলায় নজরুলের সঙ্গে আসামি সিদ্ধিরগঞ্জের শহিদুল ইসলামও তদন্ত কমিটিকে সাক্ষ্যে র‌্যাবের সম্পৃক্ততার অভিযোগ তোলেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার দিন আদালতে নজরুলকে এক লোক অনুসরণ করছিল।
শহিদুল বলেন, ‘আমাদের সন্দেহ হলে তাকে আটক করে কোর্ট পুলিশের হাতে তুলে দিই। পরে র‌্যাবের পোশাক পরা একজন এসে কোর্ট পুলিশের সঙ্গে কথা বলে ওই লোকটিকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। কোর্ট পুলিশকে জিজ্ঞাসা করলে তারা জানায়, লোকটি র‌্যাবের বিশেষ গোয়েন্দা সদস্য।’
তদন্ত কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তদন্তের স্বার্থে শুনানির বিষয়গুলো গণমাধ্যমে প্রকাশ করা যাচ্ছে না।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, র‌্যাবসহ তদন্তের স্বার্থে যে কাউকে কমিটি জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
আলোচিত এই হত্যাকাণ্ড তদন্তে হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত সাত সদস্যের এই কমিটি এর আগে দুদিন নারায়ণগঞ্জ শহরের সার্কিট হাউজে গণশুনানি নিলেও তাতে তেমন সাড়া মেলেনি।
আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে অনেকে শহরে গিয়ে সাক্ষ্য দিতে চাইছেন না বলে জানানো হলে তৃতীয় দিনের গণশুনানি নিহত কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের এলাকা সিদ্ধিরগঞ্জে করার সিদ্ধান্ত হয়।
অভিযোগের মুখে থাকা র‌্যাবের সাবেক দুই সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর শনিবার সকাল ১১টায় সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে রেস্ট হাউজে শুনানি শুরু হলে ৩০০ জন সাক্ষ্য দিতে নিজেদের নাম তালিকাভুক্ত করেন। এর মধ্যে ১৯৮ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়।
গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে অপহরণ করা হয়। তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে তাদের লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ