• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন |

বাগেরহাটে হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি ৬ জনের যাবজ্জীবন

Adalotবাগেরহাট: বাগেরহাটের মংলায় দাদন ব্যবসায়ী ইলিয়াছ হাওলাদার হত্যা মামলায় চার জনের ফাঁসি এবং ছয় জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার দুপুরে বাগেরহাটের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এস এম সোলায়মান এই রায় ঘোষণা করেন।

আদালতে যাবজ্জীবন দন্ডাদেশ প্রাপ্তদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো দুই বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন। একই মামলার ২০১ ধারায় যাবজ্জীবন দন্ডাদেশ প্রাপ্তদের প্রত্যেককে ৫ বছরের জেল ও দুই হাজার টাকা করে জরিমানা করেন।

মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্তরা হলেন- রামপাল উপজেলার ডেমা গ্রামের ইউছুফ তরফদারের ছেলে আতাহার আলী তরফদার ওরফে পরান বাবু, একই উপজেলার কাটাখালী গ্রামের বজলুর রহমান গাজীর ছেলে বাবুল ওরফে বাবুল গাজী, বাগেরহাট সদর উপজেলার কালিয়া গ্রামের নওয়াব আলী শেখের ছেলে কালাম ওরফে কামাল শেখ ও রামপাল উপজেলার রঞ্জয়পুর গ্রামের কদম আলীর পুত্র বাচ্চু।

ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে রায় ঘোষণার সময় আদালতে শুধু আতাহার আলী তরফদার ওরফে পরান বাবু উপস্থিত ছিল। বাকীরা এখনও পলাকত রয়েছে বলে জানা যায়।

যাবজ্জীবন প্রাপ্তরা হলেন- বাগেরহাট সদর উপজেলার কালিয়া গ্রামের কাশেম শেখের ছেলে শহিদুল শেখ, কাশিমপুর গ্রামের আরব আলী শেখের ছেলে ইশারাত ওরফে ইশা, কালিয়া গ্রামের মাজেদ মোল্লার ছেলে ফরহাদ মোল্লা, পিসি ডেমা গ্রামের ইকলাছ শেখ ওরফে দয়াল শেখের ছেলে ফারুক ওরফে ফারুক মাষ্টার, কাশিমপুর গ্রামের ইসরাফিল ডাকুয়ার ছেলে শানু ডাকুয়া ও রামপাল উপজেলার তেলিখালী গ্রামের রাহেন উদ্দিন শেখের ছেলে হাকিম শেখ।

রায় ঘোষণার সময় শানু ডাকুয়া ও হাকিম শেখ ছাড়া বাকীরা সবাই আদালতে উপস্থিত ছিল।

মামলার বিবরণে জানায়, মংলা উপজেলার আমড়াতলা গ্রামের আলহাজ্ব আঃ মজিদ হাওলাদরের ছেলে ইলিয়াছ হাওলাদার একই এলাকার রফিকুল ইসলাম ও শুকুর আলী শেখকে সঙ্গে নিয়ে ১৯৯৮ সালের ১৯ নভেম্বর সুন্দরবনের জিউধরা ফরেষ্ট অফিস থেকে পাস নিয়ে মাছ ধরতে যান। এদিন বিকাল পাঁচটার সময় সুন্দরবনের গোটাবাড়ীয়া এলাকায় নিহত ইলিয়াছ অপর নৌকায় থাকা বাবুলকে চিনতে পারে এবং তাকে বাবুল ভাই বলে ডাক দেয়। এসময় বাবুল ইলিয়াসকে গুলি করলে তিনি লুটিয়ে পড়েন। এসময় রফিকুল ইসলাম ও শুকুর আলী শেখ নৌকা থেকে মাটিতে লাফিয়ে নেমে সুন্দরবনের ভিতরে পালিয়ে যায়। এ সময় তারা দুর থেকে দেখতে পান, দশ্যুরা ইলিয়াসকে টুকরা টুকরা করে কেটে নৌকাসহ পার্শ্ববর্তী একটি খালের পানিতে ডুবিয়ে দেয়।

পরদিন ২০ নভেম্বর রফিকুল ও শুকুর আলী বাড়ি ফিরে ইলিয়াছের পরিবারের কাছে ঘটনার বর্ণনা করে।

ঘটনার ২৫ নভেম্বর মংলা থানায় নিহতের ছেলে সাইফুজ্জামান বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা সিআডির পরিদর্শক মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, ২০০২ সালের ৪ মে তারিখে দন্ডদেশ প্রাপ্তদের নামে অভিযোগ পত্র (চার্জশীট) প্রদান করেন পুলিশ।

আদালত মামলার দীর্ঘ শুনানিতে ১০ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রবিবার এই রায় প্রদান করেন। রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন বাগেরহাট জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ