• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সৈয়দপুর কলেজের শিক্ষার্থীরা আবাসন সংকটে ভুগছে

Chatrabas - Copy
এম আর মহসিন, সিসিনিউজ: উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নীলফামারীর সৈয়দপুর কলেজ। দীর্ঘ ৫ যুগেও এ কলেজের ছাত্রের জন্য নেই কোন আবাসন (ছাত্রাবাস)। ফলে কলেজটির দেড় হাজার শিক্ষার্থী আবাসন সংকটে ভুগছে।
সূত্র মতে, কলেজটিতে অধ্যয়নরত দূর-দুরান্তের ছাত্ররা ছাত্রাবাস না থাকায় নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত হতে পারছে না। এতে ফলাফল বিপর্যয়ের আশংকা বিরাজ করছে তাদের মধ্যে। আর এ নিয়ে অভিভাবকরাও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। কলেজ সংশ্লিষ্টরা অর্থাভাবে আবাসন গড়তে না পারলেও গণপূর্ত বিভাগের কাছে একটি ভবনের জন্য আবেদন করেছেন। আর এ ভবনটি পেলে এ সমস্যার কিছুটা সমাধান হবে বলে জানান তারা।
১৯৫৩ সালে এ কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। ২০ একর সম্পত্তিতে গড়া কলেজটি ছিল একমাত্র এ জেলার ডিগ্রি কলেজ। ফলে এ জেলাসহ পার্শ্ববর্তী কয়েকটি জেলার শিক্ষার্থীরা এ কলেজের ওপর নির্ভর থাকতেন। এতে কলেজ সংলগ্ন পাড়ায় পাড়ায় গড়ে ওঠে বিভিন্ন ছাত্রাবাস। আর ছাত্রীরা বাসে কিংবা ট্রেনে এসে করতো কাস। এভাবেই দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে আবাসন ব্যবস্থার অভাবে শিক্ষার্থীরা এ কলেজে লেখাপড়া চালিয়ে আসছে। তবে এ সমস্যা আরও তীব্র হয় ২০০৯ সালে এ কলেজে নতুন ৩টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু হলে। নীলফামারী, ডোমার, চিরিরবন্দর, পার্বতীপুর, দিনাজপুর, দেবীগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, ডিমলাসহ দূর দূরান্তের শিক্ষার্থীরা এ কলেজের অনার্সে ভর্তি হয়েছে। তারা এখন কলেজ সংলগ্ন বিভিন্ন বাসাবাড়িতে পরিবারের সাথে থেকে চালিয়ে যাচ্ছে লেখাপড়া। এতে বিভিন্ন আপত্তিকর ঘটনাও ঘটছে। আর এ নিয়ে তাদের অভিভাবকরাও উদ্বিগ্ন রয়েছেন।
কলেজ সূত্রে জানা যায়, এ কলেজটিতে উচ্চ মাধ্যমিক ও ডিগ্রিতে বিভিন্ন বর্ষের ১২শত শিক্ষার্থী রয়েছে। আর অনার্স কোর্সে তিন বিষয়ে লেখাপড়া করছে ১৪৭ জন। এদের মধ্যে কলেজ শাখা ও অনার্স কোর্সে পড়ছে ৫ শত ৮১ জন ছাত্রী আর ৭ শত ৮৯ জন ছাত্র। এদের মধ্যে বেশির ভাগেরই প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে আসছে।
অনার্স কোর্সের সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী সানজিদা আকতার জানান, আমি ডিমলার ডালিয়া থেকে এসে এখানে অনার্স কোর্সে লেখাপড়া করছি। এতে প্রতিদিন কাসে উপস্থিত হওয়া সম্ভব হয় না। আর ছাত্রীদের জন্য কলেজ কিংবা বাইরেও কোন নিবাস থাকায় এভাবেই কষ্ট করে লেখাপড়া করতে হচ্ছে। আর এভাবেই কিশোরগঞ্জের বিভাস, রংপুরের রুবি, তারাগঞ্জের ওমর ফারুকসহ শত শত শিক্ষার্থী প্রতিদিন বাস কিংবা ট্রেনে এসে করছে লেখাপড়া। এতে সড়কেই কাসের সময় ব্যয় ছাড়াও অপ্রীতিকর ঘটনায়ও পড়তে হয় ভ্রমণকারী এ কলেজের শিক্ষার্থীদের। এ নিয়ে তাদের অভিভাবকরাও শংকিত। তাই শিক্ষার্থীদের ভ্রমণ হয়রানিসহ নিরাপত্তার স্বার্থে কলেজের নিজস্ব আবাসন ব্যবস্থা দাবি জানান অভিভাবকরা। আর এতে এ কলেজে লেখাপড়ার মানও বাড়বে বলে মত প্রকাশ করছেন সচেতন মহল।
এ নিয়ে কলেজটির অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান হাফিজ জানান, আগে একটি ছাত্রাবাস ছিল সেটি গণপূর্ত বিভাগের। বর্তমানে সেটি ড্যামেজ। এই ড্যামেজ কোয়াটারটি পুণরায় পেতে তাদের কাছে আবেদন করা হয়েছে। হয়তো প্রক্রিয়াগত কারণে কালক্ষেপন হচ্ছে। এটি পেলে দ্রুত সংস্কার করে এটাকেই আপাতত শিক্ষার্থীদের আবাসন হিসেবে ব্যবহার করা হবে। আর অর্থাভাবে এখন ছাত্রাবাস গড়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ